শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:২৯

ট্রলারে মালয়েশিয়া পাচারে বেপরোয়া দালাল চক্র

সাগরে ট্রলারডুবিতে এখনো নিখোঁজ ৫০, ১৯ দালালের বিরুদ্ধে মামলা, গ্রেফতার ৪

কক্সবাজার প্রতিনিধি

ট্রলারে মালয়েশিয়া পাচারে বেপরোয়া দালাল চক্র

বঙ্গোপসাগরে মালয়েশিয়াগামী ট্রলারডুবির ঘটনায় সেন্টমার্টিন থেকে আরও এক রোহিঙ্গাকে জীবিত উদ্ধার করেছেন নৌবাহিনীর সদস্যরা। তাকে সেন্টমার্টিন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল সকালে সেন্টমার্টিন থেকে মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করা হয়। উদ্ধার হওয়া ১৫ মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। এ ঘটনায় গতকাল কোস্টগার্ড কর্মকর্তা এম এস ইসলাম বাদী হয়ে টেকনাফ থানায় ১৯ দালালের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। জীবিত উদ্ধার ৭৩ জনের মধ্যে দুজন বাংলাদেশি ও দুজন রোহিঙ্গাসহ চার দালালকে আটক করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাত থেকে গতকাল সকাল পর্যন্ত আটক চারজনসহ আটজন দালালকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। বেপরোয়া এ দালাল চক্রের অন্যদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। উদ্ধার ৬৯ জন রোহিঙ্গা টেকনাফ থানায় রয়েছেন। আইনি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে এসব রোহিঙ্গাকে সংশ্লিষ্ট ক্যাম্পে পাঠানো হবে। এখনো নিখোঁজদের উদ্ধারে দ্বিতীয় দিনের মতো উদ্ধার অভিযান চালাচ্ছে নৌবাহিনী ও কোস্টগার্ড। বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সেন্টমার্টিন স্টেশন কমান্ডার লে. এস এম জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘অবৈধভাবে সাগরপথে মালয়েশিয়ায় যাওয়ার সময় রোহিঙ্গাবোঝাই ট্রলারডুবির ঘটনায় দ্বিতীয় দিনের মতো উদ্ধার অভিযান চালাচ্ছেন নৌবাহিনী ও কোস্টগার্ড সদস্যরা। সেন্টমার্টিনের স্থলভাগ থেকে মুমূর্ষু অবস্থায় আরও একজন রোহিঙ্গা যুবককে উদ্ধার করা হয়েছে। তাকে সেন্টমার্টিন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।’ প্রসঙ্গত, টেকনাফের বাহারছড়ার নোয়াখালীয়াপাড়া সাগর উপকূল হয়ে ১৩৮ জন যাত্রী নিয়ে অবৈধভাবে সাগরপথে মালয়েশিয়া যাওয়ার সময় সেন্টমার্টিনের ৩ নটিক্যাল মাইল দূরে মঙ্গলবার সকালে পাথরের সঙ্গে ধাক্কা লেগে পানিতে ডুবে যায় বহনকারী ট্রলারটি। খবর পেয়ে কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনীর সদস্যরা উদ্ধার অভিযান শুরু করেন। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৫ জনের মৃতদেহ ও ৭৩ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। এখনো নিখোঁজ রয়েছেন অর্ধশতাধিক।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর