শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০১

আসছে পিঁয়াজ কমছে দাম

খুলেছে ভারত মিয়ানমার স্থলবন্দর

নিজস্ব প্রতিবেদক

আসছে পিঁয়াজ কমছে দাম
সাতক্ষীরায় ভারতীয় পিঁয়াজের বস্তা নিয়ে ট্রাকের সারি। গতকাল তোলা ছবি -বাংলাদেশ প্রতিদিন

নিষেধাজ্ঞার আগে এলসি করা পিঁয়াজ ছাড়ের অনুমতি দেওয়ার পর স্থলবন্দরগুলো দিয়ে ভারতের পিঁয়াজ বাংলাদেশে আসছে। পাশাপাশি মিয়ানমার থেকেও টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে পণ্যটি আমদানি হচ্ছে। ফলে নিষেধাজ্ঞার ঘোষণায় পণ্যটির দাম হঠাৎ বেড়ে ১০০ টাকায় উঠলেও সরবরাহ বাড়ায় এখন আবার কমতির দিকে রয়েছে। গতকাল রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভারতীয় পিঁয়াজ ৬০ থেকে ৭০ টাকায় এবং দেশি পিঁয়াজ ৮০ থেকে ৯০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। অতি বৃষ্টি ও বন্যার কারণে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে পিঁয়াজের দাম বাড়তে থাকায় দেশটি গত সোমবার হঠাৎ করে পণ্যটি রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। ওই ঘোষণার পর ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে দেশে পণ্যটির দাম ১০০ টাকায় ওঠে। এ অবস্থায় নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের পাশাপাশি বন্দরে আটকে থাকা পিঁয়াজের ট্রাক ছাড়াতে কূটনৈতিক উদ্যোগ নেয় বাণিজ্য ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। শেষে গত শুক্রবার শর্তসাপেক্ষে ২৫ হাজার মেট্রিক টন পিঁয়াজ ছাড়ের অনুমতি দেয় ভারত। এরপর গতকাল থেকে স্থলবন্দরগুলো দিয়ে ঢুকতে থাকে আটকে থাকা পিঁয়াজ।

স্থলবন্দরে ঢুকছে ভারতের পিঁয়াজবাহী ট্রাক : সোনামসজিদ স্থলবন্দরের আমদানি-রপ্তানিকারক ও সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানান,  ভারতে আটকে পড়া আট ট্রাক পিঁয়াজ আজ শনিবার স্থলবন্দরে প্রবেশ করেছে। প্রতি ট্রাকে ২৫ মে. টন করে সর্বমোট ২০০ মে. টন পিঁয়াজ এসেছে। তবে সোমবার থেকে ট্রাকগুলো ভারতে আটকে থাকায় ইতিমধ্যে কিছু পিঁয়াজে পচন ধরেছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দর দিয়ে শনিবার দুপুর থেকে পিঁয়াজ আমদানি শুরু হয়। ঘোজাডাঙ্গা বন্দরে আটকে থাকা ২৫৫ ট্রাকের মধ্যে কাগজপত্র প্রস্তুত রয়েছে এমন ভারতীয় পিঁয়াজবাহী মোট ৩২টি ট্রাক ভোমরা বন্দরে প্রবেশ করবে বলে জানিয়েছেন ভোমরা সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের বন্দর বিষয়ক সম্পাদক আমির হামজা। ভোমরা সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান নাসিম জানান, ৩২ ট্রাকের প্রতিটিতে ২২ থেকে ২৫ টন পিঁয়াজ আমদানি হবে।

