শিরোনাম
শুক্রবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০ টা

এডিপি বাস্তবায়নে পাঁচ নির্দেশনা

শতভাগ রেকর্ড গড়ার লক্ষ্য

মানিক মুনতাসির

চলতি ২০১৭-১৮ অর্থবছর শেষে সংশোধিত এডিপির শতভাগ বাস্তবায়নের কৃতিত্ব অর্জন করতে চায় সরকার। এ জন্য মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোকে পাঁচ দফা নির্দেশনা দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। এর মাধ্যমে উচ্চতর প্রবৃদ্ধি অর্জনের ধারা অব্যাহত রাখতে বাজেট বাস্তবায়নের হারও বাড়াতে চায় সরকার। শুধু তাই নয় আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে অর্থবছর শেষে বাজেট বাস্তবায়নে নতুন রেকর্ডও সৃষ্টি করতে চায় পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়। এ জন্য বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) দ্রুত বাস্তবায়নে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। অর্থবিভাগ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে পাঠানো নির্দেশনায় বলা হয়, প্রকল্প বাস্তবায়নে কোনো ধরনের দীর্ঘসূত্রতা তৈরি করা যাবে না। ভবিষ্যৎ প্রকল্প নিয়ে পরিকল্পনা প্রণয়নের চেয়ে চলমান প্রকল্পকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। প্রকল্প বাস্তবায়নে কোনো প্রকার বাধা থাকলে তা দ্রুত সমাধান করতে হবে। পাশাপাশি নিজেদের ব্যয় সক্ষমতা বাড়াতে হবে। এ জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দক্ষতা বৃদ্ধিরও নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। এদিকে প্রত্যেক মন্ত্রণালয়কে প্রতি তিন মাস অন্তর বাজেট বাস্তবায়নের তথ্য বাধ্যতামূলক অর্থ মন্ত্রণালয়কে জানাতে বলা হয়েছে। এডিপি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে কোথাও কোনো প্রতিবন্ধকতা থাকলে তা নির্ণয় করে দ্রুত সমাধানেরও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে অর্থবিভাগ থেকে।

এ বিষয়ে মন্তব্য চাইলে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, অর্থবছরের শেষদিকে

সাধারণত এডিপি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে তাড়াহুড়া লক্ষ্য করা যায়। কিন্তু এতে প্রকল্প বাস্তবায়নের গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। ফলে অর্থবছরের শুরু থেকেই এ ব্যাপারে কার্যকর উদ্যোগ না নিলে এমন সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসা সম্ভব নয়। এবারও তার ব্যতিক্রম হবে বলে আমি মনে করি না। এ প্রসঙ্গে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে বলেন, সরকারের নানামুখী পদক্ষেপের কারণে গত অর্থবছরের চেয়ে এডিপি বাস্তবায়ন বেড়েছে। প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থা ও প্রকল্প পরিচালকদের সঙ্গে নিয়মিত আমি বৈঠক করছি পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে। এ কারণে চলতি অর্থবছরে এডিপি বাস্তবায়নে আরও গতি আসবে বলে আমি আশাবাদী। অর্থবছর শেষে শতভাগ এডিপি বাস্তবায়ন করতে চায় সরকার। এদিকে চলতি ২০১৭-১৮ অর্থবছর বাজেট বাস্তবায়নের গতি আগের তুলনায় বাড়েনি। বরং সামান্য কমেছে। অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর) এডিপির বাস্তবায়ন হয়েছে ২৭ দশমিক ০২ শতাংশ। গত ২০১৬-১৭ অর্থবছরের একই সময়ে এ হার ছিল ২৭ দশমিক ২০ শতাংশ। পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) হিসাবে, মোট এডিপির ৪৪ হাজার ৩৩১ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে গত ছয় মাসে। গত অর্থবছরের একই সময়ে ব্যয় হয়েছিল ৩৩ হাজার ৫৫৪ কোটি টাকা। এর আগে ২০১৫-১৬ অর্থবছরের ছয় মাসে ব্যয় হয়েছিল ২৩ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকা। ওই অর্থবছরের এডিপি বাস্তবায়নের হার ছিল ২৪ শতাংশ। পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় বলছে, চলতি অর্থবছরে এডিপির আকার বড়, তাই শতাংশের হিসাবে বাস্তবায়নের হার একটু কম বা বেশি হতেই পারে। এ বছর অবশ্য শুরু থেকেই বাস্তবায়নের গতি ভালো ছিল। উল্লেখ্য, চলতি অর্থবছরের এডিপির আকার ১ লাখ ৬৪ হাজার কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে ৬০০ কোটি টাকা এডিপি থেকে কাটছাঁট করা হতে পারে বলে জানা গেছে। গত অর্থবছরের এডিপির আকার ছিল ১ লাখ ২৩ হাজার কোটি টাকা।

সর্বশেষ খবর