Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ জানুয়ারি, ২০১৯ ২৩:৫০

ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল আজ খাওয়ানো হচ্ছে না

মানসম্মত নয় আমদানিকৃত ওষুধ

নিজস্ব প্রতিবেদক

ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল আজ খাওয়ানো হচ্ছে না

আজ ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানোর যে কর্মসূচি ছিল তা স্থগিত করা হয়েছে। ওষুধের গুণগতমানে সমস্যা থাকায় এ কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে বলে জানা গেছে। বিষয়টি পর্যালোচনায় সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। জাতীয় পুষ্টিসেবা কর্মসূচির ব্যবস্থাপক এস এম মোস্তাফিজুর রহমান জানান, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এরইমধ্যে মাঠপর্যায়ে পাঠানো সব ক্যাপসুল ফেরত এনে নতুন ক্যাপসুল পাঠানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ক্যাম্পেইনের নতুন তারিখ দ্রুত জানানো হবে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, কিছু স্থানে সরবরাহকৃত ভিটামিন ‘এ প্লাস’ ক্যাপসুলে সমস্যা দেখা দেয়ায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে বিশেষজ্ঞসহ সাত সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এনায়েতুর রহমানকে প্রধান করে এ কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে সাত কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ওই কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ভিটামিন এ ক্যাপসুলগুলোর প্যাকেট খোলার পর সেগুলো মূলত ঝরঝরে অবস্থায় থাকার কথা। কিন্তু ক্যাপসুলের প্যাকেট খুলে একটির সঙ্গে আরেকটি আঠার মতো জোড়া লাগানো অবস্থায় পাওয়া গেছে। দেশের কয়েকটি স্থান থেকে এমন অভিযোগ আসায় ক্যাপসুল খাওয়ানোর কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে। কর্মসূচির পরবর্তী তারিখ খুব দ্রুত জানিয়ে দেওয়া হবে। অপর একটি সূত্র জানায়, ভারতীয় কোম্পানি ‘সফটি সিউল’ এবার ভিটামিন ‘এ’ সরবহারের দায়িত্ব পাওয়ায় দেশি ওষুধ কোম্পানি রেনেটা সরকারের ক্রয় প্রক্রিয়া নিয়ে ‘সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিট-সিপিটি উইংয়ে অভিযোগ করে। বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছিল। সর্বশেষ ভিটামিন ‘এ’ খাওয়ানোর কর্মসূচি স্থগিত করা হলো।

জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানা গেছে, ক্যাম্পেইনের আওতায় দেশের ২ কোটি ২০ লাখ শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানোর লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছিল। এ জন্য ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী শিশুদের জন্য নীল রঙের এবং এক থেকে পাঁচ বছর বয়সী শিশুদের জন্য লাল রঙের ক্যাপসুল সরবরাহ করা হয়। এর মধ্যে ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী প্রায় ২৫ লাখ শিশুর জন্য কেনা ক্যাপসুলগুলোর মান ভালো পাওয়া যায়। কিন্তু এক থেকে পাঁচ বছর বয়সী ১ কোটি ৯৫ লাখ শিশুর জন্য সরবরাহকৃত ক্যাপসুল নিয়ে অভিযোগ উঠেছে। ফলে এ কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে।

ঘটনা তদন্ত করা হবে : এদিকে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান বলেছেন, ভারতীয় যে কোম্পানি ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল সরবরাহ করেছে, সে কোম্পানির কোনো সুনাম নেই। তারা কেন এবং কীভাবে এ ক্যাপসুল দিতে বাধ্য করেছে সেটা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি গতকাল বিকালে কিশোরগঞ্জ সার্কিট হাউজে এক মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর