শিরোনাম
প্রকাশ : ৮ আগস্ট, ২০২১ ০৬:৪১
আপডেট : ৮ আগস্ট, ২০২১ ০৬:৫০
প্রিন্ট করুন printer

বঙ্গবন্ধুর জীবন-রাজনীতি এবং একজন ফজিলাতুন্নেছা

অধ্যাপক ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ

বঙ্গবন্ধুর জীবন-রাজনীতি এবং একজন ফজিলাতুন্নেছা
অধ্যাপক ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ
Google News

আজ এমন একজন নারীর জন্মদিন, যিনি সাধারণের বেশে অসাধারণ, বাঙালি নারীর প্রকৃত প্রতিকৃতি। একজন সাধারণ গৃহিণী হয়েও বাংলাদেশের ইতিহাসে যার ভূমিকা উজ্জ্বল। তিনি বাঙালির স্বপ্নজয়ের একজন সারথি বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। যার হৃদয় ছিলো কঠোর- কোমলে ভালোবাসায় পরিপূর্ণ।

বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার আন্দোলন-সংগ্রামের প্রতিটি ধাপে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মিণী হিসেবে নয়, সংসারের অন্তরালে থেকে আবির্ভূত হয়েছিলেন একজন দক্ষ নীরব সংগঠক রূপে।

সাংসারিক নানা টানাপোড়েন ও শত দুঃখ-কষ্টের পাশ কাটিয়ে দুর্দিনে আওয়ামী লীগকে পরিচালনা করেছেন। আর আজীবন ছায়ার মতো পাশে থেকে স্বামী শেখ মুজিবকে অধিষ্ঠিত করেছেন হিমালয়সম আসনে। এভাবেই ১৯৩০ সালের ৮ আগস্ট গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম নেওয়া ফজিলাতুন্নেছা বাংলার মানুষের মণিকোটায় জায়গা করে নিয়েছেন শ্রদ্ধা ও সম্মানে।

প্রিয়তমা স্ত্রীকে বঙ্গবন্ধু ডাকতেন ‘রেণু’ বলে। মাত্র ১১ বছর বয়সে কিশোর শেখ মুজিবের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। এ বিষয়ে ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’তে শেখ মুজিব লিখেছেন, ‘‘আমার যখন বিবাহ হয় তখন আমার বয়স বার-তের বছর হতে পারে। ... রেণুর দাদা আমার আব্বার চাচা। মুরব্বির হুকুম মানার জন্যই রেণুর সাথে আমার বিবাহ রেজিস্ট্রি করে ফেলা হল। আমি শুনলাম আমার বিবাহ হয়েছে। তখন কিছুই বুঝতাম না, রেণুর বয়স তখন বোধহয় তিন বছর হবে।’’

এদিকে বিয়ে হলেও শেখ মুজিবের এন্ট্রান্স পাসের পর মূলত তাদের সংসার জীবন শুরু হয়। ১৯৪২ সালে শেখ মুজিব ভর্তি হন কলকাতার ইসলামিয়া কলেজে। সেখানেই তাঁর রাজনৈতিক জীবনের সূচনা ঘটে। আর তখন বিভিন্ন ধরনের বই পড়ে সময় কাটতো বেগম ফজিলাতুন্নেছার।

পড়াশোনায় বেগম ফজিলাতুন্নেছা বড় ডিগ্রিধারী ছিলেন না, কিন্তু মনের দিক থেকে তিনি ছিলেন অনেকের চেয়ে বড় হৃদয়ের অধিকারী। দুর্দিনে মানুষের সুখ-দুঃখের সঙ্গী ও আশ্রয়স্থল ছিলেন তিনি। সব সময় দেশের প্রয়োজনকেই বড় করে দেখতেন তিনি। নিজে শয্যাশায়ী থেকেও স্বামীকে ১৯৪৬ সালে দাঙ্গায় আক্রান্ত এলাকায় যেতে বারণ করেননি।

বরং উৎসাহ দিয়ে তিনি চিঠিতে লিখেছেন, ‘আপনি শুধু আমার স্বামী হওয়ার জন্য জন্ম নেননি, দেশের কাজ করার জন্যও জন্ম নিয়েছেন। দেশের কাজই আপনার সবচাইতে বড় কাজ। আপনি নিশ্চিন্ত মনে আপনার কাজে যান। ... আল্লাহর উপরে আমার ভার ছেড়ে দিন।’

এমনটা কেবল বেগম মুজিব বলেই সম্ভব হয়েছে। তাই তো তিনি হয়েছেন বাঙালির মাতা-বঙ্গমাতা। শৈশবে বাবা-মাকে হারানোর পর ফজিলাতুন্নেছা বেড়ে ওঠেন দাদা শেখ কাশেমের কাছে। তাঁকে মাতৃস্নেহে আগলে রাখেন চাচি এবং পরবর্তীতে শাশুড়ি শেখ মুজিবের মা সায়েরা খাতুন। পিতার অভাব বুঝতে দেননি বঙ্গবন্ধুর বাবা শেখ লুৎফুর রহমানও।

বঙ্গবন্ধুর ‘রেণু’ ছিলেন সূক্ষ্ম প্রতিভাসম্পন্ন জ্ঞানী, বুদ্ধিদীপ্ত, দায়িত্ববান ও ধৈর্যশীল একজন নারী। জাতির পিতার ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ লেখার ক্ষেত্রেও মূল প্রেরণা ও উৎসাহ ছিল তাঁর। স্ত্রীর অবদানের কথা তুলে ধরতে গিয়ে ১৯৭২ সালের ২৬ মার্চ এক অনুষ্ঠানে জাতির পিতা বলেন, ‘আমার জীবনেও আমি দেখেছি যে গুলির সামনে আমি এগিয়ে গেলেও কোনো দিন আমার স্ত্রী আমাকে বাধা দেয় নাই। এমনও আমি দেখেছি যে, অনেকবার আমার জীবনের ১০/১১ বছর আমি জেল খেটেছি। জীবনে কোনো দিন মুখ খুলে আমার ওপর প্রতিবাদ করে নাই। তাহলে বোধ হয় জীবনে অনেক বাধা আমার আসত। এমন সময়ও আমি দেখেছি যে আমি যখন জেলে চলে গেছি, আমি এক আনা পয়সা দিয়ে যেতে পারি নাই আমার ছেলে-মেয়ের কাছে। আমার সংগ্রামে তার দান যথেষ্ট রয়েছে।’

জীবন-সংগ্রামের সব কণ্টকাকীর্ণ পথ অতিক্রম করে বেগম ফজিলাতুন্নেছা পরিবারও সামলেছেন বেশ গুছিয়ে। তিনি প্রতিটি ঘটনা জেলখানায় দেখা করার সময় বঙ্গবন্ধুকে অবহিত করতেন। সেখানে বঙ্গবন্ধুর পরামর্শ শুনে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ নেতাদের তা জানাতেন বেগম মুজিব। অন্যদিকে কারাগারে সাক্ষাৎ করে বঙ্গবন্ধুর মনোবল দৃঢ় রাখতেও সহযোগিতা করতেন তিনি।

বঙ্গবন্ধু জেলে থাকা অবস্থায় নিজের ঘরের আসবাবপত্র, অলঙ্কার বিক্রি করেও দল ও নেতা-কর্মীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন বেগম ফজিলাতুন্নেছা। একজন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর স্ত্রী হয়েও সাধারণ মানুষের মতো জীবন-যাপন করতেন তিনি। তাঁর বাড়িতে কোনো বিলাসী আসবাবপত্র ছিলো না, ছিলো না কোনো অহংবোধ। ছেলে-মেয়েকেও গড়েছেন সেভাবেই। সন্তানদের যেমন ভালোবেসেছেন তেমন শাসনও করেছেন। পালন করে গেছেন পিতা-মাতা উভয়েরই কর্তব্য। কোমলে কঠোরে মিশ্রিত দৃঢ়প্রতিজ্ঞ এই সাহসী নারী স্বামীর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে ছেলে-মেয়েদের গড়ে তোলেন।

তবে ইতিহাসে এই মহীয়সী নারী সম্পর্কে আলোচনা হয়েছে খুব সামান্যই; অথচ নেপথ্যে থেকে তিনি বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রামের প্রতিটি পর্বেই বিশ্বস্ত সারথীর মতো অশেষ ক্লেশ স্বীকার করেও বঙ্গবন্ধুকে সমর্থন ও পরামর্শ দিয়েছেন, সাহস যুগিয়েছেন।

বিশেষ করে ১৯৬৯ সালে গণঅভ্যূত্থানের পর পতনোন্মুখ আইয়ুব খান টিকে থাকার শেষ চেষ্টা হিসেবে বঙ্গবন্ধুকে প্যারোলে মুক্তি দিয়ে লাহোরে গোলটেবিল বৈঠকের যে প্রস্তাব দেন সে ব্যাপারে বেগম মুজিব যে ভুমিকা নেন তা ছিল ঐতিহাসিক ও যুগান্তকারী। এটি ছিল তাঁর রাজনৈতিক পরিপক্বতা ও দেশপ্রেমের উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।

দীর্ঘদিন কারান্তরীণ স্বামীর প্যারোলে মুক্তির চেয়ে আন্দোলনের সাফল্য ও ব্যক্তি মুজিবের মর্যাদা রক্ষাই ছিলো তাঁর নিকট অধিক গুরুত্বপূর্ণ। এমনকি আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দও বঙ্গবন্ধুর প্যারোলে মুক্তির ব্যাপারে উৎসাহী ছিলেন, কিন্তু আলোচনার শর্ত হিসেবে ‘নিঃশর্ত মুক্তি’র পক্ষে দৃঢ় থাকার জন্য বঙ্গবন্ধুকে জেলখানায় চিরকুট পাঠিয়েছিলেন বেগম মুজিব। ওই সময়টায় গ্রেফতারের হুমকি দেয়া হলেও বিচলিত ছিলেন না তিনি। বরং তীক্ষ্ম বুদ্ধিমত্তা দিয়ে মামলাটি আইনি ভাবে মোকাবিলার প্রস্তুতি নিতে আইনজীবীদের পরামর্শ এবং অর্থের সংস্থান করেন।

১৯৬১ সালের ১ অক্টোবর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরের বাড়িতে ওঠেন বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা। এরপর এ বাড়ি-ই পরিণত হয় নেতাকর্মীদের আপন ঠিকানায়। এখান থেকে পরিচালিত হয় দলীয় ও মুক্তিযুদ্ধের দিক-নির্দেশনামূলক নানা কার্যক্রম। রাত-বিরাতে ৩২ নম্বরে অভুক্ত ছাত্রনেতা কিংবা রাজনৈতিক কর্মীদর নিজের হাতে রেঁধে মায়ের স্নেহে, বোনের মমতায় পাশে বসে খাইয়েছেন বেগম মুজিব।

বঙ্গবন্ধুর জাতির পিতা হয়ে ওঠার পেছনে বেগম মুজিব যে কতটা প্রভাবশালী অনুঘটকের মতো করে কাজ করেছিলেন তা আরেকটি ঘটনা থেকে সহজেই প্রতীয়মান হয়। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ রমনার রেসকোর্স ময়দানে আওয়ামী লীগের ঐতিহাসিক জনসভাকে ঘিরে এক অভূতপূর্ব পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

মুজিব কি স্বাধীনতার ঘোষণা দিতে যাচ্ছেন? চারিদিকে টান টান উত্তেজনা। কী বলবেন তিনি? ছাত্ররা চায় তিনি ওই দিনই স্বাধীনতা ঘোষণা করুন। এদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তাঁকে জানিয়ে দিয়েছে, তিনি স্বাধীনতা ঘোষণা করলে তা মেনে নেয়া হবে না। ইয়াহিয়া খান টেলিফোনে অনুরোধ করেছে, সবকিছু শেষ করে দেবেন না। ‘অপারেশন ব্লিৎস’ এর পরিকল্পনা করা হয়েছে: বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা ঘোষণা করলে উপস্থিত জনতাকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়া হবে; রেসকোর্স ময়দানের আকাশে সেজন্য চক্কর দিচ্ছে সামরিক হেলিকপ্টার।

বঙ্গবন্ধুর শরীরও অসুস্থ, ঈষৎ জ্বর। কিন্তু বেগম মুজিব ছিলেন ধীর, স্থির। তিনি বঙ্গবন্ধুকে বলেছিলেন, ‘...এই মানুষগুলির জন্য তোমার মনে যা আসবে সেটাই তুমি বলবা।’ এরপরই বঙ্গবন্ধু দিয়েছিলেন তাঁর অনবদ্য ঐতিহাসিক ভাষণ- ‘এবারের সংগ্রাম, আমাদের মুক্তির সংগ্রাম। এবারের সংগ্রাম, স্বাধীনতার সংগ্রাম’। যে ভাষণের জন্য তিনি স্বীকৃতি পেলেন ‘রাজনীতির কবি’ হিসেবে। এই ভাষণ এখন ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ, যা শুনলে বাঙালি মাত্রই শিহরিত হয়। এছাড়া ২৩ মার্চের পতাকা উত্তোলনেও বঙ্গবন্ধুর প্রধান উদ্দীপক ও পরামর্শক হিসেবে বিবেচনা করা যায় বেগম ফজিলাতুন্নেছাকে।

শুধু তাই নয়, মহান মুক্তিযুদ্ধের পুরো নয়টি মাস অসীম সাহস, দৃঢ় মনোবল ও ধৈর্য্য  নিয়ে বেগম মুজিব পরিস্থিতি মোকাবিলা করেছেন। এই সময়টায় ছেলে-মেয়েদের নিয়ে অনেকটা বন্দিদশায় কেটেছে তাঁর। এমনকি জুলাই মাসে হাসপাতালে জন্ম নেয়া নাতি সজীব ওয়াজেদ জয় ও মেয়ে শেখ হাসিনা দেখতে দেয়া হয়নি তাঁকে।

বেগম ফজিলাতুন্নেছা ছিলেন দূরদৃষ্টিসম্পন্ন একজন সংগ্রামী নারী। মাত্র ৪৪ বছর বয়সে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সবার সঙ্গে তাঁকেও হত্যা করে ঘাতকের দল। তবে ফজিলাতুন্নেছা বেঁচে আছেন, বেঁচে থাকবেন তাঁর কর্মে-আদর্শে, শক্তি এবং মমতাময়ী রূপে, বাংলার ঘরে ঘরে। ৯২তম জন্মদিনে বাঙালির এই স্বপ্নজয়ের সারথীর প্রতি রইলো বিনম্র শ্রদ্ধা।

লেখক: উপাচার্য, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। 

বিডি প্রতিদিন/ মজুমদার