শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ ডিসেম্বর, ২০২০ ২৩:৪৩

প্রধানমন্ত্রী রেলকে পুনরুজ্জীবিত করেছেন : রেলমন্ত্রী

নীলফামারী প্রতিনিধি

চিলাহাটি-হলদীবাড়ি রুটে মালবাহী ট্রেন চলাচল আগামী ১৭ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই রুটের উদ্বোধন করবেন তারা। এছাড়া আগামী বছরের ২৬মার্চ একই রুটে যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল শুরু হবে বলে জানিয়েছেন রেলপথ মন্ত্রী অ্যাডভোকেট নূরুল ইসলাম সুজন। গতকাল নীলফামারী জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে আন্তর্জাতিক এই রুটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রস্তুতিমূলক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি। মন্ত্রী আরও বলেন,             প্রধানমন্ত্রী রেলকে পুনরুজ্জীবিত করেছেন। শুধু চিলাহাটি-হলদীবাড়ি নয় দর্শনা, বেনাপোল, রহমানপুর, বিরল ও রাধিকাপুর রুট দিয়েও ভারতে ট্রেন চলবে।

 চলাচলের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

ফলে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার সৌহার্দ্যমূলক সম্পর্ক আরও গভীর হচ্ছে।  তিনি বলেন, যমুনা নদীর উপর বঙ্গবন্ধু সেতুর পাশে বঙ্গবন্ধু রেলসেতু গত ২৯ নভেম্বর উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০২৪ সালের আগস্ট মাসের আগেই এটি চলাচলের জন্য উন্মুক্ত হবে। এতে রেলসেবার সম্প্রসারণ এবং সাধারণ মানুষ ট্রেনে যাতায়াত করতে পারবেন আরও সহজে। এই সেতুর উপর দিয়ে মিটার গেজ লাইনে ১০০ কিলোমিটার বেগে ও ব্রডগেজ লাইনে ১২০ কিলোমিটার বেগে ট্রেন চলাচল করতে পারবে।  প্রস্তুতিমূলক এই সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মো. হাফিজুর রহমান চৌধুরী। রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম বলেন, ১৯৬৫ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের পর থেকে বন্ধ হয়ে যায় চিলাহাটি-হলদীবাড়ি রুটে ট্রেন চলাচল। পরিত্যক্ত ছিল এতদিন। বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এই পথে আবারও ট্রেন চলাচল সম্ভব হচ্ছে। মন্ত্রী উল্লেখ করেন বিএনপি জামায়াত রেলকে বেসরকারি করণের সব প্রক্রিয়া শুরু করেছিল। রেলকে ধ্বংস করেছে। মৃতপ্রায় রেলকে পুনরুজ্জীবিত করতে দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। জেলায় জেলায় রেলসংযোগ হচ্ছে। চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত নতুন রেললাইন তৈরি হচ্ছে।

তিনি বলেন, ১৯৯১-১৯৯২ সালে একযোগে ১০-১২ হাজার শ্রমিককে গোল্ডেন হ্যান্ডশেক দিয়ে বিদায় করে দেওয়া হয়েছিল। রেলের ৬৮ হাজার জনবলের মধ্যে  নেমে এসেছে ২৫ হাজারে। সৈয়দপুর রেলকারখানায় ১০ হাজার শ্রমিক ছিল আর এখন ১৪০০ এ নেমে এসেছে।

জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী জানান, বাংলাদেশ থেকে ভারতের জিরোপয়েন্ট পর্যন্ত সাত কিলোমিটার এবং ভারতের হলদীবাড়ি থেকে বাংলাদেশের জিরোপয়েন্ট পর্যন্ত ভারত তিন কিলোমিটার নতুন করে রেলপথ নির্মাণ করেছে।

নতুন এই রুট ঘিরে চিলাহাটি রেলস্টেশনকে আধুনিক মানসম্মত হাইটেক পার্ক আদলে নতুন করে ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে।

উদ্বোধনী দিনে এক হাজার অতিথিকে আমন্ত্রণ জানানো হবে। পাশাপাশি সাধারণ মানুষের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান দেখার জন্য রাখা হবে প্রজেক্টর।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর