Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৭ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা
আপলোড : ৬ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৫৯

অষ্টম কলাম

দৌড়ে টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া

পঞ্চগড় প্রতিনিধি

দৌড়ে টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া

টেকনাফের নোয়াপাড়া পরিবেশ টাওয়ার থেকে যাত্রা শুরু করে তেঁতুলিয়ার বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্টে পৌঁছে ২০  দিনের সফল দৌড়ে বাংলাদেশ পাড়ি দিয়েছেন মোহাম্মদ শামসুজ্জামান আরাফাত। গত ১৫ ফেব্রুয়ারি শুরু করা এ অভিযাত্রায় তাকে এক হাজার চার কিলোমিটার পথ পাড়ি  দিতে হয়েছে।

দি গ্রেট বাংলাদেশ রান-রান ফর হেলদি বাংলাদেশ নামে প্রথম দৌড়ে বাংলাদেশ পাড়ি দিয়েছেন আরাফাত। গতকাল বিকালে তেঁতুলিয়া উপজেলাবাসীর পক্ষ থেকে চৌরাস্তার তেঁতুলতলার উন্মুক্ত মঞ্চে তাকে সংবর্ধনা জানানো হয়। এ সময় তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ  সানিউল  ফেরদৌস, উপজেলা চেয়ারম্যান রেজাউল করিম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী মাহমুদুর রহমান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার কাজী মাহবুবুর রহমান বক্তব্য দেন। আরাফাতের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট ও উপহার সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়। এর আগে গত সোমবার সকাল ১০.৪৫ মিনিটে বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্টে পৌঁছালে আরাফাতকে স্থানীয় স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা ফুলেল সংবর্ধনা জানায়। আরাফাত জানিয়েছেন, দৌড়ে তাকে বাংলাদেশ পাড়ি দেওয়ার সময় নানা প্রতিকূল অবস্থার সম্মুখীন হতে হয়েছে। হাঁটুতে ইনজুরি নিয়ে এই দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়েছেন। এ ছাড়া নির্মাণাধীন রাস্তায় দৌড়ানো  ছিল অনেক কষ্টসাধ্য। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা হয়ে দাঁড়ায় বঙ্গবন্ধু সেতু। নিরাপত্তাজনিত কারণে পায়ে হেঁটে যমুনা সেতু অতিক্রম করার অনুমতি পাওয়া না গেলে তিনি সাঁতরে পাড়ি দিয়েছেন খরসে াতা যমুনা নদী। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসব কথা জানান তিনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগে পড়ুয়া আরাফাত একটি বেসরকারি ব্যাংকের কর্মকর্তা। এর আগে তিনি সাঁতরে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিয়েছেন। স্বপ্ন দেখছেন ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দেওয়ার। গত বছর ভারতের চেরাপুঞ্জি ম্যারাথনে অংশগ্রহণ করে ফুল ম্যারাথন সম্পন্ন করেন তিনি। বাংলাদেশের আয়রন ম্যান হতে চান আরাফাত। এভারেস্টের চূড়াও স্পর্শ করতে চান।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর