শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২১ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ মার্চ, ২০২১ ২৩:০২

চেইন অব কমান্ড নেই কোথাও

ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর ছড়াছড়ি, মন্ত্রী-এমপিদের সঙ্গে দূরত্ব বাড়ছে কর্মীদের অনেকে এলাকায় যান না, ঢাকার বাড়ির দরজাও থাকে বন্ধ, তৃণমূলে কেউ কাউকে মানেন না

নিজস্ব প্রতিবেদক

চেইন অব কমান্ড নেই কোথাও

নোয়াখালীর বসুরহাটের মেয়র আবদুল কাদের মির্জার বক্তব্য-বিবৃতি থামাতে পারেনি আওয়ামী লীগ। এমনকি সময়মতো কেন্দ্র থেকেও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। শুধু নোয়াখালী নয়, দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এখন আওয়ামী লীগের সমালোচনা দলীয় লোকজনই বেশি করছে। মাঠে-ময়দানের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে দূরত্ব বাড়ছে কেন্দ্রের। আবার মাঠপর্যায়ের নেতা ও ক্ষমতাবান উপজেলা  চেয়ারম্যান, মেয়র, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানরা ব্যস্ত নিজেদের নিয়ে। এমপি-মন্ত্রীরা সেভাবে এলাকায় নজর দেন না। সারা দেশ মিলিয়ে ৫০ জনের বেশি এমপি সক্রিয় নন। খুব কম মন্ত্রীই এলাকায় যান। অনেক মন্ত্রী-এমপির বাড়ির দরজা নেতা-কর্মীদের জন্য বন্ধ। করোনার পর এ দূরত্ব আরও বেড়েছে। এদিকে ৩৭১টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ১ হাজার ৭৫২ প্রার্থীর মধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী ১ হাজার ৯৯ জন। তাদের বেশির ভাগই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী। নৌকা নিয়ে টানাপোড়েনে বিদ্রোহের ছড়াছড়ি চলছে। মাঠে-ময়দানে মানছেন না কেউ কাউকে। অনেক এলাকায় নৌকা ডোবাতে এমপিরাও থাকেন তৎপর। সর্বশেষ কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার উপনির্বাচনে স্থানীয় এমপি প্রকাশ্যেই ছিলেন বিএনপি প্রার্থীর পক্ষে। আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষ থেকে  কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে মৌখিক ও লিখিতভাবে অভিযোগ জমা দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্র এ ব্যাপারে আদৌ কোনো ব্যবস্থা নেবে কি না কেউ জানে না। সেই সময় নৌকার প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় অংশ নিতে গিয়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেনসহ কেন্দ্রীয় নেতারা গুলি ও বোমার মুখে পড়েছিলেন। তারপরও ব্যবস্থা নেওয়ার কেউ নেই। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, সারা দেশে দলের নেতারা ব্যস্ত ব্যবসা-বাণিজ্য নিয়ে। মাঠে-ময়দানে নিয়োগ, টিআর, কাবিখা ও উন্নয়ন কাজের টেন্ডারে প্রভাবশালীরা জড়িয়ে পড়ছেন। অবাধে হচ্ছে নিয়োগ বাণিজ্য। সবাই সবকিছুই জানেন। কিন্তু দেখার কেউ নেই।

আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র জানায়, সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়ে চেইন অব কমান্ড ফিরিয়ে না আনলে আওয়ামী লীগকে সংকটে পড়তে হবে। বর্তমানে ঢাকা ও রাজশাহী বিভাগে দলের মাঠ পর্যায়ের সম্মেলন ও সাংগঠনিক বৈঠক মাঝেমধ্যে হচ্ছে। সেসব বৈঠকে নেতারা নিজেদের বিরুদ্ধে নিজেরা বক্তব্য রাখছেন। বর্তমানে আওয়ামী লীগের রাজশাহী বিভাগে সম্মেলন সবচেয়ে বেশি হচ্ছে। অন্য বিভাগগুলোর সাংগঠনিক তৎপরতা খুবই কম। অনেক জেলা-উপজেলায় সম্মেলন অনুষ্ঠানের কোনো তৎপরতাই নেই। সম্প্রতি পাবনা জেলার দুটি উপজেলা সম্মেলন করা হলেও নেতা নির্বাচনে স্থানীয় এমপিকে ‘ভাগ’ দিতে হবে- এই শর্তে আটকে আছে নেতৃত্ব দেওয়ার ঘোষণা। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এ প্রক্রিয়ার পক্ষে নন স্থানীয় প্রভাবশালী নেতা ও দলীয় সংসদ সদস্যরা। রাজশাহী বিভাগে একটি উপজেলায় সম্মেলনকে ঘিরে স্থানীয় এমপিসহ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সম্ভাব্য সভাপতিকে ঠেকাতে মরিয়া হয়ে উঠেছিলেন। নিজের পছন্দমতো প্রার্থীকে বিজয়ী করতে সব ধরনের তৎপরতাও চালিয়েছেন তিনি।

স্থানীয়রা বলছেন, নিজের অনুসারীদের জায়গা দিতে সম্মেলনের মাধ্যমে নেতা নির্বাচন প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অপচেষ্টা চালাচ্ছেন তারা। এতে তৃণমূলকে ঢেলে সাজানোর সাংগঠনিক লক্ষ্যমাত্রা বাধাগ্রস্ত হচ্ছে বলে মনে করছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা। মূল দলের পাশাপাশি সহযোগী সংগঠনগুলোর কার্যক্রমে স্থবিরতা চলছে। যুবলীগের তুলনায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ এখন অনেক বেশি সক্রিয়। থমকে দাঁড়িয়েছে যুবলীগের কার্যক্রম। ক্যাসিনোকাে র পর সম্মেলনের মাধ্যমে গঠিত যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে অনেক বিতর্কিতের অনুপ্রবেশ সংগঠনকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। বিএনপি থেকে আগতরাও পেয়েছে গুরুত্বপূর্ণ পদ-পদবি। এর বিপরীতে কর্মতৎপরতা কম হলেও ছাত্রলীগ চেষ্টা করছে ইমেজ ফিরিয়ে আনতে। কিন্তু মাঠে-ময়দানে কর্মতৎপরতা কমে গেছে। 

আওয়ামী লীগের রাজনীতি সম্পর্কে বোঝেন এমন একজন বিশ্লেষকের মতে, ক্ষমতাসীন দলে সব সময় একটা সংকট লেগেই থাকে। ক্ষমতার ভাগাভাগি নিয়ে কেন্দ্র থেকে তৃণমূলে চলে লড়াই। এ লড়াই করতে গিয়ে কেউ কাউকে মানেন না। বর্তমান পরিস্থিতি অব্যাহত থাকলে আগামীতে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলোকে বিপর্যয়ে পড়তে হতে পারে।  ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে এখন তৃণমূলে শুরু হয়েছে অভ্যন্তরীণ কোন্দল। দীর্ঘদিন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকায় আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতা-কর্মীরা মনে করছেন, স্থানীয় সরকারে কোনো একটি নির্বাচনে জয়ী হতে পারলে বা দলের যে কোনো পর্যায়ে একটি পদ পেলেই সুযোগ-সুবিধার রাস্তা প্রশস্ত হয়। এখন যারা এই পদে আছেন, অন্যরা মনে করছেন তারাও তো এই পদে যেতে পারেন। এ কারণে তাদের মধ্যে এক ধরনের প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। সেই প্রতিযোগিতা সংঘাত থেকে হানাহানিতে রূপ নিচ্ছে। পাশাপাশি রাজনৈতিক মাঠে তো বিরোধী দলের শূন্যতা আছে। ফলে অর্থশালী হতে তৃণমূল নেতারা প্রতিযোগিতায় নেমেছেন। অর্থবিত্তের কারণে দলের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতারা পিছিয়ে পড়ছেন মনোনয়ন পাওয়ার ক্ষেত্রেও। প্রথম ধাপের ইউনিয়ন নির্বাচনেও মনোনয়নের জন্য সুপারিশ করা হয়েছে রাজাকার পরিবারের সন্তান, বিগত সময়ের বিদ্রোহী, ব্যাংক কর্মকর্তাসহ নানা ধরনের ব্যক্তিকে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগের এক প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেন, এখন একটা ট্রেন্ড হয়ে গেছে এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যান বা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক তাদের ভাগিনা-ভাতিজাকে ক্ষমতায় আনতে চান। নিজেদের শক্তি বাড়াতে প্রয়োজনে বাড়ির চাকরকেও (কাজের লোক) ক্ষমতায় বসাতে চান। এটা দলের জন্য, গণতন্ত্রের জন্য, নির্বাচনের জন্য এবং শক্তিশালী স্থানীয় সরকার গঠনের ক্ষেত্রেও একটি অশুভ সংবাদ ও অশুভ পদক্ষেপ। যে কারণে দলে চেইন অব কমান্ড ভেঙে পড়ার উপক্রম হয়েছে। তবে আমরা চেষ্টা করছি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে। এ প্রসঙ্গে কলামিস্ট ও গবেষক মহিউদ্দিন আহমদের মন্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, সরকার দলনির্ভর নয়, সরকার রাষ্ট্রনির্ভর। দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের নিজেই বলেছেন, ‘এই দলের শেখ হাসিনা ছাড়া কেউই অপরিহার্য নয়’। আর দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা একবার বলেছিলেন, ‘এই দলে আমাকে ছাড়া সবাইকে কেনা যায়’। সে কারণে এই দল নিয়ে আমার মন্তব্য নিষ্প্রয়োজন। সূত্রমতে, ২০১৪ সালের নির্বাচনের পর এমপিদের সঙ্গে কর্মীদের দূরত্ব বাড়তে থাকে। এ প্রক্রিয়া ২০১৮ সালের পরও চলমান রয়েছে। বিশেষ করে যারা প্রথমবারের মতো এমপি নির্বাচিত হয়েছেন তাঁরা নিজস্ব বলয় সৃষ্টি করছেন। এ জন্য জামায়াত-শিবির-বিএনপির ক্যাডার এমনকি আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীকে হত্যার অভিযুক্তদেরও দলে ভিড়িয়েছেন। জেলা-উপজেলায় এখন চলছে এমপি লীগ বনাম আওয়ামী লীগ। দলীয় কার্যালয় দখল নিয়েও সাবেক এমপি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সিনিয়র নেতা ও বর্তমান এমপি গ্রুপের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা দেশব্যাপী আলোচনার জন্ম দিয়েছে। তৃণমূলে কেউ কাউকে মানতে নারাজ। বিশৃঙ্খলা এখন চরম মাত্রায়। এখনই সব শক্ত হাতে দমন করতে না পারলে ভবিষ্যতে আওয়ামী লীগকে বড় ধরনের মাশুল দিতে হবে বলে মনে করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।