শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৫ এপ্রিল, ২০১৮ ২২:৪৫

খালেদা জিয়ার তিন মামলার পরবর্তী শুনানি ১৭ মে

নিজস্ব প্রতিবেদক

Google News

ভুয়া জন্মদিন পালন ও মুক্তিযুদ্ধকে ‘কলঙ্কিত’ করার অভিযোগে মানহানির দুই মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন শুনানির জন্য ১৭ মে দিন ধার্য করেছে আদালত। এ ছাড়া ২০১৫ সালে হরতাল-অবরোধের সময় আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ৪২ জনকে হত্যার ঘটনায় খালেদা জিয়াসহ চারজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ১৭ মে দিন ধার্য করা হয়েছে। গতকাল ঢাকা মহানগর হাকিম  খুরশীদ আলম এ দিন ধার্যের আদেশ দেন। পুরান ঢাকার বকশীবাজারে কারা অধিদফতরের প্যারেড মাঠে স্থাপিত বিশেষ এজলাসে মামলা তিনটির বিচার চলছে। গতকাল ভুয়া জন্মদিন পালন ও মুক্তিযুদ্ধকে কলঙ্কিত করার অভিযোগে দায়ের করা দুই মামলায় গ্রেফতার সংক্রান্ত তামিল প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য ছিল। এদিন খালেদার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া ও জিয়া উদ্দিন জিয়া তার জামিনের আবেদন করেন। আদালত ওই আবেদনের ওপর শুনানির জন্য ১৭ মে দিন ধার্য করেন। অন্যদিকে খালেদাকে হাজির করানোর জন্য আবেদন করেন অভিযোগের পক্ষের আইনজীবীরা। আদালত এ বিষয়ে আদেশের জন্য একই দিন ধার্য করেন। এদিকে, ২০১৫ সালে হরতাল-অবরোধের সময় আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ৪২ জনকে হত্যার ঘটনায় খালেদা জিয়াসহ চার জনের বিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য গতকাল দিন ধার্য ছিল। তবে গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল না করায় আদালত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ১৭ মে দিন ধার্য করে। মামলার অপর আসামিরা হলেন— বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, শমসের মবিন চৌধুরী , অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমেদ।

মুক্তিযুদ্ধকে কলঙ্কিত করার অভিযোগে দায়ের মামলায় বলা হয়, ২০০১ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে স্বাধীনতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধী জামায়াতের সঙ্গে জোট করে নির্বাচিত হয়ে সরকারের দায়িত্ব গ্রহণ করেন বিএনপি চেয়ারপারসন। তিনি রাজাকার-আলবদর নেতা-কর্মীদের মন্ত্রী-এমপি বানিয়ে তাদের বাড়ি ও গাড়িতে স্বাধীন বাংলাদেশের মানচিত্র ও জাতীয় পতাকা তুলে দেন। ২০১৬ সালের ৩ নভেম্বর ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে একটি মানহানির মামলা করেন জননেত্রী পরিষদের সভাপতি এ বি সিদ্দিকী। অন্যদিকে ২০১৬ সালের ৩০ আগস্ট ভুয়া জন্মদিন পালনের মামলার অভিযোগে মামলাটি করেন সাংবাদিক গাজী জহিরুল ইসলাম।