৯ নভেম্বর, ২০২২ ২০:১২

যেসব শর্তে বাংলাদেশকে ঋণ দিচ্ছে আইএমএফ

অনলাইন ডেস্ক

যেসব শর্তে বাংলাদেশকে ঋণ দিচ্ছে আইএমএফ

বাংলাদেশকে ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ দিতে প্রাথমিক সম্মতি দিয়েছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)। এ বিষয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে আইএমএফ প্রতিনিধি দলের সমঝোতা হয়েছে। আইএমএফের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ঋণের ব্যাপারে  বাংলাদেশের সঙ্গে স্টাফ লেভেলে সমঝোতা হয়েছে আইএমএফের। একে ওই ঋণের ব্যাপারে আইএমএফের গ্রিন সিগন্যাল বলা হয়।

যখন কোন দেশ আইএমএফের কাছে ঋণ চেয়ে থাকে, তখন প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বিশেষজ্ঞদের একটি দল সেদেশ পরিদর্শন ও নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে আলোচনা করে। সাধারণত এই সফরের সময় ঋণ প্রাপ্তির জন্য অর্থনৈতিক সংস্কারের বেশ কিছু শর্তও দেয়া হয়। 

যেসব শর্ত দিয়েছে আইএমএফ :

১. রাজস্ব বাড়ানো এবং যৌক্তিক ব্যয় ব্যবস্থা চালু করা। বিশেষ করে প্রবৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখার বিষয়টি বিবেচনায় রেখে ব্যয় নির্ধারণ করতে হবে। যারা নাজুক অবস্থায় থাকবে, সেসব খাত লক্ষ্য করে সুনির্দিষ্ট সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচি নেওয়া।

২. মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ এবং আধুনিক মুদ্রানীতি তৈরি করা। সেই সঙ্গে মুদ্রা বিনিময় হার আরও নমনীয় করে তোলা। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারবে আধুনিক মুদ্রানীতি।

৩. আর্থিক খাতের দুর্বলতা দূর করা, নজরদারি বাড়ানো, সরকার ও নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের আওতা বৃদ্ধির পাশাপাশি পুঁজিবাজারের উন্নয়ন করা।

৪. বাণিজ্য ও বৈদেশিক বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে পরিবেশে তৈরি, মানব দক্ষতা বৃদ্ধি, আর্থিক খাতে সুশাসন নিশ্চিত করে ব্যবসায়িক পরিবেশ উন্নত করা।

৫. জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতি কাটাতে প্রতিষ্ঠানগুলোকে শক্তিশালী করে তোলা, পরিবেশের উন্নতির পদক্ষেপ নেয়া এবং জলবায়ু সংক্রান্ত খাতে আরও বিনিয়োগ ও আর্থিক সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে।

এদিকে, আইএমএফের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, ‘আমরা যেভাবে চেয়েছিলাম আইএমএফ সেভাবেই আমাদের ঋণ দিচ্ছে।’ তিনি বলেন, ‘আইএমএফ তিন মাসের মধ্যে এই ঋণের আনুষ্ঠানিকতা চূড়ান্ত করবে। ঋণের প্রথম কিস্তি আসবে ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে। সাত কিস্তিতে ২০২৬ পর্যন্ত এ ঋণ আসবে।’ অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, ‘আইএমএফের ঋণের সুদহার হবে বাজারদর অনুযায়ী। তাতে গড় সুদহার হবে ২ দশমিক ২ শতাংশ।’

সূত্র : বিবিসি বাংলা।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর