Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০৮:১৫

ইমানের প্রতি অবিচল থাকা

মুহম্মাদ ওমর ফারুক

ইমানের প্রতি অবিচল থাকা

আল্লাহর প্রতি ইমান আনা এবং তাতে অবিচল থাকাই হলো ইসলামের চূড়ান্ত কথা। রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহকে রব, ইসলামকে দীন এবং আমাকে রসুল হিসেবে মেনে নিয়েছে, সে ইমানের স্বাদ পেয়েছে।’ হজরত ওমর ইবনুল খাত্তাব (রা.) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, ‘একদা আমরা রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে উপস্থিত ছিলাম। এমন সময় এক ব্যক্তি আমাদের সামনে উপস্থিত হলেন। তার পরিধেয় বস্ত্র ছিল ধবধবে সাদা এবং মাথার চুল কুচকুচে কালো। সফরের কোনো আলামতও তার মধ্যে দেখা যাচ্ছিল না এবং আমাদের মধ্যে কেউই তাকে চিনতে পারছিল না। অবশেষে তিনি রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে বসলেন এবং নিজের দুই হাঁটু তাঁর দুই হাঁটুর সঙ্গে ঠেকিয়ে এবং নিজের দুই হাত তাঁর দুই ঊরুর ওপর রেখে বললেন, হে মুহাম্মাদ! আমাকে ইসলাম সম্পর্কে অবহিত করুন। তিনি বললেন, ইসলাম হচ্ছেÑ তুমি সাক্ষ্য দেবে আল্লাহ ছাড়া কোনো ইলাহ নেই এবং মুহাম্মাদ আল্লাহর রসুল, নামাজ কায়েম করবে, জাকাত দেবে, রমজানে রোজা রাখবে এবং হজে যাওয়ার সামর্থ্য থাকলে হজ করবে। আগন্তুক বললেন, আপনি ঠিক বলেছেন। (ওমর বলেন), তার এ আচরণে আমরা বিস্মিত হলাম। তিনি রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে প্রশ্নও করছেন আবার তাঁর জবাব সমর্থন করছেন! পুনরায় তিনি বললেন, আমাকে ইমান সম্পর্কে অবহিত করুন। তিনি বললেন, (ইমান এই যে) আল্লাহ, তাঁর ফেরেস্তাকুল, তাঁর কিতাবসমুহ, তাঁর রসুলগণ, আখেরাতের দিনের প্রতি এবং তাকদিরের ভালো-মন্দের প্রতি ইমান আনা। আগন্তুক বললেন, আপনি সত্যিই বলেছেন। তিনি আবার বললেন, আমাকে ইহসান সম্পর্কে অবহিত করুন। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তুমি এমনভাবে আল্লাহর ইবাদত কর যেন তুমি তাঁকে দেখছ। যদি তুমি তাঁকে নাও দেখতে পাও তবে (মনে কর যে,) তিনি তোমাকে দেখছেন। আগন্তুক পুনরায় বললেন, আমাকে কিয়ামত সম্পর্কে অবহিত করুন। তিনি বললেন, ক্রীতদাসীরা তাদের মনিবকে প্রসব করবে এবং তুমি নগ্নপদ ও নগ্নদেহ গরিব মেষ চালকদের সুউচ্চ দালানকোঠা নির্মাণ করতে এবং তা নিয়ে গর্ব করতে দেখবে। (ওমর বলেন,) অতঃপর আগন্তুক চলে গেলেন এবং আমি দীর্ঘক্ষণ সেখানে কাটালাম। অতঃপর রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাকে বললেন, হে ওমর! তুমি কি জানো প্রশ্নকারী কে? আমি বললাম, আল্লাহ ও তাঁর রসুলই অধিক জানেন। তিনি বললেন, তিনি ছিলেন জিবরাইল (আ.)। তোমাদের দীন শিক্ষা দেওয়ার জন্য এসেছিলেন।’ বুখারি, মুসলিম, মিশকাত (কিতাবুল ইমান)।


আপনার মন্তব্য