২১ ডিসেম্বর, ২০২২ ২০:৩১

ডুজা'র সাথে ছাত্রলীগের নতুন নেতৃবৃন্দের সৌজন্য সাক্ষাৎ

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক

ডুজা'র সাথে ছাত্রলীগের নতুন নেতৃবৃন্দের সৌজন্য সাক্ষাৎ

ছবি- বাংলাদেশ প্রতিদিন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির (ডুজা) নেতৃবৃন্দের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন ছাত্রলীগের নতুন কমিটির কেন্দ্রীয় সভাপতি সাদ্দাম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান। 

বুধবার (২১ ডিসেম্বর) বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির কার্যালয়ে সমিতির সদস্যদের সাথে সাক্ষাৎ করে মতবিনিময় করেন তারা। এসময় সাংবাদিক সমিতির সভাপতি মামুন তুষার ও সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম রুবেলসহ সমিতির কার্যনির্বাহী ও সাধারণ সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। 

পরে সন্ধ্যায় সমিতিতে সৌজন্য সাক্ষাতে আসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি মাজহারুল ইসলাম শয়ন ও সাধারণ সম্পাদক তানভীর হাসান সৈকত।

সৌজন্যে সাক্ষাৎ শেষে ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দাম ও সাধারণ সম্পাদক ইনান তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করতে সাংবাদিক সমিতির সদস্যদের সহযোগিতা কামনা করেন। পেশাদারি কাজে যাতে কোন প্রকার অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা না ঘটে তার পূর্ণ নিশ্চয়তা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন তারা। 

সভাপতি সাদ্দাম স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার স্বপ্নের স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে আমরা কাজ করে যাবো। এ দেশ থেকে স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তিকে মূলৎপাটনে সবসময় দৃঢ় অবস্থান থাকবে। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কর্মী এটাই আমাদের সবচেয়ে বড় পরিচয়। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে শেখ হাসিনার স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার উপযোগী দক্ষ মানুষ আমরা হতে চাই। ছাত্রলীগে অংশীদারিত্বমূলক নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠিত হোক সেটিই আমরা চাই। কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদকে কার্যকর করার বিষয়টি নিয়ে আমরা কাজ করবো। 

তিনি আরও জানান, দায়িত্বকে যদি আমরা আরও বেশি বিকেন্দ্রীকরণ করতে পারি তাহলে সংগঠন আরও বেশি গতিশীল হবে বলে আমরা মনে করি। সাংগঠনিক জবাবদিহীতা থাকবে, কেন্দ্র এবং তৃণমূলের কর্মীদের মধ্যে সম্পর্ক দৃঢ় হবে। 

সাধারণ সম্পাদক ইনান বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সকল ইউনিটের সকল ভালো কাজের অংশীদার যেমন আমরা তেমনি সকল খারাপ কাজের দায়ভারও আমাদের দুইজনের। বঙ্গবন্ধু কন্যা আমাদের এই ভার দিয়েছেন সেটি আমাদের গ্রহণ করে চলতে হবে। গঠনতন্ত্র মেনে এবং বিতর্কমুক্ত ছাত্রলীগ উপহার দিতে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করব। এ ক্ষেত্রে আমরা সাংবাদিকদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা কামনা করছি। 

তিনি আরও বলেন, আমাদের দায়িত্ব থাকাকালীন সাংবাদিকদের পেশাদারী কাজে যাতে কোনো হস্তক্ষেপ বা কোন প্রকার অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা না ঘটে এ ব্যাপারে আমরা শতভাগ নিশ্চয়তা দিচ্ছি। আমরা আমাদের নেতাকর্মীদের কাছে এই বিষয়ে কঠোর নির্দেশনা দিচ্ছি, যাতে সকলে সুশৃঙ্খল রাজনীতির চর্চা করেন।
 
সমিতির পক্ষ থেকে সভাপতি মামুন তুষার ও সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম রুবেল নবাগত নেতাদের শুভেচ্ছা জানান। পেশাদারি দায়িত্ব পালন ও নিরাপদ শিক্ষার্থীবান্ধব ক্যাম্পাস তৈরিতে ছাত্রলীগের সৌহার্দ্যপূর্ণ ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান তিনি।

সভাপতি মামুন তুষার বলেন, শুধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নয়, পুরো বাংলাদেশে শিক্ষার্থী বান্ধব পরিবেশ তৈরিতে ছাত্রলীগ ও সাংবাদিকদের সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক খুব জরুরী। সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনে আপনাদের সহযোগিতা করার আহ্বান জানাই।


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ

এই রকম আরও টপিক

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর