Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ১৪ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৩ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:২৪
স্মরণ
নাচলের রানী ইলা মিত্র
নাচলের রানী ইলা মিত্র

তেভাগা আন্দোলনের বিপ্লবী নেত্রী ইলা মিত্রের মৃত্যুবার্ষিকী ছিল গতকাল (১৩ অক্টোবর)। দেশ মাতৃকার টানে ব্রিটিশ সামাজ্যবাদ, আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধে শাসন থেকে মুক্ত করতে যেসব বিপ্লবী তাদের জীবনবাজি রেখে লড়াই-সংগ্রাম করেছেন, নারী ও দরিদ্র অসহায় কৃষকদের অধিকার আদায়ের আন্দোলন-সংগ্রামের নেতৃত্ব দিয়েছেন তাদের অন্যতম নাচোলের রানী খ্যাত ইলা মিত্র। তাকে নিয়ে লিখেছেন—মেহেরুন্নেসা

নাচোলের সাঁওতাল বিদ্রোহের রানী ইলা মিত্র। তার জন্ম ১৯২৫ সালের ১৮ অক্টোবর, কলকাতায়। জন্মের পর তার নাম রাখা হয় ইলা সেন। তাদের আদিনিবাস ছিল ঝিনাইদহের বাগুটিয়া গ্রামে। তার বাবা নগেন্দ্রনাথ সেন  ছিলেন ব্রিটিশ সরকারের অধীন বাংলার অ্যাকাউনটেন্ট জেনারেল। বাবার চাকরির সুবাদে তারা কলকাতায় থাকতেন এবং সেখানেই বেড়ে উঠেন। কলকাতার বেথুন স্কুল ও কলেজের পড়াশোনা শেষে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন।

কৈশোরে তিনি খেলাধুলায় পারদর্শী ছিলেন। ১৯৩৫ থেকে ১৯৩৮ সাল পর্যন্ত তিনি ছিলেন রাজ্য জুনিয়র অ্যাথলেটিক চ্যাম্পিয়ন। সাঁতার, বাস্কেটবল ও ব্যাডমিন্টন খেলায়ও তিনি ছিলেন পারদর্শী। তিনিই প্রথম বাঙালি মেয়ে হিসেবে  ১৯৪০ সালে জাপানে অনুষ্ঠিতব্য অলিম্পিকের জন্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। তবে বিশ্বযুদ্ধের জন্য অলিম্পিক বাতিল হয়ে যাওয়ায় তার অংশগ্রহণ করা হয়নি। খেলাধুলা ছাড়াও গান, অভিনয়সহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিলেন তিনি।

ইলা মিত্র যখন বেথুন কলেজে বাংলা সাহিত্যে বিএ সম্মানের ছাত্রী তখন থেকেই রাজনীতির সঙ্গে তার পরিচয়। নারী আন্দোলনের মধ্য দিয়ে তার রাজনীতিতে প্রবেশ। ১৯৪৩ সালে তিনি কলকাতা মহিলা সমিতির সদস্য হন। পরবর্তীতে তিনি ভারতীয় কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য পদ লাভ করেন। একজন সাধারণ কর্মী হয়ে তিনি দলের নানা কর্মতত্পরতায় নিজেকে যুক্ত করেন।

১৯৪৫ সালে ইলা মিত্রের বিয়ে হয় কমিউনিস্ট রমেন্দ্র মিত্রের সঙ্গে। রমেন্দ্র মিত্র মালদহের নবাবগঞ্জ থানার রামচন্দ্রপুর হাটের জমিদার মহিমচন্দ্র ও বিশ্বমায়া মিত্রের কনিষ্ঠ পুত্র। জমিদার পুত্রবধূ ইলা মিত্র কলকাতা ছেড়ে চলে এলেন শ্বশুরবাড়ি রামচন্দ্রপুর হাটে। হিন্দু রক্ষণশীল জমিদার পরিবারের নিয়মানুসারে অন্দরমহলেই থাকতেন ইলা মিত্র। তখনো তিনি মা হননি তাই হাতে অফুরন্ত অবসর। অতঃপর রমেন্দ্র মিত্রের বন্ধু আলতাফ মিয়ার পৃষ্ঠপোষকতায় বাড়ির কাছেই কৃষ্ণগোবিন্দপুর হাটে মেয়েদের জন্য চালু হলো এবং সেখানেই শিক্ষকতা শুরু করলেন ইলা মিত্র। ইলা মিত্রের আন্তরিক চেষ্টায় কিছু দিনের মধ্যে ওই স্কুলের শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়ে ৫০-এ দাঁড়ায়।  সেই থেকে শুরু হলো গৃহের বাইরে রাজনৈতিক কর্মতত্পরতা। এ সময়ে তিনি স্বামী রমেন্দ্র মিত্রের কাছে জমিদার ও জোতদারের হাতে বাংলার চাষিদের নিদারুণ বঞ্চনা শোষণের কাহিনী শোনেন। জেনে নেন শোষণের বিরুদ্ধে তাদের আন্দোলন ও প্রচেষ্টার কথা। কমিউনিস্ট রামেন্দ্র মিত্র এর আগেই জমিদারি প্রথার বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য নিজের পারিবারিক ঐতিহ্য ও মোহ ত্যাগ করে কৃষকের পাশে এসে দাঁড়িছেন। তার স্বামীই তাকে আন্দোলনে যোগ দিতে উৎসাহিত করেন। ১৯৪৬ থেকে ১৯৫০ সাল পর্যন্ত রাজশাহীর নবাবগঞ্জ অঞ্চলে তেভাগা আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন ইলা মিত্র। বাংলার গ্রামীণ সমাজে ব্রিটিশ শাসনের পূর্ব পর্যন্ত ভূমির মালিক ছিলেন চাষিরা। মোগল আমল পর্যন্ত তারা এক তৃতীয়াংশ বা কখনো কখনো তার চেয়েও কম ফসল খাজনা হিসেবে জমিদার বা স্থানীয় শাসনকর্তার মাধ্যমে রাষ্ট্রকে প্রদান করতেন। ব্রিটিশ শাসনামলে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত প্রথা প্রচলনের ফলে চাষিদের জমির মালিকানা চলে যায় জমিদারদের হাতে। জমিদাররা জমির পরিমাণ ও উর্বরতা অনুযায়ী ব্রিটিশদের খাজনা দিত। জমিদারদের সঙ্গে ফসল উৎপাদনের কোনো সম্পর্ক ছিল না। এ সময় জমিদার ও কৃষকদের মাঝখানে জোতদার নামে মধ্যস্বত্বভোগী এক শ্রেণির আবির্ভাব ঘটে। এরা পত্তনি প্রথার মাধ্যমে জমিদারদের কাছ থেকে জমি পত্তন বা ইজারা নিত? জোতদারি ও জমিদারি প্রথা ক্ষুদ্র কৃষকদের শোষণের সুযোগ করে দেয়। খাজনা আদায়ের জন্য জোতদাররা এদের দাসের মতো ব্যবহার করেন। সেই অত্যাচার থেকে রক্ষা পেতে ১৯৩৬ সালে গঠিত হয় ‘সর্বভারতীয় কৃষক সমিতি’।

১৯৪০ সালে ফজলুল হক মন্ত্রিসভার উদ্যোগে বাংলার ভূমি ব্যবস্থা সংস্কারের প্রস্তাব দেয় ‘ফাউন্ড কমিশন’। এই কমিশনের সুপারিশ ছিল জমিদারি প্রথার উচ্ছেদ করে চাষিদের সরাসরি সরকারের প্রজা করা এবং তাদের উৎপাদিত ফসলের তিনভাগের দুইভাগের মালিকানা প্রদান করা? এই সুপারিশ বাস্তবায়নের আন্দোলনের নাম তেভাগা আন্দোলন। চল্লিশের দশকে এই আন্দোলনে ইলা মিত্র নেতৃত্ব দেন।

১৯৪৬ সালে হিন্দু মুসলিম দাঙ্গা শুরু হলে কমিউনিস্ট পার্টি দাঙ্গা বিধ্বস্ত এলাকায় সেবা ও পুনর্বাসনের কাজ করতে এগিয়ে আসে। এ সময় ইলা মিত্র নোয়াখালীর দাঙ্গা বিধ্বস্ত গ্রাম হাসনাবাদে পুনর্বাসনের কাজে চলে যান। তখন নোয়াখালীতে মহাত্মা গান্ধী সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার বিরুদ্ধে জনগণকে সংগঠিত করছিলেন। ইলা মিত্রের এই সাহসী পদক্ষেপ সে সময় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে? ১৯৪৭ সালের দেশ বিভাগের পর মিত্র পরিবারের জমিদারি অঞ্চল রামচন্দ্রপুর হাট পূর্ব পাকিস্তানের রাজশাহীর অন্তর্ভুক্ত হয়। পাকিস্তান হওয়ার পরও তেভাগা আন্দোলন অব্যাহত থাকে। পূর্ব-পাকিস্তানের অনেক স্থানে কমিউনিস্ট পার্টির নেতৃত্বে সশস্ত্র আন্দোলন হয়। ইলা মিত্র ও রমেন্দ্র মিত্রও নাচোলের চণ্ডীপুর গ্রামে আত্মগোপন করেন। মুসলীম লীগ সরকারের দমননীতি ও শহরের মধ্যবিত্ত নেতাদের আপসমুখিতার কারণে যে আন্দোলন স্তিমিত হয়ে পড়েছিল, কমরেড ইলা মিত্র ও রমেন্দ্র মিত্রের পৃথক নেতৃত্বে নাচোল ও তার আশপাশের অঞ্চলে শুরু হয় এক নতুন আন্দোলনের। ১৯৪৮ সালে ইলা মিত্র ছিলেন অন্তঃসত্ত্বা। সন্তান প্রসবের জন্য তিনি গোপনে কলকাতায় যান। পুত্র সন্তান জন্মের মাসখানেকের মধ্যে ফিরে আসেন নাচোলে। ১৯৪৯ সালে তাদের নেতৃত্বে হাজার হাজার ভূমিহীন কৃষক সংগঠিত হয়। সবাই মিলে জোতদার ও মহাজনদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ালে আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ে জোতদার, মহাজনদের দল।

১৯৫০ সালের ৭ জানুয়ারি রহনপুর থেকে গ্রেফতার হন ইলা মিত্র। তার ১ দিন পর নাচোলে নিয়ে যাওয়া হয়। যাত্রাপথে পুলিশ ইলা মিত্রকে নির্মম নির্যাতন করে। একটা সেলের ভিতরে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল তাকে। চলে নির্মম অকথ্য অমানুষিক নির্যাতন। এ সম্পর্কে ইলা মিত্রের জবানবন্দি এ রকম—‘সেলের মধ্যে আমার দেহের এমন কোনো জায়গা নেই যে অমানুষিক নির্যাতন করা হয়নি। ১৯৫০ সালের ১০ জানুয়ারি যখন জ্ঞান ফিরে এলো তখন আমি দেখলাম আমার দেহ থেকে রক্ত ঝরছে। রক্তে কাপড়-চোপড় ভিজে গেছে। এরপর আমাকে নবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠাল। ১৯৫০ সালের ২১ জানুয়ারি নবাবগঞ্জ থেকে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে এসে সেখানকার জেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবুও আমি পুলিশকে কিছুই বলতে রাজি হইনি।’

১৯৫৩ সালে ইলা মিত্রকে ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থানান্তর করা হয়। ১৯৫২ সালের পর ঢাকা ছিল উত্তপ্ত। কমরেড ইলা মিত্র ও তার সহযোদ্ধারা তখন ছাত্র জনতার চোখে অত্যন্ত সম্মানের পাত্র। সাধারণ মানুষের পক্ষ থেকে তাকে ছেড়ে দেওয়ার দাবি ওঠে। ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্ট সরকারের মুখ্যমন্ত্রী শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হকের নির্দেশে ইলা মিত্রকে প্যারোলে মুক্তি দেওয়া হয়। তিনি কলকাতায় চলে যান। সুস্থ হয়ে তিনি কলকাতা সিটি কলেজে বাংলা সাহিত্যের অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৮৯ সালে তিনি শিক্ষকতা থেকে অবসর নেন। শিক্ষকতার পাশাপাশি ইলা মিত্র পশ্চিমবঙ্গের সব গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও সংগঠনের জন্য কাজ করেছেন। তিনি পশ্চিমবঙ্গ কমিউনিস্ট পার্টির জেলা ও প্রাদেশিক কমিটির সদস্য ছিলেন। ১৯৬২ থেকে ১৯৭৮ সাল পর্যন্ত তিনি চারবার মানিকতলা নির্বাচনী এলাকা থেকে বিধান সভার সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৬৭ ও ১৯৭২ সালে বিধান সভায় কমিউনিস্ট ডেপুটি লিডার ছিলেন। ১৯৬২ থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত শিক্ষক প্রতিনিধি হিসেবে তিনি পাঁচবার কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য নির্বাচিত হন। পশ্চিমবঙ্গেও বিভিন্ন আন্দোলনের জন্য তিনি ১৯৬২, ১৯৭০, ১৯৭১ ও ১৯৭২ সালে কারাবরণ করেছেন। ইলা মিত্র ভারতের মহিলা ফেডারেশনের জাতীয় পরিষদ সদস্য, পশ্চিমবঙ্গ মহিলা সমিতির সহ-সভানেত্রী এবং ভারত ও সোভিয়েত সাংস্কৃতিক সমিতির সহ-সভানেত্রী ছিলেন। বাংলাদেশের মানুষের জন্য তার ছিল বিশেষ আত্মিক সম্পর্ক। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি বাংলাদেশের শরণার্থীদের জন্য অক্লান্তভাবে সেবা দিয়েছেন।

ইলা মিত্র কলকাতায় স্বামী রমেন্দ্র মিত্র, একমাত্র পুত্র রণেন মিত্র, পুত্রবধূ ও নাতি ঋতেনকে নিয়ে জীবনের শেষ সময় কাটিয়েছেন। উপমহাদেশের নারী জাগরণ ও কৃষক আন্দোলনের এই কিংবদন্তি নেত্রী ৭৭ বছর বয়সে ২০০২ সালের ১৩ অক্টোবর দেহ ত্যাগ করেন। মহীয়সী ইলা মিত্র বেশ কয়েকটি রুশগ্রন্থ অনুবাদ করেন। এগুলো হচ্ছে ‘জেলখানার চিঠি’, ‘হিরোশিমার মেয়ে’, ‘মনে প্রাণে’, ‘লেনিনের জীবনী’ ও ‘রাশিয়ার ছোট গল্প’। হিরোশিমার মেয়ে বইটির জন্য তিনি ‘সোভিয়েত ল্যান্ড নেহেরু’ পুরস্কার লাভ করেন। অ্যাথলেটিক অবদানের জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পুরস্কার লাভ করেন। এ ছাড়া ভারত সরকার তাকে স্বাধীনতা সংগ্রামী হিসেবে স্বতন্ত্র সৈনিক সম্মানে তাম্রপত্র পদকে ভূষিত করেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow