শিরোনাম
প্রকাশ : ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৩:১৩
প্রিন্ট করুন printer

ক্ষোভে ফুঁসছে মিয়ানমার

অনলাইন ডেস্ক

ক্ষোভে ফুঁসছে মিয়ানমার

আরও এক বার দেশজুড়ে ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করেছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। কিন্তু মায়ানমারে গণতন্ত্রকামীদের আন্দোলন তাতে থামেনি। উল্টে আজ তা আরও বড় আকার নিয়েছে।

চলতি মাসের শুরুর দিকে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে নির্বাচিত সরকারকে সরিয়ে দেশ শাসনের ভার নিজের হাতে তুলে নিয়েছে সেনাবাহিনী। শুরুতে মূলত সমাজমাধ্যমে গণবিক্ষোভ ঠেকাতে দেশে ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দিয়েছিল সেনা। প্রবল সমালোচনার জেরে পরে তা চালু করা হয়। আজও ফের সেই রাস্তায় হেঁটেছেন সেনা কর্মকর্তারা। 

সকাল থেকেই বিভিন্ন শহরে বন্ধ করে দেয়া হয় ইন্টারনেট পরিষেবা। আজকের ঘটনায় সেনার প্রতি সাধারণ মানুষের ক্ষোভ আরও বেড়েছে। গত কয়েক দিন ধরেই বিক্ষোভের মূল কেন্দ্রবিন্দু ছিল ইয়াঙ্গন ও তার আশপাশের শহরগুলো। নেট পরিষেবা বন্ধ করার আগের মুহূর্ত পর্যন্ত সমাজমাধ্যমের লাইভ স্ট্রিমিংয়ে দেখা গেছে বিশাল বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে এখানে। রাস্তায় চলছে সেনার সাঁজোয়া গাড়ি।

গণমাধ্যমকর্মীরা জানিয়েছেন, গতকাল ইয়াঙ্গনের উত্তরে মেকিনা শহরে বিক্ষোভকারীদের হটাতে প্রথমে কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে পুলিশ। পরে গুলিও চলে। সেনা অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে পথে নামার জন্য ৪০০ জনকে আটক করেছে পুলিশ। সেনার নির্দেশ উপেক্ষা করে আজ ইয়াঙ্গনের উত্তরে বিক্ষোভ দেখান হাজার হাজার ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্র-ছাত্রী। ধরপাকড় চলছে সাংবাদিকদের উপরেও।

মিয়ানমারের নাগরিকদের শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদের অধিকার যাতে কেড়ে না নেয়া হয়, তার জন্য সেনাকে আরও এক বার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিয়ো গুতেরেস। সেনাবাহিনী যাতে কোনও ভাবেই সংঘর্ষে না জড়ায় সেই আর্জি জানিয়েছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, ব্রিটেন, আমেরিকার মতো দেশগুলোর প্রতিনিধিরাও। 

কারফিউ উপেক্ষা করে তাদের দেশটির নাগরিকেরা যাতে রাস্তায় না বের হয়, সেই আর্জি জানিয়েছে আমেরিকার সরকার। মিয়ানমারে জাতিসংঘের প্রতিনিধি টম অ্যানড্রুজ সেনা কর্তাদের হুঁশিয়ারি দিয়ে টুইটারে লিখেছেন, ‘সব কিছুর জন্য আপনাদেরই দায়ী করা হবে’। 

এদিকে, আজই শেষ হচ্ছে এনএলডি নেত্রী সুচি-র গৃহবন্দিত্বের মেয়াদ। তাকে আজ মুক্তি দেওয়া হবে কি না নিশ্চয়তা নেই।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর