শিরোনাম
২১ জানুয়ারি, ২০২২ ১৬:৩০

মহাবিপন্ন মহাশোল, বিক্রি হলো ১৫ হাজারে

সাইফুল ইসলাম বেগ, বিশ্বনাথ (সিলেট)

মহাবিপন্ন মহাশোল, বিক্রি হলো ১৫ হাজারে

মহাশোল। স্বাদে সেরা, বিলুপ্তপ্রায় একটি মাছ। এর ইংরেজী নাম Mahseer। দেখতে অনেকটা মৃগেল মাছের মতো। মূলত পাহাড়ী খরস্রোতা নদীগুলোতে ছিল এদের আবাসস্থল। পর্যাপ্ত পাওয়া যেত এ মাছ। বংশবৃদ্ধি ও বসবাসের জায়গা নষ্টের কারণে ধীরে ধীরে বিপন্নের তালিকায় উঠে মহাশোলের নাম।

সম্প্রতি (২০ জানুয়ারি সকালে) দেশের সর্ববৃহৎ জলাভূমি, সিলেটের মৌলভীবাজার জেলার ‘হাকালুকি হাওরে’ ধরা পড়ে দুটি মহাশোল। একেকটির ওজন প্রায় ১৩-১৪ কেজি করে। জেলেরা বেড়জাল দিয়েই শিকার করেন বিশাল আকৃতির বিরল এ মাছ। পরে সন্ধ্যায় জেলার বড়লেখা উপজেলার দক্ষিণভাগ উত্তর ইউনিয়নের কাঠালতলী বাজারে বিক্রির জন্য নিয়ে আসেন মৎস্য ব্যবসায়ী মো. তারা মিয়া (৫২)। এসময় কথা হয় তার সাথে। 

তিনি ‘বাংলাদেশ প্রতিদিন’কে জানান, হাকালুকিতে ধরা সকল জাতের বড় বড় মাছ জেলেদের কাছ থেকে এনে দীর্ঘদিন ধরে তিনি এ বাজারে বিক্রি করছেন। এবার বিরল এ দুটি মাছ বাজারে তুলে ওজন অনুযায়ী দাম হাঁকেন ১৪ হাজার ও ১২ হাজার করে। পরে বড়টি ৯ হাজারে এক প্রবাসীর কাছে ও অন্যটি ৬ হাজারে স্থানীয় এক ব্যবসায়ীর কাছে বিক্রি করেন তিনি। ইউনিয়নের প্রধান বাজার হওয়ায়, এসময়  মাছ দু’টি দেখতে ভিড় জমান উৎসুক মানুষ।

প্রাণী বিশেষজ্ঞদের মতে, পাহাড়ী নদীর স্বচ্ছ মিঠাপানিই ছিল মহাশোলের আবাসস্থল। এদের প্রধান খাদ্য জলের নীচে পাথর-নুড়ির ফঁকে জন্মানো ‘পেরিফাইটন’ নামের শ্যাওলা। মৃগেল মাছের মতো দেখতে হলেও এর আঁশগুলো আরও বড় ও শক্ত। রং উজ্বল সোনালি রঙের দীপ্তিমান। রক্তিম লেজ ও পাখনা। আমাদের দেশে ‘সোনালী মহাশোল’  (বৈজ্ঞানিক নাম Tor Tor) ও ‘লাল পাখনা মহাশোল ( বৈজ্ঞানিক নাম Tor putitora) নামে দুটি প্রজাতি রয়েছে। বর্তমানে এ প্রজাতি মহাবিপন্ন। বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনে প্রজাতি দুটি সংরক্ষিত।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল     

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর