শিরোনাম
প্রকাশ : ২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ২১:২২
প্রিন্ট করুন printer

প্রধানমন্ত্রীসহ সংসদ সদস্যদের আগে ভ্যাকসিন নেয়া দরকার: মির্জা ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর

প্রধানমন্ত্রীসহ সংসদ সদস্যদের আগে ভ্যাকসিন নেয়া দরকার: মির্জা ফখরুল

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীসহ সকল সংসদ সদস্যদের আগে করোনার ভ্যাকসিন নেয়া দরকার। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সরকার প্রধান ও মন্ত্রীরা আগে করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে জনগণকে সাহস জুগিয়েছেন। 

সোমবার বিকেলে স্বাধীনতার রজত জয়ন্তী পালন উপলক্ষে নগরীর অদূরে বিনোদন কেন্দ্র ভিন্নজগতে বিএনপি রংপুর বিভাগীয় কমিটির সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তিনি। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এই নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ নয়। তাই তাদের কাছে সুষ্ঠু নির্বাচন আশা করা যায় না। মাঝ রাতে ভোট ডাকাতির মাধ্যমে গণতন্ত্র হত্যা করে আওয়ামী লীগ তার চূড়ান্ত পরাজয় নিশ্চিত করেছে। তাই জনগণ তাদের কথায় আস্থা রাখতে পারছে না। 

তিনি আরো বলেন, স্বাধীনতার যুদ্ধের সাথে শহীদ জিয়াউর রহমান ইতিহাস হয়ে আছেন। এই ইতিহাস মুছে ফেলা যাবে না। তাই স্বাধীনতার মহান সুবর্ণ জয়ন্তিতে বিএনপি’র প্রতিটি নেতাকর্মীকে শহীদ জিয়ার বহুদলীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার সংগ্রামে ঝাপিয়ে পড়ে রাষ্ট্রের মালিকানা জনগণের হাতে ফিরে আনতে হবে।

সাবেক স্পীকার বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ও রজত জয়ন্তি পালন উপলক্ষে রংপুর বিভাগীয় কমিটির আহ্বায়ক ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকারের সভাপতিত্বে এবং বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক (রংপুর) ও উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব অধক্ষ্য আসাদুল হাবিব দুলু’র সঞ্চলনায় বক্তব্য রাখেন বিভাগীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক (রংপুর বিভাগ) ও দিনাজপুর পৌর সভার নবনির্বাচিত মেয়র জাহাঙ্গীর আলম আব্দুল খালেক, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সাবেক এমপি বিলকিস ইসলাম, ঠাকুরগাও জেলা বিএনপি’র সদস্য ফয়সাল মির্জা, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ফরহাদ হোসেন আজাদ, রংপুর মহানগর বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সামসুজ্জামান সামু, রংপুর জেলা বিএনপি’র সভাপতি সাইফুল ইসলাম, গাইবান্ধা জেলা বিএনপি’র সভাপতি ডা. সাদিক, দিনাজপুর জেলা বিএনপি’র আহ্বায়ক রোজিনা বেগম, কেন্দ্রীয় সদস্য ও কুড়িগ্রাম জেলা বিএনপি’র সভাপতি সাইফুর রহমান রানা কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আমিনুল ইসলামসহ বিভাগের বিএনপি’র নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।  

সভায় মাসব্যাপী কমসূচি গ্রহণ করা হয়। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে জিয়াউর রহমানের জীবনী ও মুক্তিযুদ্ধের উপর রচনা প্রতিযোগিতা, জিয়াউর রহমানের জেড ফোর্সের মুক্তিযুদ্ধকালীন মুক্ত অঞ্চল কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারীতে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ ও আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এ ছাড়াও বিভাগের প্রতি জেলা ও উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধাদের সংর্বধনা অনুষ্ঠান, অস্বচ্ছল  মুক্তিযোদ্ধা ও তার পরিবারবর্গের প্রতি আর্থিক সহায়তা প্রদান এবং মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরে প্রবন্ধ রচনা।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর