শিরোনাম
প্রকাশ : ২ জুলাই, ২০২১ ০৯:২৯
প্রিন্ট করুন printer

আশ্রয়ণ প্রকল্প : চলছে আমলাতন্ত্রের দৌরাত্ম্য ও লুটপাট

বাণী ইয়াসমিন হাসি

আশ্রয়ণ প্রকল্প : চলছে আমলাতন্ত্রের দৌরাত্ম্য ও লুটপাট
Google News

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আজন্ম লালিত স্বপ্ন ছিল বাংলার গরীব দু:খী নিরন্ন মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর। এ লক্ষ্যে তিনি অন্ন, বস্ত্র, আশ্রয়, শিক্ষা ও চিকিৎসাসহ জীবনধারণের মৌলিক উপকরণের ব্যবস্থা নিশ্চিতকরণের বিষয়টি সংবিধানের ১৫(ক) অনুচ্ছেদে অন্তর্ভূক্ত করেন। বঙ্গবন্ধু ১৯৭২ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি নোয়াখালী জেলার(বর্তমান লক্ষীপুর) চরপোড়াগাছা গ্রাম পরিদর্শন করেন এবং গৃহহীন মানুষের জন্য গৃহ নির্মাণের নির্দেশ প্রদান করেন। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশেই শুরু হয় গৃহহীন পূনর্বাসন কার্যক্রম।

শেখ হাসিনা ১৯৯৬ সালে দেশ পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণের পর ১৯৯৭ সালের ২০ মে কক্সবাজার জেলাসহ পার্শ্ববর্তী এলাকা ঘূর্ণিঝড়ে আক্রান্ত হওয়ায় বহু পরিবার গৃহহীন হয়ে পড়ে। তদানীন্তন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঐ এলাকা পরিদর্শনে যান। তিনি মানুষের দুঃখ দুর্দশা দেখে অত্যন্ত সহানুভূতিশীল হয়ে পড়েন এবং সকল গৃহহীন পরিবারসমূহকে পুনর্বাসনের তাৎক্ষণিক নির্দেশ দেন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে ১৯৯৭ সালে ‘আশ্রয়ণ’ নামে একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। এ প্রকল্পের মাধ্যমে ১৯৯৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৩৮৪০.৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ২৯৮,২৪৯টি ভূমিহীন-গৃহহীন-অসহায়- ছিন্নমূল পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। ২৭৫,৬৫৬ জনকে আয়বর্ধক পেশাভিত্তিক প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। ১৩৮,৭১৮টি পরিবারকে ঋণ প্রদান করা হয়েছে। সবুজায়নের লক্ষ্যে প্রতিটি প্রকল্পগ্রামে ফলদ, বনজ ও ঔষধি বৃক্ষরোপণ করা হয়ে থাকে। প্রকল্পগ্রামে বসবাসরত উপকারভোগীদের জীবনমান সহজীকরণের জন্য বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান, সুপেয় পানি ও স্যানিটেশনের ব্যবস্থা রয়েছে।
 
সম্পূর্ণ বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে ১ম পর্যায়ে আশ্রয়ণ প্রকল্পে জুলাই, ১৯৯৭ – জুন, ২০০২ মেয়াদে ৩০০.০০ কোটি টাকা ব্যয়ে  ৪৭,২১০ টি এবং পরবর্তীতে উক্ত প্রকল্পের ধারাবাহিকতায় ২য় পর্যায়ে আশ্রয়ণ প্রকল্প (ফেইজ–২ ) এ জুলাই, ২০০২-ডিসেম্বর, ২০১০ মেয়াদে ৬০৮.০০ কোটি টাকা ব্যয়ে কোটি টাকা ৫৮,৭০৩ টি ভূমিহীন পরিবার ব্যারাকে পুনর্বাসন করা হয়েছে।
 
বর্ণিত প্রকল্পের সাফল্য ও ধারাবাহিকতায় জুলাই, ২০১০ - জুন, ২০২২ (সংশোধিত) মেয়াদে ২.৫০ লক্ষ ভূমিহীন, গৃহহীন, ছিন্নমূল অসহায় পরিবার পুনর্বাসনের লক্ষ্যে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে আশ্রয়ণ–২ প্রকল্পের মাধ্যমে ২৯৩২.৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ১৯২,৩৩৬টি পরিবার পুনর্বাসন করা হয়েছে। (তন্মধ্যে ৪৮,৩২৫ টি ভূমিহীন পরিবার ব্যারাকে পুনর্বাসন করা হয়েছে, ভিক্ষুক পুনর্বাসনসহ “নিজ জমিতে গৃহ নির্মাণ কর্মসূচির” আওতায় ১৪৩,৭৭৭টি পরিবারকে তাঁদের নিজ জমিতে গৃহ নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে এবং ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী পরিবারের জন্য ২৩৪টি টং ঘর ও বিশেষ ডিজানের ঘর নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে)।

আশ্রয়ণ প্রকল্পের ধারাবাহিকতায় আশ্রয়ণ-২ (জুলাই ২০১০-জুন ২০২২) নামে একটি প্রকল্পের কার্যক্রম বর্তমানে চলমান রয়েছে। এ প্রকল্পে চরাঞ্চলে সিআইশিট ব্যারাক ঘূর্ণিঝড়, সিডর, আইলা আক্রান্ত এলাকার জন্য পাকা ব্যারাক, অন্যান্য অঞ্চলের জন্য সেমি-পাকা ব্যারাক এবং ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী পরিবারদের জন্য তাদের কৃষ্টি, সংস্কৃতি ও রীতিনীতির সাথে সামঞ্জস্য রেখে বিশেষ ডিজাইনের গৃহ নির্মাণের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

বেশ কিছুদিন ধরে জেলা/ উপজেলা প্রতিনিধিদের পাঠানো স্পেসিফিক একটা নিউজ আইটেম আমার মনোযোগ কেড়েছে। আজ সকাল থেকে পুরো নীতিমালাটা পড়লাম। হ্যাঁ আমি ‘আশ্রয়ন’ প্রকল্পের কথা বলছি। দুইদিন আগের খবর-বসবাস শুরুর আগেই ২ দিনের বৃষ্টিতেই বগুড়ায় আশ্রয়ণ প্রকল্পের একটি ছাড়া প্রধানমন্ত্রীর উপহারের সব ঘর ভেঙে পড়লো! এর আগেও বরগুনা, গাইবান্ধা জেলায় আশ্রয়নের ঘর ভেঙে পড়েছিলো সামান্য বাতাসের ধাক্কায়। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এমন খবর প্রায় প্রতিদিনই আসছে। এখন প্রশ্ন হলো মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এমন মহতী উদ্যোগকে কারা প্রশ্নবিদ্ধ করছে? সেই উত্তর খুঁজতে এবার যাওয়া যাক প্রকল্প বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ার দিকে।

অনুচ্ছেদ ৯’এ বর্ণিত উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি ডিপিএম পদ্ধতিতে গৃহ নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করবে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি:
(১) উপজেলা নির্বাহী অফিসার
(২) সহকারী কমিশনার (ভূমি)
(৩) উপজেলা প্রকৌশলী, এলজিইডি
(৪) সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান
 (৫) উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা।

কমিটির কর্মপরিধি:

(ক) অনুমোদিত নকশা ও প্রাক্কলন অনুযায়ী নির্ধারিত সময়ের মধ্যে গৃহনির্মাণ কাজ বাস্তবায়ন নিশ্চিত করবে।

(খ) সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাদ্দকৃত অর্থের আয়ন ও বাস্তবায়ন কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করবে।

(গ) খরচের বিল/ভাউচারের এক কপি সংশ্লিষ্ট জেলা/উপজেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার কার্যালয়ে এবং অপর কপি নিরীক্ষা দলের নিরীক্ষার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে সংরক্ষণ করতে হবে।

(ঘ)সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাজ সমাপ্ত না হওয়া পর্যন্ত প্রতি মাসের ১ম সপ্তাহে অগ্রগতি প্রতিবেদন এবং কাজ সমাপনান্তে সমাপ্তি প্রতিবেদন জেলা প্রশাসক বরাবরে এবং প্রকল্প পরিচালক, আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রেরণ করবেন।
(ঙ) কমিটি প্রতি মাসে কমপক্ষে ০১ (এক)টি সভা করবে।

উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় অবহিতকরণ:
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি গৃহ নির্মাণ কাজের অগ্রগতি উপজেলা পরিষদের মাসিক সভায় অবহিত করবে।

আশ্রয়ণ সংক্রান্ত জেলা টাস্কফোর্সকে অবহিতকরণ:
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি গৃহ নির্মাণ কাজের অগ্রগতি আশ্রয়ণ প্রকল্প সংক্রান্ত জেলা টাস্কফোর্স এর সভায় অবহিত করবে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটিতে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদেরকে সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে। এটা দেখে বেশ কয়েকজন চেয়ারম্যানের সাথে কথা বললাম। সবার ঘুরেফিরে একই উত্তর। মিটিং এ যেয়ে বসে থাকা ছাড়া তাদের আর কোন কাজ নেই। 

এক বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ এবং সাংসদের সাথে কথা বললাম; তিনি অনেকটা আক্ষেপের সুরেই বললেন- স্রেফ ডিসি সাহেব এবং ইউএনও পুরো কাজটা করেন। ঠিকাদার নির্ধারণ, ইট-বালু, সিমেন্ট, রড সব উনারাই ব্যবস্থা করেন। মান নির্ণয়ের কোন ব্যবস্থা নেই। কোন স্পেসিফিকেশন নেই। ওপেন টেন্ডার হলে বরং ভালো হতো। প্রতিযোগিতা থাকতো। কাজের মানটা অন্তত ঠিক থাকতো।

এই যে পর্দাকাণ্ড, বালিশ কাণ্ড, নারিকেল গাছ কাণ্ড। আলু চাষ, পুকুর খনন শিখতে বিদেশ ভ্রমণ। এগুলোর সবই কিন্তু আমলাদের কাণ্ড। তাদের সীমাহীন অনিয়ম আর দুর্নীতির দায় কিন্তু দিনশেষে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীকেই নিতে হয়। জনগণের কাছে গালি খায় মন্ত্রী, জনপ্রতিনিধি। কিন্তু মূল দোষীরা ধরাছোঁয়ার বাইরেই থেকে যায়।

একটি প্রকল্পের ডিপিপি থেকে শুরু করে সবই করেন আমলারা। মন্ত্রী মহোদয়ের টেবিলে ৮০০ পাতার ফাইল যায় প্রকল্প পাশের অল্প কিছু আগে। ৮০০ পৃষ্ঠা পড়ে যাচাই করার সুযোগ পান না মন্ত্রীরা। এই শতশত পৃষ্ঠার ঘুপচিতেই লাখ টাকা দামের পর্দা, বালিশ, নারিকেল গাছ লুকিয়ে থাকে।

হ্যাঁ, রাজনীতিবিদদেরও দায় আছে। নিজেদের মধ্যেকার গ্রুপিং; একে অন্যকে টেনে নামানোর নোংরা খেলায় রাজনীতিবিদরা এবং রাজনৈতিক দলগুলো একে অন্যের বিরূদ্ধে মিথ্যা কাল্পনিক অভিযোগের পাহাড় দাঁড় করান। তাদের নিজেদের কাঁদা ছোড়াছুড়ির কারণে আমজনতার মধ্যে একটা নেগেটিভ ধারণার জন্ম নেয়। তারা মনে করে রাজনীতিবিদরাই দুর্নীতি করে এবং একমাত্র রাজনীতিবিদরাই দুর্নীতিবাজ। এতসব অপপ্রচারের কারণে মূল অপরাধী সরকারি আমলা, পিকে হালদার এবং স্বাস্থ্যের আফজালের মতন দুর্নীতিবাজরা পর্দার আড়ালেই থেকে যায়।

অধিকাংশ সরকারি অফিসগুলোতে টাকা ছাড়া ফাইল নড়ে না। সরকারের বড় বড় প্রকল্পগুলোতে কে বা কারা কাজ পাবেন সেটাও ভাগাভাগি করেন আমলারাই। প্রতিটা জেলায় ডিসিরা এলআর ফান্ডের নামে ব্যাপক চাঁদাবাজি করেন। যেকোন প্রোগ্রাম এলে ব্যবসায়ীরা তটস্থ থাকেন। এই এলআর ফান্ডকে অডিটের আওতায় আনলে জেলা পর্যায়ে দুর্নীতি কিছুটা হলেও কমবে।

সর্বত্র যেভাবে আমলাদের মাথায় তোলা হচ্ছে; এদেরকে ঘাড় থেকে নামানো খুউব কঠিন হবে। এটা কারো জন্যই শুভ কিছু বয়ে আনবে না! গত কয়েক বছর ধরে লোকাল রাজনীতির কার্যক্রম হচ্ছে -থানায় কোন ইউএনও আর ওসি এলো; তাকে কে কার আগে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাবে তার প্রতিযোগিতা। রাজনীতির এই দেউলিয়াপনা দীর্ঘমেয়াদে ভোগাবে। মন্ত্রী পরিষদের দিকে তাকান। কয়জন মন্ত্রী সচিবের চোখে চোখ রেখে কথা বলতে পারেন? জনশ্রুতি আছে অনেক মন্ত্রী সচিবকে দেখলে উঠে দাঁড়ান। পাড়ার/ মহল্লার নেতাদের ধরে এনে মন্ত্রী বানানোর ফল এটা।

লেখক: সম্পাদক, বিবার্তা২৪ডটনেট

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন