শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২১ জুন, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ জুন, ২০১৯ ০০:০৭

নোবেল জয়ী মুসলিম

তানিয়া তুষ্টি

নোবেল জয়ী মুসলিম
বিশ্বসেরা ব্যক্তিত্বরা অর্জন করেন নোবেল জয়ের সম্মান। মুসলিম নোবেল জয়ীদের তালিকা নেহায়েতই কম নয়। আজকের আয়োজনে উল্লেখযোগ্য কয়েকজন স্থান পেয়েছেন। এ ছাড়া গুরুত্বের সঙ্গে উল্লেখ করা যায় মিসরীয় রাজনীতিবিদ মোহাম্মেদ এল বারাদেই, মিসরীয় লেখক নাগিব মাহফুজ, পাকিস্তানি পদার্থবিজ্ঞানী আবদুস সালাম, মিসরীয় বিজ্ঞানী আহমেদ হাসানের কথা।

 

ইয়াসির আরাফাত

ফিলিস্তিন (নোবেল জয় ১৯৯৪)

১৯৯৪ সালে ঐতিহাসিক অসলো চুক্তি স্বাক্ষরের পর আইজাক রবিন, শিমন পেরেজ ও ফিলিস্তিনের অবিসংবাদিত নেতা ইয়াসির আরাফাত যৌথভাবে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন বা পিএলওর চেয়ারম্যান হিসেবে আরাফাত ইসরায়েলি দখলদারির বিরুদ্ধে সারা জীবন সংগ্রাম করেন। তিনি প্যালেস্টিনিয়ান অথরিটির প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করেন। জীবনের একটা দীর্ঘ সময় আরাফাত ধর্মনিরপেক্ষ ফাতাহ দলের নেতৃত্ব দেন। ১৯২৯ সালের ২৯ আগস্ট মিসরের কায়রোতে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। জীবনের শেষভাগে ইসরায়েলি সরকারের সঙ্গে কয়েক দফায় শান্তি আলোচনা করেন। প্যারিসের একটি হাসপাতালে ২০০৪ সালের ১১ নভেম্বর মারা যান ইয়াসির আরাফাত।

 

মালালা ইউসুফজাই

পাকিস্তান (নোবেল জয় ২০১৪)

১৭ বছর বয়সে নোবেল জয় করে সর্বকনিষ্ঠ হিসেবে বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দেন পাকিস্তানি মানবাধিকার কর্মী মালালা ইউসুফজাই। নারী ও শিশু অধিকার নিয়ে কাজ করার জন্য ২০১৪ সালে তাকে নোবেল পুরস্কারে ভূষিত করা হয়। পাকিস্তানে তিনি মূলত শিক্ষা নিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যান। মালালা ইউসুফজাই ১৯৯৭ সালের ১২ জুলাই উত্তর-পশ্চিম পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের সোয়াত জেলায় পাশতুন জনজাতির অন্তর্ভুক্ত এক সুন্নি মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ২০০৯ সালে মালালা বিবিসির জন্য ছদ্মনামে একটি ব্লগ লেখেন, যেখানে তিনি তালেবান শাসনের অধীনে তার জীবন ও সোয়াত উপত্যকায় মেয়েদের শিক্ষার ব্যাপারে তার মতামত ব্যক্ত করেন।

 

আনোয়ার আল সাদাত

মিসর (নোবেল জয় ১৯৭৮)

নোবেলজয়ী প্রথম মুসলিম মিসরের রাজনীতিবিদ আনোয়ার আল সাদাত। তিনি ১৯৭৮ সালে এ পুরস্কার জিতে নেন। তিনি ছিলেন মিসরের তৃতীয় রাষ্ট্রপতি। ১৯৭০ সালের ১৫ অক্টোবর থেকে ১৯৮১ সালের ৬ অক্টোবর নিহত হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনি এ দায়িত্বপালন করেছেন। রাষ্ট্রপতিত্বকালে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ধারা বিদায় দিয়ে বহুদলীয় প্রথার প্রবর্তন করেন এবং ইনফিতাহ নামক অর্থনৈতিক নীতি চালু করেন। ১৯৭৩ সালে মিসরের সিনাই উপদ্বীপ উদ্ধারের জন্য ইয়ম কিপুর যুদ্ধে তিনি মিসরের নেতৃত্ব দেন। এ কারণে মিসর ও আরব বিশ্বে তার জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পায়। এরপর তিনি ইসরায়েলের সঙ্গে আলোচনায় বসেন এবং মিসর-ইসরায়েল শান্তি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তির কারণে আনোয়ার সাদাত ও ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী মেনাখেম বেগিম শান্তিতে নোবেল পান।

 

ওরহান পামুক

তুরস্ক (নোবেল জয় ২০০৬)

‘মাই নেম ইজ রেড’ নামক বইয়ের জন্য জনপ্রিয়তার তুঙ্গে পৌঁছান তুর্কি লেখক ওরহান পামুক। ২৩টি ভাষায় অনূদিত বইটি ২০০৩ সালে জিতে নেয় বিশ্বের সবচেয়ে বেশি অর্থমূল্যের সাহিত্য পুরস্কার। বিশ্বের ৬০টির বেশি ভাষায় তার ১১ মিলিয়নের বেশি বই বিক্রি হয়েছে। আর কারণেই তিনি তুরস্কের সবচেয়ে প্রচারিত কথাসাহিত্যিক হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। উত্তরাধুনিক ও প্রাচুর্যপূর্ণ সাহিত্যের জন্য ২০০৬ সালে তাকে নোবেল পুরস্কার প্রদান করা হয়। সাহিত্যে পুরস্কার পাওয়া তিনি একমাত্র তুর্কি লেখক। পামুক ১৯৫২ সালে ইস্তাম্বুলের এক ধনী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭৪ সাল থেকে তিনি নিয়মিত লেখালেখি শুরু করেন। ১৯৯৫ সালে প্রকাশিত পামুকের আলোড়ন সৃষ্টিকারী ৫ম উপন্যাস ‘নতুন জীবন’ সবচেয়ে দ্রুত বিক্রি হওয়ার রেকর্ড সৃষ্টি করে। 

 

ড. মুহাম্মদ ইউনূস

বাংলাদেশ (নোবেল জয় ২০০৬)

বাংলাদেশের অর্থনীতিবিদ এবং গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও গ্রামীণ ব্যাংক যৌথভাবে ২০০৬ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পায়। তিনি ক্ষুদ্রঋণ ধারণার প্রবর্তক। ১৯৭৬ সালে ব্যাংক প্রতিষ্ঠার পর থেকে ৫.৩ মিলিয়ন ঋণগ্রহীতার মধ্যে ৫.১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ প্রদান করে। ঋণের টাকা ফেরত নিশ্চিত করার জন্য গ্রামীণ ব্যাংক ‘সংহতি দল’ পদ্ধতি ব্যবহার করে। একটি অনানুষ্ঠানিক ছোট দল একত্রে ঋণের জন্য আবেদন করে এবং এর সদস্যবৃন্দ একে অন্যের জামিনদার হিসেবে থাকে এবং একে অন্যের উন্নয়নে সাহায্য করে। তিনি একমাত্র ও প্রথম বাঙালি মুসলিম, যাকে শান্তির জন্য এ সম্মান প্রদান করা হয়। তিনি একমাত্র ও প্রথম বাংলাদেশি এবং তৃতীয় নোবেল পুরস্কার বিজয়ী বাঙালি। ১৯৪০ সালের ২৮ জুন চট্টগ্রামে তিনি জন্মগ্রহণ করেন।

 

শিরিন এবাদি

ইরান (নোবেল জয় ২০০৩)

ইরানের একজন আইনজীবী ও মানবাধিকার কর্মী শিরিন এবাদি। ২০০৩ সালে তিনি প্রথম মুসলিম নারী হিসেবে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। গণতন্ত্র ও মানবাধিকার, বিশেষত নারী, শিশু এবং শরণার্থী অধিকারের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ও অগ্রণী ভূমিকা পালনের জন্য শিরিন এবাদিকে নোবেল শান্তি পুরস্কারে ভূষিত করা হয়। নারীর জন্য শান্তি, ন্যায়বিচার ও সমতা উন্নয়নে তিনি কাজ করে চলেছেন। তিনি প্রথম ও একমাত্র ইরানি নারী হিসেবে পুরস্কারটি পান। পুরস্কারপ্রাপ্তির পর থেকে এবাদি বিভিন্ন দেশে বক্তৃতা ও শিক্ষা প্রদান করে অসংখ্য পুরস্কার জিতেছেন। তিনি ইরানের হামাদানে জন্মগ্রহণ করেন ১৯৭৪ সালের ২১ জুন। বর্তমানে তিনি ইংল্যান্ডে বসবাস করছেন।

 

তাওয়াক্কোল কারমান

ইয়েমেন (নোবেল জয় ২০১১)

একজন বিশিষ্ট আরবীয় বসন্তের অগ্রদূত নেত্রী তাওয়াক্কোল কারমান। তিনি প্রথম আরব নারী এবং একমাত্র প্রথম ইয়েমেনি, যাকে শান্তির জন্য ২০১১ সালে নোবেল পুরস্কার প্রদান করা হয়। তাওয়াক্কোল কারমান সাংবাদিক, রাজনীতিক এবং ইয়েমেনের আল ইসলাহ রাজনৈতিক দলের একজ প্রবীণ সদস্য। এ ছাড়া দীর্ঘদিন ধরে তিনি মানবাধিকার রক্ষাকর্মী হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন। কারমান ১৯৭৯ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি ইয়েমেনের মেখলাফ নামক স্থানে জন্মগ্রহণ করেন। ২০০৫ সালে সাংবাদিক হিসেবে কারমান ইয়েমেনে পরিচিত হয়ে ওঠেন। এ ছাড়া তিনি একটি মোবাইল ফোন সংবাদ সেবার প্রবক্তা ছিলেন। ২০০৭ সালে এই সেবার লাইসেন্স বাতিল হলে তিনি গণমাধ্যমের স্বাধীনতার পক্ষে আন্দোলন শুরু করেন। ২০০৭ সালের মে মাসে কারমান সাপ্তাহিকভাবে প্রতিবাদ সভার আয়োজন করেন। এক সময় এ প্রতিবাদের মাধ্যমে গণমাধ্যমের সংস্কারের দাবি ওঠে। তিনি ইয়েমেনীয় রাষ্ট্রপতি আলি আবদুল্লাহ সালেহর বিপক্ষে প্রবল প্রতিবাদী হয়ে ওঠেন। কারমান আন্তর্জাতিকাভাবে পরিচিত হয়ে ওঠেন ২০১১ সালের ইয়েমেন বিদ্রোহের সময়। তখন তাকে ‘লৌহ মানবী’ ও ‘বিদ্রোহের মাতা’ বলে অভিহিত করে ইয়েমেনের জনগণ।

 

নাগিব মাহফুজ

মিসর (নোবেল জয় ১৯৮৮)

আরবি ভাষার কিংবদন্তি ঔপন্যাসিক মিসরের নাগিব মাহফুজ। ১৯১১ সালের ১১ ডিসেম্বর কায়রোর আল-জামালিয়া গ্রামে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। ১৭ বছর বয়স থেকে তিনি লেখালেখি শুরু করেন। ১৯৩৯ সালে তার প্রথম উপন্যাস প্রকাশিত হয়। জীবদ্দশায় ৩০টি উপন্যাস লিখে ১৯৫৫ থেকে ১৯৫৭ সালের মধ্যে প্রকাশিত কায়রো ট্রিলজি তাকে আরব সাহিত্যের এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যায়। এতে তিনি ইংরেজ শাসন থেকে মুক্ত হওয়ার সময়কালে মিসরের ঐতিহ্যবাহী শহুরে জীবনধারা ফুটিয়ে তোলেন। এ উপন্যাসের স্বীকৃতি স্বরূপ তিনি ১৯৮৮ সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পান। নাগিব মাহফুজের উপন্যাসের প্রায় অর্ধেকেরও বেশির চলচ্চিত্রায়ন হয়েছে। উপন্যাসের পাশাপাশি তিনি ১০০টিরও বেশি ছোটগল্প রচনা করেছেন। এগুলোর বেশির ভাগই পরে ইংরেজিতে অনূদিত হয়। নাগিব মাহফুজ মধ্যবিত্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পরিবার কঠোর ইসলামী অনুশাসন মেনে চলত। তিনি একজন লেখক হবেন তা কল্পনাও করেননি। মাত্র সাত বছর বয়সে তিনি মিসরীয় বিপ্লবে ১৯১৯ অংশ গ্রহণ করেন। এটি তার ওপর বড় ধরনের প্রভাব ফেলে।

 

আজিজ সানজার

তুরস্ক (নোবেল জয় ২০১৫)

ক্ষতিগ্রস্ত ডিএনএ পুনরুৎপাদ সংক্রান্ত গবেষণার জন্য ২০১৫ সালে তুর্কি বিজ্ঞানী আজিজ সানজার রসায়নে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। তিনি প্রথম তুর্কি রসায়নবিদ এবং দ্বিতীয় তুর্কি ও তৃতীয় মুসলিম বিজ্ঞানী হিসেবে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। আজিজ সানজার তুরষ্কের মারদিন প্রদেশের সাভুর নামক জেলায় এক নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারে ৭ সেপ্টেম্বর ১৯৪৬ সালে জন্মগ্রহণ করেন। ৮ ভাইবোনের মধ্যে তিনি সপ্তম। অশিক্ষিতি বাবা-মায়ের ঘরে জন্ম নিলেও পড়ালেখার জন্য করেছেন সংগ্রাম। তুরস্ক বংশো™ভূত আমেরিকান এ বিজ্ঞানী একাধারে প্রাণ রসায়নবিদ এবং কোষ বৈজ্ঞানিক। তিনি আজিজ এবং গুয়েন সানজার নামক প্রতিষ্ঠানের সহ-প্রতিষ্ঠাতা। প্রতিষ্ঠানটি তুরস্কের সংস্কৃতির বিস্তার করা এবং যুক্তরাজ্যে অবস্থানরত তুরস্কের শিক্ষার্থীদের সহায়তা করে থাকেন। বর্তমানে তিনি তুরষ্কের বিজ্ঞান একাডেমি এবং আমেরিকান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি একাডেমির সম্মানিত সদস্য। তিনি বর্তমানে আমেরিকার উত্তর ক্যারোলিনা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাণরসায়ন বিভাগে অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত আছেন। তার স্ত্রী গুয়েন বলস সানকার সানজারও বর্তমানে ক্যাপেল হিলের উত্তর ক্যারোলিনা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাণরসায়ন বিভাগে প্রভাষক হিসেবে কর্মরত আছেন।


আপনার মন্তব্য