Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ৮ নভেম্বর, ২০১৯ ১৭:৪২
আপডেট : ৮ নভেম্বর, ২০১৯ ১৯:০৭

পটুয়াখালীর উপকূল জুড়ে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল আতঙ্ক

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি

পটুয়াখালীর উপকূল জুড়ে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল আতঙ্ক

ঘূর্ণিঝড় বুলবুল’র প্রভাবে বঙ্গোপসাগর উত্তাল হয়ে উঠেছে। বিশাল-বিশাল ঢেউ সৈকতে আছড়ে পড়ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকে পটুয়াখালীর কলাপাড়াসহ উপকূলীয় এলাকায় হালকা-মাঝারি বৃষ্টিপাত হচ্ছে। সমুদ্র উত্তাল থাকায় গভীর সমুদ্রে অবস্থানরত অধিকাংশ মাছ ধরা ট্রলার মৎস্য বন্দর আলীপুর-মহিপুরের পোতাশ্রয় শিববাড়িয়া নদীসহ বিভিন্ন স্থানে নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য অবস্থান নিয়েছে। গোটা উপকূল জুড়ে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল’র আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। 

এদিকে, পায়রা সমুদ্র বন্দর এলাকায় চার নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত জারি করেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। গভীর সমুদ্র থেকে নিরাপদ আশ্রয়ে ফেরার পথে কুয়াকাটা ঝাউ বাগান এলাকার কাছাকাছি আসলে উত্তাল ঢেউয়ের ঝাপটায় এফবি মা কুলসুম নামের ট্রলার থেকে বেল্লাল (৪০) নামের এক জেলে সাগরে পরে নিঁখোজ রয়েছে। বেলাল পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ থানার লক্ষীরহাট গ্রামের কুরবান আলীর পুত্র বলে জানা গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঘূর্ণিঝড় বুলবুল’র প্রভাবে পায়রা বন্দরে পন্য খালাস বন্ধ রয়েছে। টানা বৃষ্টির কারণে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত হয়ে পড়েছে। কলাপাড়া পটুয়াখালী-ঢাকা নৌ-রুটসহ অভ্যন্তরীন রুটের লঞ্চ চলাচল বন্ধ রয়েছে। আমন ধানের ব্যাপক ক্ষতির শঙ্কা রয়েছে কৃষকদের। একইভাবে শীতকালীন সবজি চাষীরা রয়েছে সর্বোচ্চ ক্ষতির আশঙ্কায়। 

এছাড়া সমুদ্রে সাঁতার কাটাসহ পর্যটকদের চলাচলে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে কুয়াকাটা ট্যুরিষ্ট পুলিশ ও নৌ-পুলিশ। এদিকে, গোটা উপকূল জুড়ে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল’র আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। ঘূর্ণিঝড় পূর্ববতী ও পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলায় পটুয়াখালী জেলা প্রশাসন সকল উপজেলা প্রশাসনকে নিয়ে জরুরী সভা করেছে। সভায় সিপিপি সহ উপজেলা প্রশাসনকে সর্বোচ্চ সর্তক অবস্থায় থাকতে বলা হয়েছে।

একাধিক জেলেদের সাথে কথা বললে তারা জানান, ৩০ আক্টোবর অবরোধ শেষে শত-শত ফিশিং ট্রলার নিয়ে তারা গভীর সমুদ্রে মাছ ধরতে যায়। বৃহস্পতিবার হঠাৎ করে সাগর উত্তাল হয়ে ওঠে। ঢেউ তান্ডবে টিকতে না পেরে বৃহস্পতিবার বিকাল তারা মৎস্য বন্দর মহিপুর আড়ৎ ঘাটে ফিরে এসেছে। 

কুয়াকাটা ও আলীপুর মৎস্য সমবায় সমিতির সভাপতি মো, আনসাছর উদ্দিন মোল্লা জানান, বর্তমানে সাগর উত্তাল। গভীর সমুদ্র থেকে অধিকাংশ ট্রলার নিরাপদে এসেছে। নিখোঁজ জেলেকে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে বলে তিনি জানিয়েছেন।  

উপজেলা রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির সহকারী পরিচালক মো.আসাদুজ্জামান খান সাংবাদিকদের জানান, ঘূর্ণিঝড়টি পায়রা বন্দর থেকে ৬৫০ কিলোমিটার দুরে দক্ষিণে সাগরে অবস্থান করছে। ঘুর্ণিঝড়টির কেন্দ্রে ৬৪ কিলোমিটারের মধ্যে এর গতিপথ ৯০-১১০ কিলোমিটার।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.মুনিবুর রহমান জানান, ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রাখাসহ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির মাঠ পর্যায়ের কর্মীদের সতর্ক রাখার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া জনগনকে সবর্চ্চ সতর্ক থাকার জন্য মাইকিং করা হয়েছে।

পটুয়াখালী জেলা প্রসাশক জানান, ঘূর্ণিঝড় পূর্ববর্তী ও পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলায় পটুয়াখালী জেলা প্রশাসন সকল উপজেলা প্রশাসনকে নিয়ে জরুরী সভা করেছে। সভায় সিপিপি সহ উপজেলা প্রশাসনকে সর্বোচ্চ সর্তক অবস্থায় থাকতে বলা হয়েছে।

 

বিডি-প্রতিদিন/ সিফাত আব্দুল্লাহ


আপনার মন্তব্য