শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:২৬

পাকিস্তানকে সিন্ধুর পানি বন্ধের ঘোষণা ভারতের

পাকিস্তানকে সিন্ধুর পানি বন্ধের ঘোষণা ভারতের

কাশ্মীরের পুলওয়ামা হামলার পরই পাকিস্তানকে দেওয়া মোস্ট ফেভার্ড নেশন (এমএফএন) মর্যাদা তুলে নিয়েছে ভারত। আমদানি শুল্ক বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে ২০০ শতাংশ। পাকিস্তানের ওপর চাপ বাড়ানোর পথে আরও এক ধাপ এগোল নয়াদিল্লি। বৃহস্পতিবারই কেন্ত্রীয় পানিসম্পদমন্ত্রী নিতিন গড়কড়ি হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, পাকিস্তানে তিনটি নদীর পানিপ্রবাহ বন্ধ করে দেওয়া হবে। গতকাল সেটাই আরও স্পষ্ট করে গড়কড়ি বললেন, তিন নদীর পানি বন্ধ করে ভারতের দিকে ঘুরিয়ে দেওয়ার জন্য সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা তৈরি করতে ইতিমধ্যেই মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেই অনুযায়ী কাজও শুরু হয়ে গেছে।  গড়কড়ি এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে আমরা ঠিক করেছি সিন্ধু নদ দিয়ে যে পানি পাকিস্তানে প্রবাহিত হতো তা বন্ধ করে দেওয়া হবে।’ উল্লেখ্য, ১৯৬০ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর বিশ্বব্যাংকের মধ্যস্ততায় করাচি শহরে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সিন্ধু পানি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। ভারতের পক্ষে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু এবং পাকিস্তানের পক্ষে প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খান চুক্তিটিতে স্বাক্ষর করেন। সিন্ধুর উপত্যকায় মোট ৬টি নদী রয়েছে। ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে তিনটিই ভারতের দিক থেকে পাকিস্তানে প্রবাহিত। এর মধ্যে পূর্ব দিকে রয়েছে ইরাবতী, শতদ্রু এবং বিপাশা। পশ্চিম দিকের তিনটি নদী হলো সিন্ধু, বিতস্তা এবং চন্দ্রভাগা। এই ছয়টি নদীর পানিবণ্টন নিয়েই ১৯৬০ সালে ওই চুক্তি হয়। এই চুক্তি অনুযায়ী, পশ্চিমের তিন নদী সিন্ধু, ঝিলম এবং চন্দ্রভাগার জল ব্যবহারের অধিকার পাকিস্তানের এবং ভারতীয় ভূখে  কোনোভাবেই ওই তিন নদীর প্রবাহে অন্তরায় বা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারবে না ভারত। অন্য দিকে পূর্ব দিকের ইরাবতী, শতদ্রু এবং বিপাশা নদীর জল ব্যবহারের অধিকার ভারতের।


আপনার মন্তব্য