শিরোনাম
৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ২২:৫০

অযত্নে নষ্ট হচ্ছে ফসিল ট্রি

কুমিল্লা প্রতিনিধি:

অযত্নে নষ্ট হচ্ছে ফসিল ট্রি

কুমিল্লা ময়নামতি জাদুঘরের ফটকের ডান পাশে অযত্নে নষ্ট হচ্ছে ১০ হাজার বছর আগের ফসিল ট্রি। টুকরো গুলোর সামনে লেখা আছে গাছের জীবাশ্ম বা ফসিল ট্রি। 

ইতিহাস গবেষকরা বলছেন, খোলা আকাশের নিচে পড়ে থাকা কোন ঐতিহাসিক নিদর্শনই ভালো থাকে না। শিগগিরই ব্যবস্থা না নিলে এসব বিলুপ্তপ্রায় ঐতিহাসিক নিদর্শন আর খুঁজে পাওয়া যাবে না। এতে করে এ অঞ্চলের মানুষ এই গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক নিদর্শন হারাবে।
জানা গেছে, ১৯৬৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ময়নামতি যাদুঘর। তখন বা তার কিছু সময় পর পাশ্ববর্তী প্রায় পঁচিশ লক্ষ বছর আগের প্লাইস্টোসিন যুগের লালমাই পাহাড় থেকে কিছু উদ্ভিদের জীবাশ্ম উদ্ধার করা হয়। সেগুলো তৎকালীন ঐতিহাসিকরা এনে তা কুমিল্লার কোটবাড়ি এলাকার ময়নামতি জাদুঘরে সংরক্ষণের জন্য রাখেন। একপর্যায়ে জাদুঘরটি সাধারণ মানুষের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। বছরের পর বছর এসব জীবাশ্ম খোলা আকাশের নিচেই পড়ে আছে। ইতোমধ্যে কয়েকটি জীবাশ্ম গুলো ফাটল ধরে নষ্ট হওয়ার পথে।

চট্টগ্রামের মিরসরাই থেকে আসা পর্যটক সিদ্দিকুর রহমান বলেন, জন্ম কুমিল্লায়। চট্টগ্রাম থাকলেও কুমিল্লায় ঘুরতে আসি। জাদুঘরে দীর্ঘদিন আমার যাতায়াত। সব সময় এই জীবাশ্ম গুলোকে পড়ে থাকতে দেখি। এটা খুবই দুঃখজনক। এগুলোর সংরক্ষণ করলে পর্যটকরা আরও বেশি আকৃষ্ট হতো। কারণ বাইরে থাকতে থাকতে সেগুলো নষ্ট হয়ে রঙ ও সাইজ দুটিই বদলে যাচ্ছে। 

চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের আঞ্চলিক পরিচালক এ কে এম সাইফুর রহমান বলেন, বিষয়টি আমাদের নজরে আছে। কিন্তু এগুলো অনেক বড়। সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা একটু কঠিন হয়ে যাবে। কিন্তু আমরা চেষ্টা করছি। 

বিডি প্রতিদিন/এএম

 

 

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর