শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৬ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০

চট্টগ্রামের লক্ষ্য পাঁচে পাঁচ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

চট্টগ্রামের লক্ষ্য পাঁচে পাঁচ

পাঁচ দলের বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপে একমাত্র অপরাজিত দল চট্টগ্রাম। টানা চার জয়ে মোহাম্মদ মিথুন, লিটন দাস, সৌম্য সরকার, মুস্তাফিজুর রহমান, শরীফুল ইসলামদের চট্টগ্রামের কোয়ালিফাইং রাউন্ড প্রায় নিশ্চিত। আজ মুশফিকুর রহিম, ইয়াসির আলীদের ঢাকাকে হারালেই কোয়ালিফাইং রাউন্ড খেলবে সবার আগে। বিপরীতে শেষ চারের আশা টিকিয়ে রাখতে জয়ের বিকল্প নেই মুশফিকদের। দুপুর দেড়টায় জিততেই হবে ঢাকাকে। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় মুখোমুখি হবে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, সাকিব আল হাসানের খুলনা ও নাজমুল হোসেন শান্ত, মোহাম্মদ আশরাফুলদের রাজশাহী। কোয়ালিফাই রাউন্ড খেলতে ঢাকার মতো রাজশাহীকেও জিততে হবে। অন্যদিকে রাজশাহীর বিপক্ষে জিতলে কোয়ালিফাইং রাউন্ড নিশ্চিত হবে খুলনার।

আজ দুটি ম্যাচ। ম্যাচ দুটি শুরুর আগে ৪ ম্যাচে শতভাগ জয়ে ৮ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলে সবার ওপরে চট্টগ্রাম। ৫ ম্যাচে ৩ জয়ে দুইয়ে খুলনা, দুটি করে জয় রাজশাহী ও ঢাকার এবং একটি জয় তামিম ইকবালের বরিশালের।

চট্টগ্রামের প্রতিপক্ষ ঢাকা গত দুই ম্যাচে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করেছে। মিথুন বাহিনী নিজেদের শেষ ম্যাচে ১ রানের ঘামঝড়ানো জয় পায় রাজশাহীর বিপক্ষে। টানা তিন ম্যাচ হেরে আত্মবিশ্বাসের তলানিতে চলে এসেছিলেন মুশফিকরা। মুশফিকের নেতৃত্বে ভালো খেলতে পারছিল না তারুণ্যনির্ভর দলটি। চার নম্বর ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ায় ঢাকা। বরিশালকে ৭ উইকেটে হারায় মুশফিক ও ইয়াসিরের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে। পরের ম্যাচে ২৫ রানের জয় পায় রাজশাহীর বিপক্ষে। আজ টানা দুই জয়ের আত্মবিশ্বাস নিয়ে নামবে দুরন্ত ফর্মে থাকা চট্টগ্রামের বিপক্ষে। দুই দলের প্রথম লড়াইয়ে ঢাকাকে গুঁড়িয়ে দিয়েছিল চট্টগ্রাম। হারিয়েছিল ৯ উইকেটের আকাশসম ব্যবধানে। প্রথমে ব্যাট করে মাত্র ৮৮ রান করেছিল মুশফিক বাহিনী। সর্বোচ্চ ৪০ রান করেছিলেন মোহাম্মদ নাঈম। মুশফিক, ইয়াসির, নাইমদের মুখোমুখি হতে হবে ছন্দে থাকা মুস্তাফিজ, শরীফুলদের সুইং ও গতির বিপক্ষে। টুর্নামেন্টে মুস্তাফিজের উইকেট ১২টি, শরীফুলের ৭টি। অবশ্য ঢাকার বোলারদের আবার পাল্টা আঘাত সইতে হবে লিটন, সৌম্যদের আগ্রাসী ব্যাটিংয়ের। সব মিলিয়ে ম্যাচটি বেশ উপভোগ্যই হবে নিশ্চিত করে বলা যায়।

সন্ধ্যার ম্যাচে সাকিব, মাহমুদুল্লাহ, ইমরুলদের প্রতিপক্ষ নাজমুল শান্ত, আশরাফুল, রনি তালুকদার, ফজলে রাব্বিরা। কোয়ালিফাইং খেলতে দুই দলকেই জিততে হবে। তবে তিন জয়ে অপেক্ষাকৃত সুবিধাজনক অবস্থানে খুলনা। দলটির সেরা তারকা সাকিব ছন্দে নেই। অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহও নেই ছন্দে। তাই দলটিকে লড়তে হচ্ছে প্রতিপক্ষ দলগুলোর বিপক্ষে। গত ম্যাচে প্রথমবারের মতো খেলতে নেমে জাকির ৬৩ রান করেন। রাজশাহীর তারকা ক্রিকেটাররাও ঠিক ফর্মে নেই। নাজমুল শান্ত প্রথম ম্যাচে হাফসেঞ্চুরি করেন। গত ম্যাচে হাফসেঞ্চুরি করেন ফজলে রাব্বি। দুই দলের প্রথম লড়াইয়ে জিতেছিল রাজশাহী ৬ উইকেটে। খুলনার সংগ্রহ ছিল ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৪৬ রান। শান্তের ৫৫ ও আশরাফুলের অপরাজিত ২৫ রানে ভর করে ১৬ বল হাতে রেখে জিতে যায় রাজশাহী।

টুর্নামেন্টে দারুণ ফর্মে চট্টগ্রামের ওপেনার লিটন। দুটি হাফসেঞ্চুরিতে তার রান ৪ ম্যাচে ২০০। দুইয়ে থাকা তামিমের রান ৫ ম্যাচে ১৮৭। ইয়াসির ৪ ম্যাচে ১৪১, মুশফিক ৫ ম্যাচে ১৩৮ রান। ৪ ম্যাচে ১২ উইকেট নিয়ে দারুণ ছন্দে রয়েছেন মুস্তাফিজ। ১০ উইকেট খুলনার শহীদুলের। ৯টি করে উইকেট কামরুল ইসলাম রাব্বি ও মুকিদুলের।

 


আপনার মন্তব্য