শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ আগস্ট, ২০১৯ ২৩:৫০

জাহালমকাণ্ডে দুদকের ১১ তদন্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক

জাহালমকাণ্ডে দুদকের ১১ তদন্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

সোনালী ব্যাংকের সাড়ে ১৮ কোটি টাকা আত্মসাতের ঘটনায় নিরীহ পাটকলশ্রমিক জাহালমকে আসামি করায় দুদকের ১১ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা দায়েরের কথা হাই কোর্টে জানিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন। বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাই কোর্ট বেঞ্চে গতকাল দাখিল করা প্রতিবেদনে দুদক এ তথ্য জানিয়েছে। তবে   যে ১১ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে তাদের নাম উল্লেখ না করায় দুদকের প্রতিবেদন গ্রহণ করেনি হাই কোর্ট। ওই ১১ কর্মকর্তাকে কেন দায়ী করা হয়েছে, কেন তাদের কারণ দর্শানোর নোটিস দেওয়া হয়েছে, তারা কী জবাব দিয়েছে, তাদের নাম-পদবি কী- সেসব বিষয় বিস্তারিত তুলে ধরে আগামী বুধবার পূর্ণাঙ্গ তথ্য জমা দিতে বলা হয়েছে। এর আগে দুদকের প্রতিবেদনে বিভাগীয় মামলা হওয়া ১১ কর্মকর্তার বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য না থাকায় অসন্তোষ প্রকাশ করে আদালত। আদালতে দুদকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার এ বি এম আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার। পরে খুরশীদ আলম খান সাংবাদিকদের জানান, আদালতের এ নির্দেশনা মোতাবেক একটি প্রতিবেদন দিয়েছি। আদালতকে দেখিয়েছি ১১ জন তদন্ত কর্মকর্তাকে শোকজ করা হয়েছে। তারা এর জবাব দিয়েছে। দুদক তাদের জবাবে সন্তুষ্ট না হয়ে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা রুজু করেছে। আর এই ঋণ জালিয়াতির ৩৩টি মামলার পুনরায় তদন্তের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তখন আদালত জানতে চেয়েছে এই ১১ জন কারা, তাদের বিরুদ্ধে কী কারণে মামলা রুজু করা হয়েছে। বুধবারের মধ্যে এসব বিস্তারিত তথ্য আদালতে দাখিল করতে হবে। সোনালী ব্যাংকের সাড়ে ১৮ কোটি টাকা ঋণ জালিয়াতির মামলার আসামি হলেন আবু সালেক নামের একজন। কিন্তু নিরীহ পাটকল শ্রমিক জাহালমকে আবু সালেক হিসেবে চিহ্নিত করে ২৬টি মামলায় আসামি করা হয়। দুদকের মামলায় জাহালম গ্রেফতার হন ২০১৬ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি। তিন বছর ‘ভুল আসামি’ হয়ে কারাভোগের পর গত ২ ফেব্রুয়ারি ২৬ মামলায় ‘ভুল’ আসামি জেলে : ‘স্যার, আমি জাহালম, সালেক না’ শিরোনামে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। ওই প্রতিবেদন আমলে নিয়ে পরের দিন ৩ ফেব্রুয়ারি হাই কোর্ট জাহালমকে মুক্তির নির্দেশ দেয়। একইসঙ্গে রুল জারি করে। আদালতের ওই নির্দেশের কয়েক ঘণ্টা পরই কারাগার থেকে মুক্তি পান জাহালম।


আপনার মন্তব্য