পাঁচ দিন বন্ধ থাকার পর শনিবার বেলা সাড়ে ৩টার দিকে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারতীয় পিঁয়াজবোঝাই ট্রাক দেশে আসতে শুরু করে। বিকাল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত বন্দর দিয়ে ১১ ট্রাক পিঁয়াজ প্রবেশ করেছে। গত পাঁচ দিন রপ্তানি বন্ধ থাকায় ৯ থেকে ১০ দিন আগে ট্রাকে লোড করা পিঁয়াজগুলো ত্রিপল দিয়ে বাঁধা থাকায় অতিরিক্ত গরম ও বৃষ্টিতে পচন ধরতে শুরু করেছে। এতে করে আমদানিকারকরা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। কমপক্ষে অর্ধ কোটি টাকার ক্ষতি হবে বলে জানান হিলি স্থলবন্দর আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন- উর রশিদ হারুন। এদিকে দিল্লির ছাড়পত্র পাওয়ার পরও লিও পারমিশন না থাকায় পিঁয়াজ আসেনি বেনাপোল বন্দরে। ভারতের পেট্রাপোল বন্দর থেকে লিও পারমিশন (আউট পাস)  না পাওয়ায়  এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে বন্দর সূত্রে জানা গেছে। বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান জানান, ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে আটকে থাকা  পিঁয়াজের ট্রাকগুলো সে দেশের সংশ্লিষ্ট রপ্তানিকারকরা পচন ধরার ভয়ে কোলকাতার বিভিন্ন বাজারে সরিয়ে নিয়ে গেছে। সেখান থেকে বর্ডারে আসতে কিছুটা সময় লাগছে। তাছাড়া বন্দর থেকে পিঁয়াজের ট্রাকের কোনো লিও পারমিশন (আউট পাস) না থাকায় আজ কোনো পিঁয়াজের ট্রাক বেনাপোল বন্দরে ঢুকবে না বলে জানিয়েছেন ভারতের পেট্রাপোল বন্দরের সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট স্টাফ ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শ্রী কার্তিক চক্রবর্তী। তবে আজ থেকে আগের মতো এ বন্দরে পিঁয়াজ আমদানি হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। মিয়ানমার থেকে ট্রলার ভরে পিঁয়াজ আসছে : করোনার কারণে প্রায় আড়াই মাস বন্ধ থাকার পর মিয়ানমার থেকে আবারও পিঁয়াজ আমদানি শুরু হয়েছে। গত দুই দিনে ৪৫ মেট্রিক টন পিঁয়াজ কক্সবাজারের টেকনাফ স্থলবন্দরে এসে পৌঁছেছে। টেকনাফ স্থলবন্দরের শুল্ক কর্মকর্তা মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন জানান, উচ্চ পর্যায়ে বৈঠকের পর মিয়ানমার থেকে পিঁয়াজ আমদানি শুরু হয়েছে। এসব পিঁয়াজ যত দ্রুত সম্ভব খালাস করে বাজারে পৌঁছানোর উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের চিত্র : শর্তসাপেক্ষে ভারতের পিঁয়াজ ছাড়ের ঘোষণায় অস্থির বাজারে কিছুটা হলেও স্বস্তি ফিরতে শুরু করেছে। ভারতের সিদ্ধান্তের কারণে দেশের আমদানিকারকরা চীন, মিয়ানমার এবং তুরস্ক  থেকে পণ্যটি আমদানির জন্য এলসি খুলছেন। শনিবার দেশের অন্যতম পাইকারি বাণিজ্য কেন্দ্র খাতুনগঞ্জে ৫৫ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে পণ্যটি বিক্রি হয়েছে। আমদানি করা পিঁয়াজ ঢুকলে পাইকারি মোকামে দাম আরও কমে আসবে বলে জানিয়েছেন খাতুনগঞ্জের হামিদুল্লাহ মার্কেটের আড়তদার রিতাপ উদ্দিন বাবু। তিনি বলেন, ভারতের সিদ্ধান্তের কারণে পিঁয়াজের বাজার অস্থির হয়েছিল। কিন্তু দেশের আমদানিকারকদের ভিন্ন ভিন্ন দেশ থেকে পিঁয়াজ আমদানির দ্রুত সিদ্ধান্তের কারণে পরিস্থিতি আজকালের মধ্যে স্বাভাবিক হয়ে আসবে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর