Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:১৫
সমস্যার শেষ নেই জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ে
সুখে-দুঃখে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়
শরিফুল ইসলাম সীমান্ত, জাবি
সমস্যার শেষ নেই জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ে

দেশের একমাত্র আবাসিক ক্যাম্পাস হিসেবে ১৯৭১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়। বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের রাজধানী এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি খ্যাত এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম দেশের সীমানা পেরিয়ে ছড়িয়ে পড়েছে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও।

কিন্তু বর্তমানে নানামুখী সমস্যা আর সংকটের আবর্তে ঘুরপাক খাচ্ছে স্বনামধন্য এই বিশ্ববিদ্যালয়।

তীব্র আসন সংকট : নানা সংকটের মধ্যে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) আবাসিক হলে তীব্র আকার ধারণ করেছে আসন সংকট। দিনকে দিন ক্রমেই এ সংকট তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে। ফলে চরম মাত্রায় ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা। জাবিতে বর্তমানে ছাত্র ও ছাত্রীদের জন্য সাতটি করে মোট ১৪টি হল রয়েছে। নির্মাণকাজ চলছে আরও নতুন দুটি হলের, প্রয়োজনের তুলনায় যা যথেষ্ট নয়। ১৯৭৩ সালের প্রণীত অধ্যাদেশ অনুযায়ী, দেশে একমাত্র আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে জাবি। জাবি অধ্যাদেশের ৪০ ধারায় বলা হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি শিক্ষার্থী আবাসিক হলে অবস্থান করবেন। বিশেষ কোনো কারণ ছাড়া এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেটের বিশেষ অনুমোদন ছাড়া কোনো শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসের বাইরে থাকতে পারবেন না। সে অনুযায়ী প্রতিটি শিক্ষার্থীর জন্য আবাসিক হলে একটি আলাদা আসন থাকার কথা থাকলেও তা দিতে ব্যর্থ হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। সরেজমিন বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোতে ঘুরে দেখা যায়, ২০১৪-১৫ বর্ষে ভর্তি হওয়া ৪৪তম আবর্তনের (দ্বিতীয় বর্ষ) বেশির ভাগ শিক্ষার্থী এখনো মিনি গণরুমে অবস্থান করছেন। এরই মধ্যে ২০১৫-১৬ বর্ষের ৪৫তম আবর্তনের (প্রথম বর্ষ) প্রায় দুই হাজার শিক্ষার্থীর ক্লাস শুরু হওয়ায় তারাও গণরুমে অবস্থান করছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের মীর মশাররফ হোসেন হলে খোঁজ নিয়ে দেখ যায়, একজনের কক্ষে দুজন, দুজনের কক্ষে চারজন করে থাকতে হচ্ছে। এ ছাড়া গণরুমের একটিমাত্র কক্ষে একসঙ্গে গাদাগাদি করে অবস্থান করছেন দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মো. আবুল হোসেনকে একাধিকবার মুঠোফোনে কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

অপূর্ণাঙ্গ কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার : সাম্প্রতিক বছরগুলোতে জাবির সর্বত্র কম-বেশি উন্নয়নের ছোঁয়া লাগলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অবহেলায় এখনো পর্যন্ত অপূর্ণাঙ্গ রয়েছে এর কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার। শিক্ষার্থীরা প্রতিনিয়ত আসন ও বই সংকটসহ বিভিন্ন সমস্যায় ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ গ্রন্থাগার নির্মাণের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ১৯৭০ সালে গ্রন্থাগারটির প্রাথমিক নির্মাণকাজ শুরু হয়। ১৯৮৫ সালে শুরু হয় মূল ভবন নির্মাণের কাজ। এক লাখের মধ্যে ৫৫ হাজার বর্গফুটের কাজ সম্পন্ন হলেও বাকি ৪৫ হাজার বর্গফুটের কাজ আজও শেষ হয়নি। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ১৪ হাজার শিক্ষার্থীর জন্য এখানে আসন রয়েছে মাত্র ৪৮০টি। তীব্র আসন সংকটের কারণে প্রায় প্রতিদিনই শিক্ষার্থীদের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটছে। কাকডাকা ভোরে গ্রন্থাগারের একটি আসনের জন্য শিক্ষার্থীদের দীর্ঘ লাইন কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাদদেশ পর্যন্ত গিয়ে ঠেকে। গ্রন্থাগারে পর্যাপ্ত ফ্যান না থাকায় গরমে কষ্ট করতে হয় শিক্ষার্থীদের। এ ছাড়া শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাও নেই এখানে। বিদ্যুৎ চলে গেলে বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে যে একটি আইপিএস আছে সেটিও বিকল। রয়েছে দক্ষ জনবলের অভাব। ১৯৯০ সালের পর কোনো নিয়োগ না দেওয়ায় দীর্ঘদিন ধরে ফাঁকা রয়েছে প্রধান লাইব্রেরিয়ানের পদটি। গ্রন্থাগারের জন্য নেই স্থায়ী কোনো ইলেকট্রিশিয়ান। গ্রন্থাগারের শৌচাগারের অবস্থাও শোচনীয়। সব মিলিয়ে ভবনে যে কয়টি শৌচাগার রয়েছে এর বেশির ভাগই ব্যবহারের অনুপযোগী। এ ছাড়া অপরিসর একটি কক্ষকে নামাজ ঘর হিসেবে ব্যবহার করা হয়, যেখানে কয়েকটি জামায়াতে ছাত্রদের নামাজ আদায় করতে হচ্ছে। ছাত্রীদের জন্য আলাদা নামাজ পড়ার কোনো কক্ষ নেই। গ্রন্থাগারে সিলেবাসভিত্তিক বইয়ের সংকটও প্রকট। ফলে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। গ্রন্থাগারের পরিচালনা যে কার্যক্রম সেটিও চলছে অ্যানালগ পদ্ধতিতে। বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগারের কোনো ওয়েবসাইট না থাকায় অনলাইনে বই পড়ারও কোনো সুযোগ নেই।

সমস্যাজর্জর আবাসিক হল : নানা সমস্যায় জর্জরিত জাবির আবাসিক হলগুলো। প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা না থাকার পাশাপাশি হল প্রশাসনের চরম অব্যবস্থাপনায় প্রতিনিয়ত ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। আবাসিক হলে শিক্ষার্থীদের আসন সংকট, সেলুন না থাকা, পর্যাপ্ত ইন্টারনেট সুবিধা না থাকা, হলের পাশে ঝোপঝাড় থাকায় মশার উপদ্রব, পানি সংকট, ড্রেন নোংরা, অপরিষ্কার শৌচাগার ও বাথরুম, হল প্রভোস্ট, আবাসিক শিক্ষক ও ওয়ার্ডেনদের হলে অনুপস্থিতি, হলের সিকবয়দের দায়িত্বে অবহেলাসহ নানা সমস্যা বিরাজ করছে হলগুলোতে। বেশ কয়েকটি হলের ক্যান্টিনের রান্নাঘর ঘুরে দেখা গেল, অত্যন্ত অস্বাস্থ্যকর ও অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে চলছে রান্নার কাজ। শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, ক্যান্টিনগুলোতে নিম্নমানের খাবার সরবরাহ করা হলেও শিক্ষার্থীদের বেশ চড়া দাম দিয়েই এসব খাবার খেতে হয়।

পরিবহনে অব্যবস্থাপনা : পরিবহন খাতের নানা অব্যবস্থাপনায় ঢাকা ও ক্যাম্পাসের পার্শ্ববর্তী এলাকায় যাতায়াতের ক্ষেত্রে প্রতিনিয়ত দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর থেকে প্রতি বছরই শিক্ষক-শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়লেও সে অনুপাতে বাড়েনি পরিবহন। দেশের একমাত্র আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে পরিচিত জাবিতে আবাসন সংকটের কারণে বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থী রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশ এলাকায় বসবাস করেন। এ ছাড়া বহু শিক্ষার্থী চাকরি ও টিউশনির জন্য এসব এলাকায় যাতায়াত করেন। এসব শিক্ষার্থীর জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ যে বাসের ব্যবস্থা করেছে তা প্রয়োজনের তুলনায় নগণ্য। কখনো কখনো একটি বাসে ধারণক্ষমতার দ্বিগুণ বা তিনগুণ শিক্ষার্থী যাতায়াত করেন। পরিবহন অফিসে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ১৪ হাজার শিক্ষক-শিক্ষার্থীর জন্য ছোট-বড় মিলিয়ে মোট ১৯টি বাস রয়েছে। এর মধ্যে ১১টি সচল আছে। বাকি আটটি বাস দীর্ঘদিন ধরে অচল। সচল ১১টির মধ্যে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত চারটি বাস শুধু শিক্ষকরা ব্যবহার করেন। এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের রয়েছে ১০টি মাইক্রোবাস। এর মধ্যে দুটি রয়েছে প্রক্টর কার্যালয়ের অধীনে। আর অকেজো রয়েছে একটি। বাকি সাতটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের কাজে ব্যবহূত হচ্ছে, যা চাহিদার তুলনায় নগণ্য। অন্যদিকে প্রাইভেটকার সাতটির মধ্যে উপ-উপাচার্য, কোষাধ্যক্ষ, রেজিস্ট্রার ও প্রকৌশল কার্যালয়ের জন্য একটি করে বরাদ্দ রয়েছে। অচল প্রাইভেটকার দুটি। এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪ হাজার শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীর জন্য রয়েছে মাত্র চারটি অ্যাম্বুলেন্স। এর মধ্যে আবার দুটি অচল।

ব্যাকডেটেড অফিসিয়াল ওয়েবসাইট : তথ্যপ্রযুক্তির উত্কর্ষের যুগে জাবির অফিসিয়াল ওয়েবসাইটটি এখনো ব্যাকডেটেড। বলা হয়ে থাকে, তথ্যই শক্তি। অথচ জাবির ওয়েবসাইটে পাওয়া যায় না প্রয়োজনীয় কোনো তথ্য। ফলে জাবির তথ্যসেবা চলছে নোটিস বোর্ড পদ্ধতিতে। ফলে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পড়তে হচ্ছে নানামুখী বিড়ম্বনায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটটির হোম পেজে ঢুকে দেখা যায় ডান পাশে লেখা ‘উপাচার্যের বাণী’। কিন্তু প্রবেশ করে দেখা যায়, সেখানে উপাচার্যের কোনো বাণী নেই। আছে উপাচার্যের ছবি ও যোগাযোগের ঠিকানা। তার নিচে লেখা অনুষদ ও বিভাগের তথ্য। কিন্তু সেখানে প্রবেশ করে দেখা যায়, কোনো বিভাগের তথ্যই দেওয়া নেই। জাবির ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজি (আইআইটি) বিভাগের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ও আইটি বিশেষজ্ঞ কে এম আক্কাছ আলী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘এই ওয়েবসাইট নিয়ে আমার অনেক অভিযোগ। একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটের অবস্থা এত খারাপ হতে পারে না। ’

এই পাতার আরো খবর
up-arrow