শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৫ এপ্রিল, ২০১৬ ২৩:৩০

ইন্টারভিউ : ববি

ইমোশনের জায়গা থেকে প্রযোজনায়

শামছুল হক রাসেল

ইমোশনের জায়গা থেকে প্রযোজনায়

হোম প্রোডাকশন ববস্টার ফিল্মসের মাধ্যমে প্রযোজনায় নাম লেখালেন অভিনেত্রী ববি। ইতিমধ্যে মহরত হয়েছে নির্মিতব্য ‘বিজলী’ নামের এ ছবিটির। শিগগিরই শুরু

হচ্ছে শুটিং। এ নিয়ে আজ তার ইন্টারভিউ—

 

কেমন আছেন?

খুব... খুউব ভালো আছি, যদিও ব্যস্ততার রাজ্যে নিজেকে হারিয়ে ফেলেছি। কারণ প্রযোজক হিসেবে প্রথমবারের মতো আত্মপ্রকাশ করেছি। সব ধ্যান-জ্ঞান এখন আমার হোম প্রোডাকশন ববস্টার ফিল্মসের ছবি ‘বিজলী’কে ঘিরে।

 

হঠাৎ প্রযোজনায় কেন...

সত্যি কথা বলতে কি, অনেকটা ইমোশনের জায়গা থেকে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এ ধরনের কাজে সবচেয়ে বড় যে আনন্দের বিষয় সেটা হলো নিজের সব সিদ্ধান্তকে কেন্দ্রীভূত করা যায়। তার মানে এই নয় যে, অন্য প্রোডাকশনে এই স্বাধীনতা নেই। আছে, কিন্তু আমি চাচ্ছিলাম নিজের সব চাওয়া-পাওয়ার পূর্ণাঙ্গ প্রতিফলন ঘটাতে। তাই ইমোশনালি

এ সিদ্ধান্ত।

 

ধরুন ছবিটি প্রত্যাশা মতো হলো না, তারপরও কি প্রযোজনায় থাকবেন?

হি... হি... হি... আপনারা পারেনও বটে! আরে ভাই আগে ছবিটি তৈরি হোক। এখনি কেন নেতিবাচক কথা বলছেন। পজিটিভ চিন্তা করুন। এতটুকু আশ্বস্ত করতে পারি আমার এ ‘বিজলী’ আকাশে নয়, প্রেক্ষাগৃহে চমকাবে। দর্শক চাওয়া-পাওয়ার সব কিছুই ঢেলে দেওয়া হবে এখানে। ক্যারিয়ারের অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি নিজের অভিনয়ের সেরাটা ঢেলে দেব এখানে। এ ছাড়া কো-আর্টিস্ট হিসেবে যারা আছেন, তারাও অনেক উঁচুমানের অভিনেতা। শতাব্দী রায়ের পাশাপাশি ইলিয়াস কাঞ্চন, জাহিদ হাসানও দর্শকদের প্রত্যাশা ত্বরান্বিত করবে।

 

সায়েন্স ফিকশন চরিত্র নিয়ে কাজ করার ইচ্ছা হলো কেন?

গতানুগতিক কাহিনীর গণ্ডিটাকে ভাঙতে চেয়েছি আমি। এ ছাড়া সিনেমায় এখন নির্দিষ্ট কোনো গণ্ডি নেই। দর্শকরা যে কোনো সময় যে কোনো জিনিস লুফে নিচ্ছেন। কেউ বলতে পারবে না কোনটি গ্রহণযোগ্য হবে আর কোনটি হবে না। সবই এখন দর্শকদের কাছে। তাই একটু চ্যালেঞ্জ হিসেবেই নিয়েছি এই চরিত্রকে। দর্শকরা নতুন কিছু পাবে এ সায়েন্স ফিকশন চরিত্রে।

 

মহরত তো হলো, এবার শুটিং কবে থেকে?

আগামীকাল   (বুধবার) কলকাতায় যাব। এরপর দার্জিলিং। প্রায় ১০-১২ দিন শুটিং হবে সেখানে। বাকিটা নির্ভর করছে আবহাওয়ার ওপর।  কলকাতা-দার্জিলিংয়ের শুটিং শেষ হলে ঢাকায় ফিরে যাব সিলেট ও বান্দরবানে। এ ছাড়া থাইল্যান্ডেও বেশ কিছুদিন শুটিং করব আমরা। সব মিলিয়ে আগামী কয়েক দিন বেশ ব্যস্ত থাকবে

গোটা ইউনিট।

 

যেহেতু টলিউডের শিল্পীরা রয়েছেন, তাই ওপার বাংলাতেও ছবিটি মুক্তি দেওয়ার ইচ্ছা আছে কি?

আপাতত সেরকম কোনো পরিকল্পনা নেই। এটা সিদ্ধান্ত নেব কাজের ওপর। কারণ ওপারে ছবি মুক্তি দেওয়ার কিছু নীতিমালাও রয়েছে। সে দিকটাও দেখতে হবে। ভবিষ্যতেই না হয় দেখা যাবে এ বিষয়টা। 


আপনার মন্তব্য