শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২২:৫৩

সেলিম দেলোয়ারের আত্মদান

শফী আহমেদ

সেলিম দেলোয়ারের আত্মদান

আজ ২৮ ফেব্রুয়ারি। ১৯৮৪ সালের এই দিনটি ছিল দেশের ছাত্রসমাজের জন্য এক দুঃখজনক অধ্যায়। সেদিনও ফাগুনে আগুন ঝরেছিল। কেন জানি না বসন্তের আবহাওয়া ছিল সেদিন গুমোট বাঁধা। আকাশে মেঘ জমেনি। কুয়াশাও ছিল না। বসন্তের স্নিগ্ধতাও ছিল না। দিনের শুরুতেই মনে হয়েছিল আজ কিছু একটা অকল্যাণ হবে। তখন দেশে ছিল সামরিক শাসন। বিকালে ছিল ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের মিছিলের কর্মসূচি। শ্রমিক-কর্মচারী ঐক্যপরিষদ আহূত ধর্মঘট সফল করার লক্ষ্যে কর্মসূচি পালনের প্রথা অনুযায়ী প্রতিটি হল থেকে ছাত্রসংগ্রাম পরিষদভুক্ত সব ছাত্র সংগঠনের পৃথক পৃথক মিছিল বিকাল ৪টার মধ্যে মধুর ক্যান্টিন ও সংলগ্ন অঞ্চলে সমবেত হয়। সেদিনের কথা মনে হলে আজও আমার গা শিউরে ওঠে। সেদিন কেন জানি আমার মিছিলে যেতে ইচ্ছা করছিল না। কিন্তু আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতা, মিছিলে না গেলে কি হয়!

কেন্দ্রীয় নেতারা মধুর ক্যান্টিনের বারান্দায় দাঁড়িয়ে বক্তৃতা করেন, সমাবেশকে উজ্জীবিত করেন। অতঃপর মূল মিছিল শুরু হয়। আমি আমার কয়েকজন বন্ধুকে আমার মনের অবস্থা খুলে বলেছিলাম। কিন্তু তারাও আমাকে অনুরোধ করলÑ যা হয় হবে, মিছিলে থাক। ডান-বাম খেয়াল রাখ। মধুর ক্যান্টিনের পাশেই ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউটের মাঠে আমাদের জমায়েত ছিল, সেই জমায়েতে কর্মীদের উজ্জীবিত করার জন্য বক্তব্য দিলামÑ যে কোনো প্রতিকূল পরিবেশ মোকাবিলা করতে হবে।

তারপর খ- খ- মিছিল মধুর ক্যান্টিনের সামনে সমবেত হলো। নেতারা বক্তব্য দিলেন। কর্মীদের আরও চাঙ্গা করার জন্য কবি মোহন রায়হান আবৃত্তি করলেন এক বিপ্লবী কবিতাÑ ‘আমাদের মৃত্যুর জন্য আজ কোনো পরিতাপ নেই, আমাদের জন্মের জন্য আজ কোনো ভালোবাসা নেই, আমাদের ধ্বংসের জন্য আজ কোনো প্রতিকার নেই, আমাদের সবকিছু আজ শুধু ছলনার, ব্যর্থতার ক্লেদ নিয়ে আসে। আজকে এখানে একজন শিক্ষক জন্মাক, আজকে এখানে একজন বুদ্ধিজীবী থাক, আজ নবজন্ম হোক এ দেশের লেখক-কবির আর তারা অন্ধকারে ঝলসিত আগ্নেয়াস্ত্রের মতো হোক স্পর্ধিত; স্পর্ধিত হোক আজ তারা স্পর্ধিত হোক।’ মিছিলটি শুরু হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরির সামনে দিয়ে রোকেয়া হল পেরিয়ে টিএসসি হয়ে, কার্জন হলের দিকে এগোতে থাকে। মিছিলের সামনে ছিলেন কেন্দ্রীয় ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের নেতা, ডাকসু ভিপি আক্তারউজ্জামান, খন্দকার মোহাম্মদ ফারুক, মুনির উদ্দীন আহমেদ, ফজলে হোসেন বাদশা, আনোয়ারুল হক, আবদুল মান্নান, শিরীন আখতার, মোস্তাক হোসেন, মুকুল বোস, সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ প্রমুখ। মিছিলটি কার্জন হল পার হয়ে ফুলবাড়িয়ার দিকে অগ্রসর হয়। দাঙ্গাপুলিশ মিছিলের সামনে ও পেছনে অবস্থান নেয়।

এ যেন মিছিল নয়, পুলিশি ঘেরাওয়ের মধ্যে জেলখানা। তার পেছনেই ছিল পুলিশের পুলিশবিহীন ট্রাক। আমরা ঠিক আন্দাজ করতে পারিনি কী ঘটতে যাচ্ছে আমাদের ভাগ্যে! মিছিল এগিয়ে যাচ্ছে, আকস্মিক পুলিশের পুলিশবিহীন ট্রাকটি মিছিলের মধ্যে উঠিয়ে দেওয়া হলো খুনি জান্তার নির্দেশে। ঘটনাস্থলে শহীদ হলেন ছাত্রলীগ নেতা ইব্রাহীম সেলিম ও দেলোয়ার হোসেন। চিরদিনের মতো পঙ্গু হয়ে গেল আমাদের সাথী বাসদ ছাত্রলীগের নেতা আবদুস সাত্তার খান, ছাত্রলীগ নেতা হাবিবুর রহমান হাবীবসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কয়েকজন ছাত্র-কর্মী।

সে এক নিষ্ঠুরতম হত্যাযজ্ঞ! সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে গণতন্ত্র অর্জনের লড়াইয়ের এক রক্তাক্ত অধ্যায়। মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হয়ে গেল, পুলিশ কাঁদুনে গ্যাস ব্যবহার করল, নির্বিচার লাঠিচার্জ করল, কে নেতা কে কর্মী সেই লাঠিচার্জে কোনো বাচবিচার ছিল না। ইব্রাহীম সেলিম ও দেলোয়ারের লাশ পুলিশ ছিনিয়ে নিয়ে গেল ঢাকা মেডিকেলের মর্গে। তার পরের ইতিহাস আরও নিষ্ঠুর-নির্মম! সেই লাশগুলো তাদের গ্রামের বাড়ি পুলিশ পাহারায় পাঠিয়ে দেওয়া হলো এবং দাফন করা হলো। আজ সেলিম-দেলোয়ারের শহীদ হওয়ার দিনে তাদের গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করি। সেলিম-দেলোয়ারের আত্মদান সামরিক শাসনবিরোধী আন্দোলনকে আরেক ধাপ এগিয়ে নিয়ে গিয়েছিল।

১৯৭১ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে সাড়ে সাত কোটি বাঙালি এক সশস্ত্র যুদ্ধের মাধ্যমে পাকিস্তানি হানাদারদের পরাজিত করে ছিনিয়ে এনেছিল বাংলাদেশ নামক এক স্বাধীন রাষ্ট্র।

যে রাষ্ট্রের সাংবিধানিক ভিত্তি ছিলÑ গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা ও বাঙালি জাতীয়তাবাদ। কিন্তু ’৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারকে নির্মমভাবে হত্যার পর সদ্যস্বাধীন বাংলাদেশ ফিরে যায় পাকিস্তানি ধারায়। বাংলাদেশের ওপর চেপে বসে সামরিক শাসনের জগদ্দল পাথর। সেই ধারাবাহিকতায় ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ অবৈধভাবে সংবিধান লঙ্ঘন করে ক্ষমতা দখল করেন জেনারেল হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। সামরিক শাসন তথা স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে শুরু হয় ছাত্র-জনতার দুর্বার প্রতিরোধ।

১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ সামরিক শাসন জারি হওয়ার পর থেকে ’৯০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত অপ্রতিরোধ্য গণতান্ত্রিক সংগ্রামে আমাদের হারাতে হয়েছে বিপুলসংখ্যক নেতা-কর্মীকে। সেলিম-দেলোয়ারসহ অসংখ্য শহীদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত গণতন্ত্র বার বার মুখ থুবড়ে পড়েছে অশুভ শক্তির ষড়যন্ত্রে। তবু গণতান্ত্রিক ধারা এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে যে কোনো মূল্যে। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সে নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ বিশাল সংখ্যাগরিষ্ঠতায় নির্বাচিত হয়েছে। নির্বাচনের পর জননেত্রী শেখ হাসিনা মাদক, সন্ত্রাস ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছেন। প্রাতিষ্ঠানিক ক্ষেত্রেও বিভিন্ন সাংবিধানিক সংস্থাকে সচল করার চেষ্টা চালাচ্ছেন। প্রশাসন ও বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় সংস্থাকেও তিনি কঠোর নজরদারিতে রেখেছেন। কিন্তু তিনি চাইলেই তো সবকিছু হয় না। প্রকৃতি ও মনুষ্যসৃষ্ট নানা সংকট দেশবাসীর জন্য বিসংবাদ ডেকে আনছে। ইতিমধ্যেই চকবাজারে একটি মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটেছে। এমন একটি দুর্ঘটনা নয় বছর আগেও একবার ঘটেছিল। তখন ১২৪ জনের মতো মানুষ দগ্ধ হয়ে মারা গিয়েছিলেন। হাই কোর্ট ও সরকারের নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও সেখান থেকে কেমিক্যালের গোডাউন সরানো হয়নি। এর ফলে নতুন করে যে সংকট গত ২০ ফেব্রুয়ারি রাতে শুরু হয়েছে সেই সংকটে ইতিমধ্যে শতাধিক লোক প্রাণ হারিয়েছে। এ বেদনা ভোলার মতো নয়। এর পরই আবার চট্টগ্রামে দুবাইগামী একটি বিমান ছিনতাইয়ের মতো একটি প্রহসন বা নাটক বা দুর্ঘটনা যা-ই বলি না কেন তা ঘটেছে। আমরা পাকিস্তানের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভ করেছি মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে। মহান মুক্তিযুদ্ধে আমাদের সহায়তাকারী এখন কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানের সঙ্গে সংঘাতে জড়িয়ে পড়েছে। এর প্রভাব ভারতেও পড়বে, পাকিস্তানেও পড়বে এবং প্রতিবেশী রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশ এর প্রভাবের বাইরে থাকব না। আবার আমাদের এখানে প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গা এখনো রয়ে গেছে। সব মিলিয়ে দেশের ভিতরে ও বাইরে যে সংকট ও সমস্যা বিরাজ করছে সেদিকে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। সেলিম-দেলোয়ারের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত গণতন্ত্র সুরক্ষায় জননেত্রী শেখ হাসিনার পেছনে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

লেখক : নব্বইয়ের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের সর্বদলীয় ছাত্রঐক্যের কেন্দ্রীয় নেতা, আওয়ামী লীগ নেতা।


আপনার মন্তব্য