শিরোনাম
প্রকাশ : ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০৭:৪৮
আপডেট : ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৪:৪৭

'দুরদানার এই অর্জনকে অভিনন্দন জানাই'

শওগাত আলী সাগর

'দুরদানার এই অর্জনকে অভিনন্দন জানাই'
ড. দুরদানা ইসলাম

ম্যানিটোবার প্রাদেশিক সংসদের নির্বাচনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ড. দুরদানা ইসলাম বিজয়ী হতে পারেননি। কনজারভেটিভ পার্টির বর্তমান এমএল্ও জেনিস মোরলির কাছে তিনি হেরে গেছেন। ভোটের হিসেবে হেরে গেলেও প্রার্থী হিসেবে তিনি তার সম্ভাবনা এবং সক্ষমতার প্রমাণ রেখেই হেরেছেন। দুরদানার এই অর্জনকে অভিনন্দন জানাই।

কনজারভেটিভ প্রার্থী জেনিস মোরলির ৪৩৬৩ ভোটের বিপরীতে ২৫১৩ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে থেকেছেন দুরদানা। লিবারেল প্রার্থী জেমস ব্লোমফিল্ড পেয়েছেন ২১৪৭ ভোট।

নন ইমিগ্র্যান্ট- আর্থিকভাবে স্বচ্ছল কনজারভেটিভ একটি রাইডিং এ দুরদানার মতো একজন অভিবাসীর নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়াই তো দুরুহ হওয়ার কথা। দুরদানা মনোনয়ন পেয়ে দাপটের সাথেই ভোটের লড়াইয়ে টিকে ছিলেন- এটিও কম কথা নয়।

সিয়ান রিভার এলাকাটির ভোটের ইতিহাস বিবেচনায় নিলে দেখা যায়, তিনবার কনজারভেটিভ প্রার্থীর বিজয়ের পর তিনবার এডিপি প্রার্থীর দখলে ছিল এলাকাটি। কনজারভেটিভের দখলে যাবার পর এটি দ্বিতীয় নির্বাচন । ফলে এই আসনে দুরদানার মতো একজন অভিবাসীর নির্বাচন করাটাই একটি দুঃসাহসের কাজ। দুরদানা সেই সাহস দেখিয়েছেন। দুরদানাকে বলবো- রাজনীতিতে সম্পৃক্ত থাকতে।

কানাডায় বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত যারাই ভোটের রাজনীতিতে আগ্রহী হবেন- তাদের সামনে দুরদানা, ডলি বেগম, খালিশ আহমদরা উদাহরণ হিসেবে আলোচিত হবেন। আর দুরদানার প্রোফাইল এবং দক্ষতাই বলে তার জন্য সামনে শুভ দিন অপেক্ষা করছে। দুরদানা কানাডার রাজনীতিতে এগিয়ে যাক- সেই কামনা রইলো।

লেখক: প্রকাশক, নতুন দেশ ডটকম

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য