শিরোনাম
প্রকাশ : ১৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১৩:২৬
প্রিন্ট করুন printer

জীবনে পাপাচারের প্রভাব

মাওলানা সেলিম হোসাইন আজাদী

জীবনে পাপাচারের প্রভাব

একসময় হয়তো নফসের তাড়না শেষ হয়ে যায় কিন্তু পাপ মানুষের সঙ্গে ওপারের জীবনেও সঙ্গী হয়। বিষ যেমন মানুষের শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর তেমন পাপও অন্তরের জন্য ক্ষতিকর। আমাদের জীবনে দুনিয়া ও আখিরাতের যত অকল্যাণ ও ব্যাধি রয়েছে তার মূলে গুনাহ ও পাপাচার। মোমিন বান্দাকে পাপের কুপ্রভাব সম্পর্কে সদাসতর্ক থাকতে হবে। কখনো প্রবৃত্তির অনুসরণ করে পাপ ও দুনিয়াবি বাহ্যিক চাকচিক্যের অতল গহ্বরে নিজেকে বিলীন করে দেওয়া যাবে না। কারণ পাপের কারণে রিজিক সংকুচিত হয়ে যায় আর জীবন হয় বরকতশূন্য। জ্ঞানের আলো থেকে বঞ্চিত হতে হয় পাপীকে। জমিনে বিপর্যয় সৃষ্টি হয় এ পাপের কারণেই, এ পাপই মানুষের লজ্জা-শরম কমিয়ে দেয় এবং পার্থিব অবস্থা দরিদ্র ও সংকটাপন্ন করে। পাপীদের জীবন হয়ে পড়ে নিরাপত্তাহীন। আল্লাহ, ফেরেশতা ও মানুষের কাছে ঘৃণিত হয়ে যায় পাপী। আল্লাহ ও বান্দার মাঝে দূরত্ব সৃষ্টি হয় এ পাপের কারণেই। পাপ মানুষের জীবনে যে বিপর্যয় সৃষ্টি করে তার বর্ণনায় রসুল (সা.) বলেন, চাটাই বুননের মতো এক এক করে ফিতনা মানুষের অন্তরে আসতে থাকে। যে অন্তরে তা গেঁথে যায় তাতে একটি করে কালো দাগ পড়ে। আর যে অন্তর তা প্রত্যাখ্যান করবে তাতে একটি উজ্জ্বল দাগ পড়বে। এমনি করে দুটি অন্তর দুই ধরনের হয়ে যায়। একটি সাদা পাথরের মতো, আসমান ও জমিন যত দিন থাকবে তত দিন কোনো ফিতনা তার কোনো ক্ষতি করতে পারে না। আর অন্যটি হয়ে যায় ওল্টানো সাদা মিশ্রিত কালো কলসির মতো, তার প্রবৃত্তির মধ্যে যা গেছে তা ছাড়া ভালো-মন্দ বলতে সে কিছুই চেনে না। আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘মানুষের কৃতকর্মের ফলে জলে-স্থলে বিপর্যয় দেখা দিয়েছে যাতে তিনি তাদের তাদের কিছু কর্মের শাস্তি আস্বাদন করান, যাতে তারা ফিরে আসে।’ সুরা রুম আয়াত ৪১। রসুল (সা.) বলেছেন, ‘লজ্জা ইমানের অঙ্গ’। সুতরাং পাপের ফলে যখন বান্দা লজ্জাহীন হয়ে যায় তখন তার ইমানটাও পঙ্গু হয়ে যায়। হাদিসে কুদসিতে রসুল (সা.) বলেছেন, ‘আল্লাহতায়ালা বলেন, হে আদমসন্তান! তুমি তোমার অন্তরকে আমার ইবাদতের জন্য খালি করে নাও, আমি তোমার অন্তরকে সচ্ছলতা দ্বারা ভরে দেব এবং তোমার অভাবের পথ বন্ধ করে দেব। অন্যথায় আমি তোমার হাতকে ব্যস্ততা দ্বারা ভরে দেব এবং তোমার অভাবের পথ কখনো বন্ধ করব না।’ আমরা জানি নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়ে পাপীর জীবন।

আবদুল্লাহ ইবনু ওমর (রা.) রসুল (সা.) থেকে বর্ণনা করেন, ‘সিলমোহর আরশের খুঁটির সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় থাকে। যদি কেউ শ্লীলতাহানি করে কিংবা আল্লাহর সঙ্গে ধৃষ্টতা দেখায় তাহলে আল্লাহতায়ালা সিলমোহরকে প্রেরণ করেন। সিলমোহর ওই ব্যক্তির অন্তরে সিল লাগিয়ে দেয়। এর ফলে সে কোনো কিছুই অনুধাবন করতে পারে না।’ বায়হাকি, শুয়াবুল ইমান। পরিশেষে বলতে চাই, আসুন আমরা তওবার আয়নায় অপলক তাকিয়ে পাপের কুৎসিত চেহারা দেখার চেষ্টা করি, পাপ কাজে হারিয়ে যাওয়া সময়গুলোর জন্য অনুতপ্ত হই এবং এ পথ চিরদিনের জন্য বন্ধ করে নেকের পথে হাঁটি। আল্লাহ আমাদের তৌফিক দান করুন।

লেখক : চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ মুফাস্সির সোসাইটি।

 

বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য