শিরোনাম
প্রকাশ : ৪ এপ্রিল, ২০২০ ২১:৪২

রাজধানীমুখী হাজার হাজার পোশাক শ্রমিক

মাহবুবুর রহমান, শ্রীপুর:

রাজধানীমুখী হাজার হাজার পোশাক শ্রমিক

রবিবার পোশাক কারখানা খুলে দেওয়ায় ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, জামালপুর, শেরপুর অঞ্চলের পোশাক কারখানার কর্মমুখী হাজার হাজার মানুষ রাজধানী ঢাকার দিকে ছুটছেন। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় অনেকে মহাসড়কে পায়ে হেঁটে গন্তব্যে ছুটছেন। কেউ কেউ পিকআপ, ট্রাক, ভ্যান গাড়ীতে করে ফিরছেন। 

গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকার বাসস্ট্যান্ডগুলোতে জটলা পাকিয়ে গাজীপুর মহানগর ও ঢাকামুখী পোশাক শ্রমিকরা। শনিবার সকাল থেকে শ্রমিকদের ঢাকা অভিমুখে ছুটতে দেখা গেছে। কখনও হালকা যানবাহন আবার দলবেঁধে পায়ে হেঁটে ছুটছেন শ্রমিকেরা। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের চেয়ে তাদের কাছে চাকরি রক্ষা করাটা বেশি প্রয়োজন বলে দাবি করছেন তারা।

শনিবার দুপুর ১২টার দিকে দেখা যায়, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের বিভিন্ন বাসট্যান্ডে ঢাকামুখী যাত্রীরা কেউ হেঁটে যাচ্ছেন, আবার যাদের অর্থনৈতিক অবস্থা কিছুটা ভালো তারা ভ্যান বা পিকআপে করে ছুটে চলছেন ঢাকার দিকে। ময়মনসিংহ থেকে গাজীপুরের ভাড়া ৫০ থেকে ৬০ টাকা আর সেখানে এক স্টপেজ থেকে অন্য স্টপেজে যাওয়ার জন্য ভাড়া গুনতে হচ্ছে দেড়’শ থেকে দু’শ টাকা। তবুও অতিরিক্ত টাকা দিয়েই যাচ্ছেন পোশাক শ্রমিকরা। 

শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলার শ্রমিক সুফিয়া খাতুন জানান, কারখানা খুলে গেছে তাই যাচ্ছি। রবিবার কারখানায় উপস্থিত না হতে পারলে যে কয়দিন ছুটি পাইছি সে কয়দিন অনুপস্থিত দেখাবে কর্তৃপক্ষ। যার কারণে অতিরিক্ত টাকা দিয়েই কারখানায় যাচ্ছি। 

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের শ্রীপুর উপজেলার মাওনা চৌরাস্তা উড়ালসেতুর নিচে বিভিন্ন যানবাহনের জন্য অপেক্ষমান ও দলবেঁধে পায়ে হেঁটে চলা শ্রমিকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, আগামীকাল রোববার থেকে তাদের পোশাক কারখানাগুলো খোলা হবে। কারখানা থেকে তাদেরকে ফোন দেয়া হয়েছে ৫ এপ্রিল কাজে যোগদান করতে হবে।

মাওনা হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে ট্রাক পিকাপ চালকদেরকে বাধা দেয়া হচ্ছে। যাত্রীদেরকেও ওইসব পরিবহন থেকে নেমে যেতে বলা হচ্ছে। অনেকে দলবেঁধে পায়ে হেঁটে গাজীপুর মহানগর ও ঢাকা অভিমুখে চলছেন।

এ ব্যাপারে শ্রীপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফারজানা নাসরিন বলেন, সরকারি নির্দেশ অমান্য করে ট্রাক পিকাপে যাত্রী বহন করায় বেশ কয়েকজন ট্রাক চালককে অর্থদণ্ড ও তা আদায় করা হয়েছে। আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা সরকারি নির্দেশ বাস্তবায়নেও তৎপর রয়েছে।


বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য