২৫ জুন, ২০২২ ১৯:৫০

আওয়ামী লীগের ঘোষণাপত্রে ইতিহাস বিকৃতি দুঃখজনক!

সোহেল সানি

আওয়ামী লীগের ঘোষণাপত্রে ইতিহাস বিকৃতি দুঃখজনক!

সোহেল সানি

স্বাধীনতার নেতৃত্বদানকারী আওয়ামী লীগ। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের পর থেকে স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের চরম ও নির্লজ্জ বিকৃতির ঘটেছে। আওয়ামী লীগের এ অভিযোগ শতভাগ সত্য। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে- সেই আওয়ামী লীগের ইতিহাসে বিকৃতি ঘটেছে। বিকৃত করা হয়েছে আওয়ামী লীগের সর্বশেষ সংশোধিত ম্যানিফেস্টোতে। বর্ণিত দল প্রতিষ্ঠায় বিশেষ করে উদ্যোক্তাকারী নেতৃবর্গ এবং তাঁদের নেতৃত্বের ক্ষেত্রে বর্ণিত ব্যাখ্যা চরম বিকৃতিসুলভ। আওয়ামী লীগ মুক্তির সংগ্রামে একটি নিয়মতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে গৌরববর্ধন করলেও পরিতাপের বিষয় যে তার ঘোষণাপত্রে ব্যবহৃত শব্দগুচ্ছ একেবারেই বৈপ্লবিক। যেন লেলিনবাদ, মার্কসবাদী কিংবা মাওবাদ দলটির আদর্শ এবং তা প্রতিষ্ঠার সংকল্পে বিভোর। এর কারণ উদঘাটন করতে গিয়ে প্রমাণিত এক সত্য উঁকি দিচ্ছে যে আওয়ামী লীগের ঘোষণাপত্রটির আমূল পরিবর্তন ঘটেছে চীনপন্থী মওলানা ভাসানীর ন্যাপনেতাদের নেতৃত্বে। অধ্যাপক আবু সাইয়িদের পর আসাদুজ্জামান নূর ও নূহ্ উল আলম লেলিন প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদকের দায়িত্বপালন করেন। এই সময়ে ঘোষণাপত্রের ভাষা ব্যবহারে দেয়া হয় বৈপ্লবিক রূপ এবং নেতৃত্বের বর্ণনায় হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর নাম ও অবস্থান মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর নীচে নামিয়ে আনা হয়েছে।

সর্বশেষ আওয়ামী লীগের সাড়া জাগানো কাউন্সিল সভামঞ্চ ও ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে রঙবেরঙে সজ্জিত তোরণচিত্রে সোহরাওয়ার্দীর প্রতিকৃতির আগে শোভা পেয়েছে ভাসানীর প্রতিকৃতি। প্রথম সাধারণ সম্পাদক শামসুল হকের কথা যেন না পেরে উল্লেখ করা হয়েছে। আর কেন্দ্রীয় পাকিস্তান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হক ওসমানীর নাম দেয়া তো পরের কথা। অথচ, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীকে মওলানা ভাসানীও তাঁর নেতা হিসাবে মেনে নিয়েছিলেন। তার উৎকৃষ্ট উদাহরণ সোহরাওয়ার্দী ছিলেন অল পাকিস্তান আওয়ামী লীগের সভাপতি। আর ভাসানী ছিলেন পূর্বপাকিস্তান আওয়ামী লীগ শাখার সভাপতি।

পশ্চিম পাকিস্তান আওয়ামী লীগ নামেও একটি প্রাদেশিক শাখা ছিল। এসবের কিছুই উল্লেখ নেই আওয়ামী লীগের ঘোষণাপত্র বা মেনিফেস্টোতে। ১৯৫৪ সালের নির্বাচনের আগেই যুক্তফ্রন্টের নেতা নির্বাচন করা হয়। ঐতিহাসিক বিজয়ের পর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী যুক্তফ্রন্টের পূর্বপাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের নেতা হন শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক। আওয়ামী লীগ ১৪৩টি আসন পেলেও সোহরাওয়ার্দী-ভাসানী মাত্র ৪৮টি আসন লাভকারী কৃষক শ্রমিক পার্টির নেতা শেরে বাংলাকে পূর্ববাংলার মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে স্বাগত জানান। শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক যুক্তফ্রন্টের নির্বাচনের আগেই প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হন যে, বিজয়ী হলে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের নেতা তথা পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বা বিরোধী দলের নেতা হবেন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। কিন্তু যুক্তফ্রন্ট ভেঙে যায়। কৃষক শ্রমিক পার্টি নয়, পশ্চিম পাকিস্তানের রিপাবলিকান পার্টির সঙ্গে আওয়ামী লীগকে কোয়ালিশন সরকার গঠন করতে হয়। সোহরাওয়ার্দী প্রধানমন্ত্রী হিসাবে ১৩ মাস পাকিস্তান শাসন করেন। শেরে বাংলার দলের সমর্থন ছাড়াই পূর্ববাংলায় আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করে একই সময়। আতাউর রহমান খান মুখ্যমন্ত্রী হন। কিন্তু অচিরেই উভয় সরকারের পতন ঘটে সামরিক শাসনের যাঁতাকলে। এর আগে যুক্তফ্রন্টের ভাঙন এমন সংঘাতে রূপ নেয় যে, প্রাদেশিক পরিষদের অধিবেশন চলাকালেই স্পিকার শাহেদ আলী হত্যার শিকার হন। সোহরাওয়ার্দীর প্রধানমন্ত্রীত্বে আওয়ামী লীগ প্রায় দেড় বছর সারা পাকিস্তান শাসন করে। এটা অবশ্যই আওয়ামী লীগের গৌরবময় অধ্যায়। ঘোষণাপত্রে এ কথা উল্লেখ থাকতে পারতো। সোহরাওয়ার্দী মন্ত্রিসভায় দুই প্রদেশের বাঘা বাঘা সব মন্ত্রীদের নাম প্রজন্ম জানার সুযোগ পেত। পাশাপাশি বর্ণিত হতে পারতো পাকিস্তানের অধ্যায়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ সরকারের পাশাপাশি পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ সরকারের সাফল্যগাঁথাও।

২০০২ সালের কাউন্সিল পর্যন্ত আওয়ামী লীগের ঘোষণাপত্রে পাকিস্তান শাসনের কথা উল্লেখ না থাকলেও যতটুকু ছিল তা অবিকৃতই ছিল। কিন্তু তা কেটেছেঁটে বামপন্থী দুই নেতা আসাদুজ্জামান নূর ও নূহ্ উল আলম লেলিন এমন অবস্থায় রূপ দিয়েছেন, যা কেবল বিকৃতিগ্রস্ত। সাবেক ছাত্রইউনিয়ন নেতা অভিনেতা আসাদুজ্জামান নূর আওয়ামী লীগ সরকারের সংস্কৃতিমন্ত্রী ছিলেন গত মেয়াদে। অপর ছাত্রইউনিয়ন নেতা লেলিন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামে ঠাঁই পেলেও বিগত কাউন্সিলে বাদ পড়েছেন। স্বাধীনতার নেতৃত্বদানকারী দল আওয়ামী লীগের ঘোষণাপত্রে এ দেখার কেউ আছে বলে মনে হয় না। একেক করে সবাই চলে গেছেন পরলোকে। আওয়ামী লীগের ইতিহাস লেখার অদম্য ইচ্ছা থেকে দুই যুগ গবেষণার পর একটা ইতিকথা লেখার ধৃষ্টতা পোষণ করছি। যা ইতিহাস বিকৃতিরোধে কিছুটা হলেও প্রভাব রাখবে।

প্রথম ঘোষণাপত্র 
আওয়ামী মুসলিম লীগের প্রথম ঘোষণাপত্রে হয়েছিল, “ইসলামের দৃষ্টিতে আল্লাহ্ কেবল মুসলমানের নয়, জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সমগ্র মানবের। মানবতার চূড়ান্ত মুক্তিসংগ্রাম যাতে বিলম্বিত না হয়, সেজন্য জনতাকে তাহাদের সমস্ত ব্যক্তিগত এবং দলগত বিভেদ বিসর্জন দিয়া এককাতারে সমবেত হইতেই মুসলিম লীগ কর্মীসম্মেলন আবেদন জানাইতেছে।

১৯৪৯ সালের ২৩ ও ২৪ জুন ঢাকার স্বামীবাগস্থ বিখ্যাত রোজগার্ডেনে অনুষ্ঠিত মুসলিম লীগ কর্মীসম্মেলন থেকে “আওয়ামী মুসলিম লীগ” নামে একটি দল গঠনের ঘোষণা দিয়ে এই আহবান জানানো হয়। উপস্থিত তিন শতাধিক কর্মীসমর্থক অকুণ্ঠ সমর্থন ব্যক্ত করে নতুন দল গঠনের সিদ্ধান্তকে করতালির মাধ্যমে স্বাগত জানায়। সারা পাকিস্তানভিত্তিক একটি কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক কাঠামো গঠনের আগাম চিন্তা-ভাবনার অংশ হিসাবে প্রথমে পূর্বপাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ এবং ১৯৫০ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী লীগ গঠন করা হয়। সোহরাওয়ার্দী সভাপতি ও অবাঙালি মাহমুদুল হক ওসমানী সাধারণ সম্পাদক হন। পশ্চিম পাকিস্তান আওয়ামী লীগ নামে সংগঠন ছিলো।১৯৪৯ সালের ৯ জুন ঢাকায় এসে তাঁর বেশ কিছু ভক্তানুসারীসহ দেশবিভাগপূর্ব আসাম প্রাদেশিক মুসলিম লীগের সভাপতি মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর সঙ্গে শলাপরামর্শ করেন। চারদিনের মাথায় ভাসানীকে আহবায়ক ও ইয়ার মোহাম্মদ খানকে সদস্যসচিব করে মুসলিম লীগ কর্মী সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়। এরপর রোজগার্ডেন থেকে পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক আওয়ামী মুসলিম লীগের নাম প্রচারিত হবার পর সভাপতি হিসাবে মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর নাম ঘোষণা করেন আতাউর রহমান খান। মওলানা ভাসানী সহ-সভাপতি পদে আতাউর রহমান খান, সাখাওয়াত হোসেন, আলী আহম্মদ খান, আলী আমজাদ খান, আব্দুস সালাম খান, সাধারণ সম্পাদক পদে শামসুল হক ও যুগ্মসম্পাদক শেখ মুজিবুর রহমান, খন্দকার মোশতাক আহমেদ, সহ যুগ্মসম্পাদক পদে একে রফিকুল হোসেন এবং কোষাধ্যক্ষ পদে ইয়ার মোহাম্মদ খানের নাম ঘোষণা করেন। এরপর শামসুল হক জানান, সভাপতি মহোদয় ৪০ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির বাদবাকী পদে মনোনীত করে তা ঘোষণা করবেন।

আওয়ামী মুসলিম লীগের জন্য শুধুমাত্র সদস্যদের একটি তালিকা চূড়ান্তকরণ হলেও তা আলোর মুখ দেখেনি। এমনকি অফিস পরিচালনার জন্য একটি দফতর সম্পাদকের পদও তৈরি করা সম্ভব হয়নি। মওলানা ভাসানী ও শামসুল হকের আগেই শেখ মুজিব ১৯৫০ সালের ১ জানুয়ারি কারামুক্ত হয়ে ৯০ নম্বর নবাবপুরস্থ বাড়ির একটি কক্ষে দু’টো চেয়ার, দু’টো টুল ও একটি টেবিল নিয়ে অফিস খুলে বসেন। তখনও শেখ মুজিব ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক। 

মোহাম্মদুল্লাহ নামের এক তরুণ উকিল স্বেচ্ছায় কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করলে তাকে দপ্তরের কাজে বসিয়ে দেন শেখ মুজিব। ১৯৫৩ সালের প্রথম কাউন্সিলে শেখ মুজিব সাধারণ সম্পাদক হন। মোহামুদুল্লাকে করা হয় দপ্তর সম্পাদক। ১৯৭২ সাল পর্যন্ত মোহামুদুল্লাহ এই পদে ছিলেন। পরে স্পিকার, রাষ্ট্রপতি করা হলেও শেখ মুজিব হত্যার পর খুনি মোশতাকের উপরাষ্ট্রপতি এবং বিএনপিতে যোগ দিয়ে বিচারপতি সাত্তারেরও দু’দিনের জন্য উপরাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন। প্রতিষ্ঠাতা সহ-সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন, আলী আমজাদ খান ও সহ যুগ্মসম্পাদক একে রফিকুল হোসেন ১৯৪৯ সালের ১১ অক্টোবর কর্মসূচি পালনকালে মওলানা ভাসানী ও শামসুল হক গ্রেফতার হবার পর আতঙ্কিত হয়ে পত্রিকায় বিবৃতি দিয়ে আওয়ামী মুসলিম লীগের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেন। শেখ মুজিবের গ্রেফতারের পর অন্যতম যুগ্মসম্পাদক খন্দকার মোশতাক দলের থেকে দূরে সরে যান। ফলে ১৯৫৩ সালের প্রথম কাউন্সিলেই কমিটি থেকে বাদ পড়েন তিনি। ১৯৫৪ সালের মনোনয়ন না পেয়ে মোশতাক স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে দাউদকান্দি থেকে জয়ী হয়ে আওয়ামী লীগে যোগ দেন। বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে শেরে বাংলার যুক্তফ্রন্টে থাকার কারণে বা শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বহিষ্কার হন মোশতাক। ১৯৫৫ সালে "মুসলিম" শব্দ রদ হলে আরেক বহিষ্কৃত সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম খানের সঙ্গে এক হয়ে মোশতাক আওয়ামী মুসলিম লীগ নামেই একটি দলের টিকিয়ে রাখার ব্যর্থ চেষ্টা করেন।
 
যুগ্ম সম্পাদকের পদ বিলুপ্ত : 
আওয়ামী লীগের প্রথম কাউন্সিলেই যুগ্মসম্পাদকের পদ বিলুপ্ত করা হয়। বঙ্গবন্ধু হত্যাত্তোর এই পদ পুনরায় সৃষ্টি করা হয়। ১৯৫৩ সালের কাউন্সিলে সাংগঠনিক সম্পাদক, প্রচার সম্পাদক ও শ্রম সম্পাদক এবং সাংস্কৃতিক সম্পাদকের পদ সৃষ্টি করা হয়। পদগুলোতে যথাক্রমে নির্বাচিত হন কোরবান আলী, আব্দুর রহমান, আব্দুস সামাদ আজাদ ও তাজউদ্দীন আহমেদ। ১৯৬৬ সালে শেখ মুজিব দলের সভাপতি হলে এই তাজউদ্দীন আহমেদই সাধারণ সম্পাদক হন। 

লেখক : সিনিয়র সাংবাদিক, কলামিস্ট ও ইতিহাস গবেষক।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর