শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৭ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৬ আগস্ট, ২০২১ ২৩:২১

জীবিকা সংকটে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত

শফিকুল ইসলাম সোহাগ

জীবিকা সংকটে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত
Google News

ভোলা থেকে নদী ভাঙনের শিকার হয়ে তিন বছর আগে ভাগ্য বদলের আশায় সপরিবার ঢাকায় এসেছিলেন আবদুল হক। থাকেন মধ্য বাসাবোয়। আবদুল হক বলেন, ‘সিএনজি চালিয়ে ভালোই চলছিল জীবন। লকডাউনের কারণে দেড় বছর ধরে কার্যত বন্ধ আয়-উপার্জন। পরিবার নিয়ে খুবই কষ্টে আছি।’ বাসাবোয় ফ্ল্যাট বাসায় পরিবার নিয়ে থাকেন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকুরে মমিন সরকার। করোনায় কাজ হারিয়ে কয়েক মাসের বাসা ভাড়া বকেয়া। তিনি বলেন, ‘পরিবারের সদস্যদের মুখে খাবার তুলে দিতে পারছি না। কী করব ভেবে পাচ্ছি না।’ লকডাউনে আবদুল হক, মমিন সরকারের মতো নিম্ন ও মধ্যবিত্ত বহু মানুষ জীবিকার সংকটে নাস্তানাবুদ।

বিশিষ্টজনেরা বলছেন, এর আগে যত দুর্ভিক্ষ, বন্যা, খরা বা প্রাকৃতিক দুর্যোগ এসেছে তার প্রতিটির একেকটি মাত্রা ছিল। কিন্তু এবারেরটা একেবারেই ভিন্ন। এটা বহুমাত্রিক সংকট তৈরি করছে। একদিকে মানুষ শঙ্কায় রয়েছে- কে কখন আক্রান্ত হবে, আক্রান্ত হলে চিকিৎসা পাবে কি না। অন্যদিকে রোজগারের নেই পথ। থাকলেও আয় গেছে কমে। জীবন চলবে কীভাবে? অর্থনীতিবিদ ড. আবু ইউসুফ বলেন, ‘লকডাউনের শুরুতে সরকার প্রায় ২৩টি ভর্তুকি প্যাকেজ দিয়েছিল। পরে আরও পাঁচটি প্যাকেজ দেয় যা শুধু নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য। কিন্তু তার কতটা একেবারের প্রান্তিক পর্যায়ে নিম্ন আয়ের মানুষের হাতে গেছে তা নিশ্চিত নই।’ সরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান বিআইডিএস বলছে, করোনার আঘাতে অন্তত ১ কোটি ৬০ লাখ মানুষ নতুন করে দারিদ্র্যসীমার নিচে চলে গেছে। আর বেসরকারি গবেষণা সংস্থা ব্র্যাক ও পিপিআরসি বলছে, আগে দেশে দরিদ্র ছিল ২০ শতাংশ। এখন হয়েছে ২৫ শতাংশ। আগামী দিনে এ হার আরও বাড়বে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সর্বশেষ খানা জরিপ অনুযায়ী করোনার আগে দেশের মোট জনগোষ্ঠীর ২০.৫ ভাগ দারিদ্র্যসীমার নিচে ছিল। চরম দরিদ্র ছিল ১০ ভাগ। মহামারীর কারণে এখন তা দ্বিগুণ হয়েছে। বিভিন্ন বেসরকারি গবেষণা সংস্থা বলছে, দেশের ১৬ কোটি মানুষের ৪ কোটি পরিবারের মধ্যে নিম্নবিত্ত ২০ ভাগ আর উচ্চবিত্ত ২০ ভাগ। আর ৬০ ভাগ হলো নিম্নমধ্য ও উচ্চমধ্যবিত্ত। এ সংখ্যা আড়াই কোটি পরিবার। এর মধ্যে সরকারি চাকরিজীবী, বহুজাতিক ও বড় কোম্পানিতে কর্মরত মানুষ বাদে সবাই এখন চরম আর্থিক সংকটে। চাকরি হারানোর ঝুঁকিতে আছে এর বড় একটা অংশ। আবার অনেকে নিয়মিত বেতন পান না, বন্ধ রয়েছে অনেক প্রতিষ্ঠানও। দৈনিক হিসাবে কাজ করেন তার বেশির ভাগই এখন কর্মহীন। একই সঙ্গে অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের কর্মজীবী মানুষ তো আরও বেশি কষ্টে আছেন। সংকট আরও বেশি তাদের।

এদিকে বাধ্য হয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বিকল্প কাজের সন্ধানে বেরোচ্ছেন মানুষ। অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের মানুষের সঙ্গে সবচেয়ে বেশি কষ্টে আছেন নগরদরিদ্ররা। টিকতে না পেরে ঢাকা ছেড়েছেন অনেকেই, এখনো ছাড়ছেন। লকডাউন চলায় বেড়ে চলেছে যাতায়াত ও চিকিৎসা ব্যয়। সব মিলিয়ে আয়-ব্যয়ের অনিশ্চিত যুদ্ধে অবতীর্ণ নিম্ন ও মধ্যবিত্তরা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, লকডাউনের কারণে কাজের ক্ষেত্র সংকুচিত হয়ে সংকটে পড়েছে মধ্যবিত্ত ও স্বল্প আয়ের মানুষ। এ অবস্থার মধ্যেও মানুষের চিকিৎসা, পরিবহনসহ বিভিন্ন ব্যয় দিন দিন বেড়েই চলেছে। আর্থিক চাপ সামাল দিতে গিয়ে অনেকের সঞ্চয় শেষ হয়ে গেছে বহু আগেই। ফলে ধারদেনা করেও পরিস্থিতি সামলে উঠতে না পেরে অনেকে রাজধানীসহ শহর ছাড়তে বাধ্য হচ্ছে। আবার গ্রামে গিয়েও অনেকে পড়ছে নতুন সংকটে। কর্মহীন অবস্থায়ও প্রতিদিন যেভাবে তাদের ব্যয় বেড়ে চলেছে তাতে কীভাবে পরিস্থিতি সামাল দেবে তা ভেবে পাচ্ছে না। কবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে সেদিকেই তাকিয়ে আছে মানুষ। এদিকে শহরাঞ্চলের সীমিত ও নিম্ন আয়ের মানুষের বড় দুশ্চিন্তার বিষয় হলো বাসা ভাড়া। এ ছাড়া পাঁচটি মৌলিক চাহিদার চারটি নিয়েও চিন্তিত তারা। এ অবস্থায় জীবনযাত্রার ব্যয় মেটাতে চরম বিপাকে পড়েছে সাধারণ মানুষ। মোট কথা, এখন মধ্যবিত্ত ও শ্রমজীবী মানুষের চরম দুর্দিন চলছে। লকডাউনের কারণে নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও খাবার ও বাসা ভাড়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছে তারা। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে নিম্নবিত্তরা সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন সাহায্য-সহযোগিতা পেলেও মধ্যবিত্তের বড় একটি অংশ এখন অসহায়। এ অচলাবস্থা দীর্ঘায়িত হলে তারা আরও বিপদে পড়বে। করোনায় দেশে বিপুলসংখ্যক মানুষের জীবনমান নিচে নেমে গেছে। গত বছর ব্যবসা-বাণিজ্যের যে ক্ষতি হয়েছে তা এখনো কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়নি। এর মধ্যে দ্বিতীয় ঢেউয়ে ব্যবসা-বাণিজ্য স্থবির। এ অবস্থায় আমদানি-রপ্তানি পরিস্থিতি কীভাবে স্বাভাবিক করে তোলা যায় তা নিয়ে সবাই ভাবছে। যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে এবং সহমর্মিতার হাত বাড়াতে হবে। সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতা বাড়াতে হবে এবং সুষ্ঠু বণ্টন নিশ্চিত করতে হবে। সীমিত আয়ের মানুষের জীবনমান উন্নয়নে সরকারকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। অর্থনীতির গতি ফেরাতে বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির জন্য নিতে হবে বিশেষ পদক্ষেপ। এ ছাড়া সংশ্লিষ্ট সবাইকে হতে হবে দায়িত্বশীল ও সহমর্মী।

এ প্রসঙ্গে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান পিপিআরসির নির্বাহী চেয়ারম্যান অর্থনীতিবিদ হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, ‘করোনার প্রভাবে বেশির ভাগ মানুষেরই আয় কমেছে। লকডাউনের প্রথম দিকের সময়ে মানুষ ধারকর্জ করেছে বা সঞ্চয় ভেঙে জীবন চালিয়েছে। এখন কিন্তু সে অবস্থাও নেই। মানুষ বাধ্য হয়ে খাবার কম খাচ্ছে।’ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান জানিয়েছেন, কোনো মধ্যবিত্ত খাদ্য সংকটে থাকলে ৩৩৩ নম্বরে কল দিলেই পৌঁছে যাবে খাদ্য।

এই বিভাগের আরও খবর