শিরোনাম
প্রকাশ : ২৯ এপ্রিল, ২০২১ ২১:২৩
আপডেট : ২৯ এপ্রিল, ২০২১ ২১:২৫
প্রিন্ট করুন printer

রাজধানীতে র‌্যাবের অভিযানে বালু ও পিয়াজের ট্রাক থেকে ফেন্সিডিল উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীতে র‌্যাবের অভিযানে বালু ও পিয়াজের ট্রাক থেকে ফেন্সিডিল উদ্ধার
Google News
রাজধানীর মোহাম্মদপুর এবং আদাবর এলাকায় র‌্যাব-২ এর পৃথক অভিযানে বালু ও পিয়াজের ট্রাক থেকে ৭৩০ বোতল ফেন্সিডিল ও ২৭৫ গ্রাম হেরোইন উদ্ধারসহ ২ জন মাদক কারবারিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। 
 
সমাজে মাদকের ভয়াল থাবার বিস্তার রোধকল্পে মাদক বিরোধী অভিযানে অন্যান্য আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি র‌্যাব নিয়মিত আভিযানিক কার্যক্রমের মাধ্যমে মাদকের চোরাচালান, চোরাকারবারী, চোরাচালানের রুট, মাদকস্পট, মাদকদ্রব্য মজুদকারী ও বাজারজাতকারীদের চিহ্নিত করে তাদের গ্রেফতারসহ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে যাচ্ছে। র‌্যাব-২ সব সময়ই মাদকের বিরুদ্ধে বলিষ্ঠ অবদান রেখে চলেছে।
 
মাদকের একটি বড় চালান গাবতলী বেড়িবাঁধ রোড হয়ে মোহাম্মদপুর দিয়ে রাজধানীতে প্রবেশ করবে এমন গোপন তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-২ এর একটি আভিযানিক দল গতকাল রাত সাড়ে ১১টায় মোহাম্মদপুর থানাধীন গ্রিন ভিউ হাউজিং, বেড়িবাঁধ চার রাস্তার মোড় এলাকায় বিশেষ চেকপোষ্ট স্থাপন করে তল্লাশীকালে আন্তঃ জেলা মাদক কারবারী চক্রের সদস্য মো. ওয়াসিম (২৪), পিতা- মো. আব্দুল মাজেদ, বগুড়া’কে বালুর ট্রাকে লুকিয়ে আনা ৭৩০ বোতল ফেন্সিডিলসহ গ্রেফতার করে।
 
প্রাথমিক অনুসন্ধান ও জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে দীর্ঘ দিন ধরেই মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত এবং ট্রাক ড্রাইভারের ছদ্মবেশে একজন মাদক কারবারী। সে মূলত মাদকের চাহিদা অনুযায়ী ভারত থেকে চোরাই পথে এই ফেন্সিডিল সংগ্রহ করে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করে থাকে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজর এড়াতে এই মাদক কারবারি সবসময় নতুন নতুন পদ্ধতি অবলম্বন করত বলে জানায়।
 
একই দিন সকালে র‌্যাব-২ এর আরো একটি আভিযানিক দল রাজধানীর আদাবর থানাধীন বেড়িবাধ রোড এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে আন্তঃজেলা মাদক কারবারি চক্রের সদস্য মো. আসমাউল হক (২৪), পিতা-মৃত মোশারফ হোসেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ’কে ২৫ লক্ষ টাকা মূল্যের ২৭৫ গ্রাম হেরোইনসহ গ্রেফতার করে। প্রাথমিক অনুসন্ধান ও জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে দীর্ঘ দিন ধরে দেশের বিভিন্ন এলাকা হতে মাদক বহন করে নিয়ে আসে এবং তা রাজধানীর বিভিন্ন মাদক কারবারিদের নিকট হস্তান্তর করে।
 
তাদের অন্যান্য সহযোগীরা অবৈধভাবে চোরাচালানের মাধ্যমে হেরোইন দেশে নিয়ে আসে এবং আইন-শৃংখলা বাহিনীর চোখ এড়িয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে হেরোইন পৌঁছানোর জন্য পণ্যবাহী গাড়ি ব্যবহারের কৌশল অবলম্বন করে থাকে বলে জানায়। আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য যাচাই বাছাই করে ভবিষ্যতে র‌্যাব-২ এ ধরনের মাদক বিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকবে।
 
বিডি প্রতিদিন/আল আমীন
এই বিভাগের আরও খবর