Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ৮ নভেম্বর, ২০১৯ ২১:২৩

নড়াইলে জেলা জাতীয় পার্টির ২ গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

নড়াইল প্রতিনিধি

নড়াইলে জেলা জাতীয় পার্টির ২ গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

নড়াইল জেলা জাতীয় পার্টির বর্তমান সভাপতি ও সাবেক সভাপতির সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। আজ শুক্রবার (৮ নভেম্বর) দুপুরে লোহাগড়ার সিএন্ডবি চৌরাস্তা (কুন্দসী) এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। 

সূত্রে জানা গেছে, লোহাগড়ার সিএন্ডবি চৌরাস্তায় শুক্রবার দুপুরে জাতীয় পার্টির সাবেক জেলা সভাপতি শরীফ মুনীর হোসেনকে প্রধান অতিথি করে জেলা জাপার একাংশের কর্মী সম্মেলন চলছিল। জেলা জাতীয় পার্টির সিনিয়র সহ-সভাপতি প্রকৌশলী মো: মফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মী সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা জাপার যুগ্ন সম্পাদক মো: বদরুল ইসলাম, লোহাগড়া উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারন সম্পাদক মো: আবুল হোসেন চঞ্চল, জেলা জাপার যুগ্ন সাংগঠনিক সম্পাদক মো: আলমগীর হোসেনসহ ১২ ইউনিয়নের ও লোহাগড়া পৌর জাপার নেতা-কর্মীরা।  

জেলা জাতীয় পার্টির বর্তমান সভাপতি এ্যাডভোকেট খন্দকার ফায়েকুজ্জামান ফিরোজের সমর্থকরা এ সম্মেলনে বাঁধাপ্রদান করলে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি সভাপতি এ্যাডভোকেট খন্দকার ফায়েকুজ্জামান ফিরোজ বলেন, শরীফ মুনির হোসেন জাতীয় পার্টির সাবেক সভাপতি ছিলেন। তিনি এখন জাতীয় পার্টি থেকে বহিস্কৃত ও বিতাড়িত। সদস্য সমাপ্ত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শরীফ মুনির হোসেনসহ কয়েকজন জাপা নেতা-কর্মী এনপিপিতে (ন্যাশনাল পিপলস পার্টি) যোগ দেন। এখন ওই সব নেতাদের সাথে জাতীয় পার্টির কোন সম্পর্ক নেই। আমি ও আমার সমর্থকরা ঘটনাস্থলে গিয়ে সভা বন্ধ করতে প্রশাসনকে অনুরাধ করলে আমার সমর্থকদের উপর হামলা চালালে দু'পক্ষের সংঘর্ষ বেঁধে যায়।   

এদিকে,শরীফ মুনির হোসেন পক্ষের নেতা আবুল হাসান চঞ্চল বলেন, আমরাই জাতীয় পার্টি। আমরা সভা করছিলাম। বর্তমান সভাপতির সমর্থকরা বাঁধা প্রদান করায় বিশৃঙ্খল পরিবেশ সৃষ্টি হয়। 

লোহাগড়া থানার ওসি (তদন্ত) আমানুল্লা-আল বারী বলেন, পুলিশের অনুমতি নিয়ে কয়েকজন লোক জাতীয় পার্টির ব্যানারে সিএন্ডবি স্ট্যান্ডে সভা-সমাবেশ করছিলেন। এসময় জেলা জাতীয় পার্টির বর্তমান সভাপতির সমর্থকরা ওই সভায় বাঁধা দিলে বিশৃঙ্খল পরিবেশের সৃষ্টি হয়। পরে পুলিশ ঘটনাাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।


বিডি-প্রতিদিন/ সিফাত আব্দুল্লাহ


আপনার মন্তব্য