শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০১৬ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ জানুয়ারি, ২০১৬ ২৩:৩৫

তারেকের অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধান

হাওয়া ভবন কর্মচারীকে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও অর্থ পাচারের অভিযোগ অনুসন্ধানে হাওয়া ভবনের তৎকালীন কর্মচারী শামসুজোহা ফরহাদকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গতকাল দুদকের প্রধান কার্যালয়ে দুপুর ২টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা ও উপ-পরিচালক হারুনুর রশীদ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। দুদক সূত্র জানায়, ফরহাদের বিরুদ্ধে লন্ডনে তারেক রহমানের কাছে অর্থ পাচারের অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। প্রাথমিক অনুসন্ধানে শামসুজোহার নামে রাজধানীর বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংকের অ্যাকাউন্টে কয়েক কোটি টাকা থাকার তথ্য পাওয়া গেছে। শামসুজোহার পাসপোর্ট জব্দ ও দেশত্যাগের নিষেধাজ্ঞা জারি করে কমিশন থেকে বিভিন্ন দফতরে চিঠি দেওয়া হয়েছে। দুদক সূত্র জানায়, শামসুজোহা ফরহাদ বিএনপি সরকারের সময় ড্যান্ডি ডায়িংয়ে কাজ করার সুবাদে তারেক রহমানের সংস্পর্শে আসেন। হাওয়া ভবনের কর্মচারী হওয়ার সুবাদে রাতারাতি বাড়ি-গাড়ি, ব্যাংক-ব্যালেন্সসহ নামে-বেনামে বিপুল পরিমাণ সম্পদের মালিক হন। কোটিপতি শামসুজোহা বর্তমানে মিরপুর রূপনগরে ছয় তলাবিশিষ্ট নিজের বাড়িতে থাকেন। হাওয়া ভবনের ওই কর্মচারী তারেক রহমানের টাকায় কোটিপতি হয়েছেন। শামসুজোহার সব অর্থই মূলত তারেক রহমানের দেওয়া। বর্তমানে শামসুজোহার অর্থ দিয়েই তারেক রহমান লন্ডনে বিলাসবহুল জীবনযাপন করছেন— এমন তথ্য গতকালের জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া গেছে বলে সূত্র জানায়। দুদক আরও জানায়, অভিযোগ অনুসন্ধানে দেশে ও বিদেশে তারেক রহমানের নামে বিভিন্ন ব্যাংকে হিসাব আছে কিনা তা খতিয়ে  দেখা হবে। দুদক সূত্র জানায়, এর আগে গত ১১ জানুয়ারি শামসুজোহার কাছ থেকে প্রাথমিক স্টেটমেন্ট নেওয়া হয়। ওই সময় তিনি যাবতীয় ব্যাংক হিসাব কমিশনের অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তাকে দিতে পারেননি। এ জন্য তিনি এক সপ্তাহ সময় নিয়েছিলেন। সে অনুসারে গতকাল তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।


আপনার মন্তব্য