শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:৫৩

বালু উত্তোলনে ভাঙনের হুমকিতে রেলসেতু

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

বালু উত্তোলনে ভাঙনের হুমকিতে রেলসেতু
রেলসেতুর অদূরে নদী থেকে তোলা হচ্ছে বালু -বাংলাদেশ প্রতিদিন

ঢাকান্ডটাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে কালিহাতী উপজেলার মহেলা এলাকায় পৌলী নদীর চারটি পয়েন্টে ভেকু বসিয়ে অবৈধভাবে মাটি উত্তোলন ও বিক্রি করা হচ্ছে। এতে ভাঙনের হুমকির মুখে পড়েছে নদীর ওপর নির্মিত রেলসেতু এবং বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের পুংলি ব্রিজ। সেতুর দুই পাশ থেকে মাটি ধসে যাওয়ায় রয়েছে দুর্ঘটনার আশঙ্কা। জানা যায়, ভেকু বসিয়ে মাটি কাটার কারণে এর আগে দুইবার তিতাস গ্যাসের মূল পাইপলাইন ফেটে ভেসে উঠে। এতে টাঙ্গাইল, গাজীপুরসহ আশপাশের জেলার গ্যাস সংযোগ বন্ধ হয়ে যায়। সাধারণ মানুষকে পড়তে হয়েছিল দুর্ভোগে। তখন নদী থেকে বালু উত্তোলন বন্ধে প্রশাসন কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ায় কিছুদিন বালু উত্তোলন ও বিক্রি বন্ধ থাকে। পরে পাইপলাইন মেরামত করা হলে পুনরায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে বিক্রি শুরু করেন প্রভাবশালীরা। অবৈধ ও অপরিকল্পিতভাবে মাটি কাটায় সংশ্লিষ্ট এলাকায় বর্ষা মৌসুমে ব্যাপক ভাঙন দেখা দেয়। ইতোপূর্বে ভাঙনে শতাধিক পরিবারের ভিটাবাড়ি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ফসলি জমি। সরেজমিনে দেখা যায়, মহেলা এলাকায় পৌলী নদীতে ভেকু বসিয়ে মাটি উত্তোলন করা হচ্ছে। কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত মহাসড়ক ও রেলসেতুর অদূরে মাটি কেটে বিক্রি করা হচ্ছে। অসংখ্য ট্রাকে করে মাটি যাচ্ছে বিভিন্ন স্থানে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের গাইড রক্ষা বাঁধও রয়েছে হুমকিতে। গ্যাসপাইপ লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার শঙ্কা রয়েছে। এলাকাবাসী জানান, তারা বালু উত্তোলন বন্ধে জেলা প্রশাসক, পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী, কালিহাতীর ইউএনও ও এসিল্যান্ডকে লিখিত অভিযোগ দিলেও বন্ধ হয়নি। জেলা প্রশাসক শহীদুল ইসলাম বলেন, দ্রুত এ ব্যাপারে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম বলেন, পুংলী নদীতে রেল ও মহাসড়কের পাশাপাশি দুটি বড় সেতু থাকায় এলাকাটি স্পর্শকাতর হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এখানে বালু উত্তোলনের জন্য কাউকে অনুমতি দেওয়া হয়নি। কালিহাতীর সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহরিয়ার রহমান বলেন, অনিয়মের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রশাসনের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর