শিরোনাম
২ জানুয়ারি, ২০২৪ ১৪:০৭

নিষেধাজ্ঞা দিয়েও রাশিয়ার কাছে যা কিনতে বাধ্য হচ্ছে পশ্চিমারা

অনলাইন ডেস্ক

নিষেধাজ্ঞা দিয়েও রাশিয়ার কাছে যা কিনতে বাধ্য হচ্ছে পশ্চিমারা

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন (ফাইল ছবি)

বিকল্প জ্বালানি হিসেবে পরমাণু বিদ্যুতের কদর দিন দিন বিশ্বব্যাপী বেড়েই চলেছে। ফলে ইউক্রেনে হামলার কারণে নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও রাশিয়ার কাছ থেকে ইউরেনিয়াম কিনতে বাধ্য হচ্ছে পশ্চিমা বিশ্ব।

সূর্য ও বাতাস অফুরন্ত জ্বালানির উৎস, যা কাজে লাগিয়ে পরিবেশবান্ধব বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যায়। তবে কোনও দেশের পক্ষে শুধু এই দুই উৎসের উপর পুরোপুরি নির্ভর করা কঠিন।

অনেক দশক ধরে পরমাণু বিদ্যুৎ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। গত কয়েক বছরে এই উৎস বাড়তি গুরুত্ব পেয়েছে। গোটা বিশ্বে নতুন পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র গড়ে তোলা হচ্ছে।

ফুয়েল রডের জন্য জীবাশ্মভিত্তিক উপাদান হিসেবে ইউরেনিয়ামের প্রয়োজন হয়। গোটা বিশ্বে এই ধাতুর চাহিদা বেড়েই চলেছে। কিন্তু কোন কোন দেশে ইউরেনিয়াম উত্তোলন করা হয়?

তালিকার শীর্ষে রয়েছে কাজাখস্তান। সেখানে বছরে ২১ হাজার টনেরও বেশি ইউরেনিয়াম উত্তোলন করা হয়। তার পরেই রয়েছে কানাডা, নামিবিয়া ও অস্ট্রেলিয়া। রাশিয়া তালিকায় ছয় নম্বরে রয়েছে। 

পরমাণু জ্বালানি উপদেষ্টা মাইকেল শ্নাইডার বলেন, “এখন বলা যেতে পারে যে, কাজাখস্তান রাশিয়ার প্রভাবের বলয়ে রয়েছে। ইউরোপের জন্য সেই প্রভাবের ক্ষেত্র গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ২০২২ সালে ইউরোপের প্রায় ৪৪ শতাংশ ইউরেনিয়াম রাশিয়া ও কাজাখস্তান থেকেই এসেছিল।”

এক্ষেত্রে শুধু ইউরেনিয়ামের ভাণ্ডার নয়, প্রযুক্তিও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ফুয়েল রড হিসেবে কাজে লাগাতে হলে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করতে হয়। প্রশ্ন হল, সমৃদ্ধ করা ইউরেনিয়াম কোথা থেকে আসে?

প্রায় ৪০ শতাংশ এনরিচড ইউরেনিয়াম উৎপাদন করে রাশিয়া তালিকার সবচেয়ে উপরে রয়েছে। তার ঠিক পরেই রয়েছে ফ্রান্স ও চীন। মোটকথা এ ক্ষেত্রে খুব বেশি প্রতিযোগিতা নেই। কোলোরাডো স্কুল অব মাইনসের আয়ান ল্যাংগে মনে করেন, “আপনি যদি ভাবেন, এটা কিছুটা ‘বিশ্ববাজারের' মতো। ধরুন আপনি রাশিয়া বা কাজাখস্তানের বদলে কানাডা থেকে কিনলেন। তাহলে এর অর্থ হল, অন্য কাউকে রাশিয়া বা কাজাখস্তানের কাছ থেকে কিনতে হবে, ঠিক তো? কিন্তু বাস্তবে সেটা হয় না। আপনি না কিনলে কিছুই বদলাবে না, সেটা ঠিক নয়। সেই সিদ্ধান্ত কোনও না কোনও অর্থে বাজারে পরিবর্তন আনে বৈকি।”

তবে ২০২২ সালে ইউক্রেনের উপর রাশিয়ার হামলার পর থেকে মস্কো অবাঞ্ছিত ব্যবসার সহযোগী হয়ে উঠেছে। তা সত্ত্বেও পশ্চিমা বিশ্ব রাশিয়া থেকে এনরিচড ইউরেনিয়ামের উপর নির্ভরশীল। রাশিয়াও তার জন্য মোটা অর্থ আদায় করে। ২০১৮ সাল থেকে ইউরেনিয়ামের মূল্য একশ’ শতাংশেরও বেশি বেড়ে গেছে।”

গত বছর শুধু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিদ্যুৎ কোম্পানিগুলো রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পরমাণু কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ১০০ কোটি ডলার মূল্যের ইউরেনিয়াম কিনেছে। তা সত্ত্বেও বিশ্ব বাজারে রাশিয়াই সবচেয়ে সস্তার বিকল্প। 

কলোরাডো স্কুল অব মাইনসের আয়ান ল্যাংগে বলেন, “আসলে ইউরেনিয়াম উৎপাদন না করে কাজাকস্তান বা রাশিয়া থেকে সেটা নিয়ে আসা অপেক্ষাকৃত সস্তা। এটা শুধু বাজারের প্রশ্ন নয়। ট্রাম্প প্রশাসনে ইউরেনিয়াম আমদানি সীমিত করার বিষয়ে বড় আলোচনা হয়েছিল। কিন্তু তার কোনও ফল পাওয়া যায়নি। কারণ বিদ্যুতের দাম কমে যাওয়ায় পরমাণু বিদ্যুৎ প্লান্টগুলো এমনিতেই চাপের মুখে পড়েছিল। গ্যাসের দাম কমে যাওয়ার ফলে সেই পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল। তারা বলেছিল, এবার আরও কম দামের ইউরেনিয়ামের জোগান বন্ধ করে দিলে প্রতিযোগিতার বাজারে টেকা সম্ভব হবে না, বন্ধ করে দিতে হবে।”

গোটা বিশ্বে আরও বেশি দেশ নতুন পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র চালু করার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। সে কারণে পরমাণু প্রযুক্তি রফতানি রাশিয়ার অর্থনীতির অন্যতম প্রধান স্তম্ভ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

১৯৯৯ সাল থেকে রাশিয়া যে মাত্রায় জ্বালানি প্রযুক্তি বিদেশে বিক্রি করেছে, তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, চীন, দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপানের সম্মিলিত অংকের চেয়েও বেশি।

পরমাণু জ্বালানি উপদেষ্টা মাইকেল শ্নাইডার জানান, “২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাস থেকে গোটাবিশ্বে ২৮টি পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে৷ তার মধ্যে ১৭টি চীনে গড়ে উঠছে। বাকি ১১টি রাশিয়ার রোসআটম সংস্থা বিভিন্ন দেশে তৈরি করছে।”

তার আগেও রোসআটম সক্রিয় ছিল। চীন, ভারত ও তুরস্কে তারা চারটি পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করেছে। মিশর, বাংলাদেশ ও ইরানেও এমন কেন্দ্র নির্মাণের কাজ চলছে। এমনকি ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশ স্লোভাকিয়ায়ও এই রুশ সংস্থা একটি কেন্দ্র তৈরি করছে।

ইউরোপীয় ও মার্কিন পরমাণু শিল্পক্ষেত্রও নতুন করে ভাবনাচিন্তা করছে। রাশিয়ার উপর থেকে নির্ভরতা কমানোই হল লক্ষ্য। কিন্তু সেই সম্পর্ক ছিন্ন করতে অনেক বছর সময় লাগবে। সূত্র: ডয়েচে ভেলে

বিডি প্রতিদিন/আজাদ

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর