মঙ্গলবার, ৯ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

সরকারের উচিত সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করা

ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ

নিজস্ব প্রতিবেদক

সরকারের উচিত সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করা

এই মুুহুর্তে জ্বালানির দাম বৃদ্ধি মোটেও সমীচীন হয়নি। কভিড-১৯ পরিস্থিতির কারণে এমনিতেই দেশের অর্থনীতি এখন বিপর্যস্ত। বহু মানুষ কর্মহীন। বেশির ভাগ মানুষের আয় কমে গেছে। ফলে এ সময় এ ধরনের সিদ্ধান্ত বিপর্যস্ত অর্থনীতির ওপর আরও চাপ বাড়াবে। প্রথমে আমি বলব এই মুহূর্তে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো একটা অবিবেচক সিদ্ধান্ত। আবার পরিবহনের ভাড়া বাড়িয়ে খরচাপাতি ঊর্ধ্বমুখিতাকে উসকে দেওয়া হলো বলে মনে করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ। তিনি আরও মনে করেন, সরকারের উচিত এই সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করা। গতকাল এক প্রতিক্রিয়ায় বাংলাদেশ প্রতিদিনকে তিনি এসব কথা বলেন। দেশবরেণ্য এই অর্থনীতিবিদ বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি কোনো একক পণ্যের দাম বৃদ্ধি নয়। শুধু পরিবহনই নয়, এটার বহুমুখী প্রভাব রয়েছে এবং পুরোটাই নেতিবাচক প্রভাব। এই যেমন কারখানার উৎপাদন খরচ বাড়বে। পরিবহন ভাড়া বাড়বে। বাসা বাড়িতে জেনারেটর চলে, সেখানেও খরচ বাড়বে। বিশেষ করে কৃষি ক্ষেত্রে সেচ দিতে ডিজেলের প্রয়োজন হয়। কৃষকেরও উৎপাদন খরচ বাড়বে। আমরা তো এমনিতেই কৃষকের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্য মূল্য দিতে পারি না। সেখানে খরচ আরও বাড়িয়ে দিলাম। আবার পণ্য পরিবহনেও খরচ বাড়বে। এমন কি সমুদ্রপথে জাহাজে পণ্য আসে সেখানেও খরচ বাড়বে। ফলে এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আরও ভাবা উচিত ছিল। এটা একটা অপরিপক্ব সিদ্ধান্ত। এই সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করা উচিত। এখনো সরকারের হাতে সময় আছে, এটা পুনর্বিবেচনা করার মতো। সরকারের উচিত ছিল আরও অন্তত ছয় মাস কিছুটা ভর্তুকি দিয়ে চালানো। কারণ বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) তো আগে অনেক লাভ করেছে। আবার সেই লাভের টাকা সরকার অন্যত্র খরচ করেছে। সেটা করতেই পারে। কিন্তু বিপিসির উচিত ছিল একটা আপৎকালীন তহবিল করা। তাহলে এখন আর এই সংকটে পড়তে হতো না। বিপিসি নিজেই ভর্তুকি দিতে পারত। সরকার বলছে, আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়েছে ফলে এখানে সমন্বয় করা হয়েছে সেটা মানলাম কিন্তু এখন দাম না বাড়িয়ে আরও কিছুদিন সময় নেওয়া উচিত ছিল। আবার বলা হচ্ছে, পাচার হয়ে যায়। তাহলে পাচার ঠেকান। পাচার রোধ করা সরকারের দায়িত্ব। সেটা না ঠেকিয়ে দাম বাড়ানো হলো- এটাও ঠিক হয়নি। এটা একটা অদ্ভুত যুক্তি। সব মিলিয়ে এটা একটা অবিবেচক এবং অপরিপক্ব সিদ্ধান্ত। প্রয়োজনে বিপিসির ওপর যে ভ্যাট, ট্যাক্স ও ডিউটি আছে সেটাও কমিয়ে দেওয়া যেতে পারে। অযথা মানুষকে কষ্ট দেওয়া উচিত নয়। কেননা এটার প্রভাব তো সামগ্রিক অর্থনীতিতে পড়বেই। ফলে এখনো সময় আছে এটা রিভিউ করা উচিত বলে তিনি মনে করেন।

 

সর্বশেষ খবর