Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১০ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ জুলাই, ২০১৮ ২৩:২৩

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলা

খালেদার রিভিউ প্রশ্নে আদেশ ১২ জুলাই

নিজস্ব প্রতিবেদক

খালেদার রিভিউ প্রশ্নে আদেশ ১২ জুলাই

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার আপিল ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে নিষ্পত্তির আদেশ রিভিউ চেয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার করা আবেদনের শুনানি শেষে আদেশের জন্য ১২ জুলাই দিন ঠিক করেছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। গতকাল প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেয়। এদিকে আপিল বিভাগের রিভিউ আবেদনের রায় না আসায় হাই কোর্টে অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার আপিল শুনানিও পিছিয়েছে। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম এবং দুদকের পক্ষে অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান শুনানি করেন। খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট এ জে মোহাম্মদ আলী। এ সময় খালেদা জিয়ার পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, আবদুর রেজাক খান, জয়নুল আবেদীন, মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, বদরোদ্দোজা বাদল, কায়সার কামাল, ব্যারিস্টার এ কে এম এহসানুর রহমান প্রমুখ। এর আগে ৫ জুলাই আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতির আদালত রিভিউ আবেদন শুনানির জন্য ৯ জুলাই দিন ঠিক করে। সে অনুযায়ী গতকাল শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। ১৬ মে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হাই কোর্টের দেওয়া জামিন বহাল রাখে আপিল বিভাগ।

হাই কোর্টে আপিল শুনানিও পিছিয়েছে : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিচারিক আদালতের দেওয়া পাঁচ বছরের সাজার বিরুদ্ধে খালাস চেয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ বাকি আসামিদের আপিল এবং সাজা বাড়াতে দুদকের আবেদনের শুনানি পিছিয়েছে। গতকাল বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাই কোর্ট বেঞ্চে শুনানি হওয়ার কথা থাকলেও আসামিপক্ষের আবেদনে তা পিছিয়ে ১২ জুলাই নির্ধারণ করা হয়।

খালেদা জিয়া ছাড়াও এ দুর্নীতি মামলায় সাবেক সংসদ সদস্য কাজী সালিমুল হক কামাল ও শরফুদ্দিন আহমেদের করা পৃথক আপিল এবং খালেদার সাজা বাড়ানোর জন্য দুদকের করা আবেদনের শুনানি একসঙ্গে হবে। প্রসঙ্গত, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেয় আদালত। রায় ঘোষণার দিন থেকেই রাজধানীর নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হয়েছে তাকে।


আপনার মন্তব্য