শিরোনাম
শুক্রবার, ২৬ জানুয়ারি, ২০২৪ ০০:০০ টা

মানবাধিকার নিশ্চিতের আহ্বান জাতিসংঘের ৯ বিশেষজ্ঞের

নিজস্ব প্রতিবেদক

আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার যখন টানা চতুর্থ মেয়াদ শুরু করেছে, তখন জাতিসংঘের নয়জন স্বতন্ত্র বিশেষজ্ঞ সরকারকে দেশে দমনমূলক প্রবণতা বন্ধ এবং রাজনৈতিক সংলাপ ও অংশগ্রহণমূলক ব্যবস্থা পুনঃপ্রতিষ্ঠায় মানবাধিকারের বড় সংস্কার করার আহ্বান জানিয়েছেন। একই সঙ্গে মানবাধিকার ও আইনের শাসনকে শক্তিশালী করতে বাংলাদেশ সরকারকে সমর্থন ও পরামর্শ দিতে প্রস্তুত আছেন বলেও জানান তারা। গত বুধবার জেনেভায় জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক দফতরের এক বিবৃতিতে এ আহ্বান জানানো হয়। এতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি কোনো অভিযোগ ছাড়াই বা আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনের সঙ্গে সংগতিপূর্ণ নয়- এমন অভিযোগে আটক করা সব নাগরিক ও রাজনৈতিক কর্মীকে অবিলম্বে ও নিঃশর্ত মুক্তি; ফৌজদারি অপরাধের জন্য অভিযুক্ত ব্যক্তিদের আন্তর্জাতিক মানবাধিকার মান অনুযায়ী ন্যায্যবিচার নিশ্চিত করা; বিচারব্যবস্থার অখণ্ডতা ও স্বাধীনতা নিশ্চিত করা এবং মতপ্রকাশের স্বাধীনতা, শান্তিপূর্ণ সমাবেশ ও রাজনৈতিক সমাবেশের ওপর অযথা বিধিনিষেধ আরোপ থেকে বিরত থাকতে আহ্বান জানানো হয়েছে।

এ ছাড়া বিবৃতিতে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা, বৈচিত্র্য ও বহুত্ববাদকে সম্মান করার এবং অনুসন্ধানী ও সমালোচনামূলক প্রতিবেদনের জন্য হুমকি, সহিংসতা বা বিচারিক হয়রানি এবং ফৌজদারি বিচার থেকে সাংবাদিকদের সুরক্ষা নিশ্চিত করার আহ্বান জানানো হয়।

বিবৃতিতে স্বাক্ষরকারী স্বতন্ত্র বিশেষজ্ঞরা হলেন- ‘শান্তিপূর্ণ সমাবেশ ও সমবেত হওয়ার স্বাধীনতার অধিকার সম্পর্কিত স্পেশাল র‌্যাপোর্টিয়ার’ ক্লেমেন্ট নাইলেতসোসি ভউল, ‘বিচারক ও আইনজীবীদের স্বাধীনতাবিষয়ক স্পেশাল র‌্যাপোর্টিয়ার’ মার্গারেট স্যাটারথওয়েট, ‘মানবাধিকার রক্ষকদের পরিস্থিতিবিষয়ক স্পেশাল র‌্যাপোর্টিয়ার’ মেরি ললর, ‘মতপ্রকাশের স্বাধীনতার সুরক্ষা ও প্রচারবিষয়ক স্পেশাল র‌্যাপোর্টিয়ার’ আইরিন খান, ‘নির্বিচারে আটকবিষয়ক ওয়ার্কিং গ্রুপের সভাপতি ও স্পেশাল র‌্যাপোর্টিয়ার’ প্রিয়া গোপালন, ‘স্পেশাল র‌্যাপোর্টিয়ার’ ম্যাথিউ গিলেট, গান্না ইউডকিভস্কা, মরিয়ম এস্ট্রাডা-কাস্টিলো এবং মুম্বা মালিলা।

সর্বশেষ খবর