শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ এপ্রিল, ২০২০ ২৩:৪৪

কৃষি সংবাদ

করোনা সংকটে হতাশায় রাজশাহীর আমচাষি

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী

করোনা সংকটে হতাশায় রাজশাহীর আমচাষি

এবার অনেকটা অবহেলা-অযতেœ বৈশাখের তপ্তমাখা রোদ ও বাতাসে ধীরে ধীরে বড় হয়ে উঠছে রাজশাহীর আম। রৌদ্রতাপ-প্রখর প্রকৃতি উপেক্ষা করে প্রতিটি গুটি এখন রূপ নিয়েছে আমে। গাছের শাখা-প্রশাখায় দোল খেতে শুরু করেছে সবুজ আমের থোকা। তাই স্বপ্ন বুনছেন রাজশাহীর আমচাষিরা। যতেœর মধ্যে কেবলই চলছে পূর্ণতার অপেক্ষা। তবে করোনায় বিপাকে আমচাষিরা। বুকভরা স্বপ্ন থাকলেও করোনার কারণে এবার মনে শান্তি নেই রাজশাহীর আমচাষিদের। সারা দেশে লকডাউন আরও কয়েকমাস অব্যাহত থাকলে এর প্রভাব আমের ওপর পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন আমবাগান মালিক ও ব্যবসায়ীরা। নগরীর কিসমত কুখ ী এলাকায় আমচাষি ও ব্যবসায়ী মনিরুল ইসলাম বলেন, প্রায় ২৫ বছর ধরে আমবাগান ও ব্যবসার সঙ্গে জড়িত আছি। এ সময় আমরা বাগান পাহারা দিতেই ব্যস্ত থাকি। কারণ এ সময় কালবৈশাখী ঝড় হয়। ফলে আমবাগানের ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা থাকে। তবে এবার দেশে করোনাভাইরাস ঠেকাতে যে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছে প্রশাসন, নিজেদের নিরাপদ রাখতে তা মেনে চলছি। তবে এখন থেকে আমবাগান পাহারায় কোনো জনবল পাওয়া যাচ্ছে না।

একই এলাকার আরেক আম ব্যবসায়ী নাসির জানান, এ বছর অনেক আমের বাগান কিনেছি, প্রত্যেক বছর ঝড়ে অনেক আম পড়ে যায়। তারপরও কোনোভাবে আম বিক্রি করে টাকা উঠাতে পারি। কিন্তু এবার তো দেখছি একটু ভিন্ন রকম। পৃথিবীর অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও যেভাবে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে, তা থেকে কবে মুক্ত হবে বাংলাদেশ তা এখনো কেউ বলতে পারছেন না। তবে এমনটা চলতে থাকলে আমাদের আমের কেনাবেচায় ক্ষতি হবে। আম উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ, সরবরাহ ও বাজারজাতকরণের ব্যাপারে উচ্চপর্যায়ের প্রস্তুতি প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেওয়া উচিত। রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক শামসুল হক জানান, রাজশাহীতে প্রায় ১৭ হাজার ৫৭৩ হেক্টর জমিতে আমবাগান আছে। এসব বাগান থেকে হেক্টরপ্রতি ১০ থেকে ১২ মেট্রিক টন আম উৎপাদন হয়ে থাকে। সে হিসাবে প্রতি মৌসুমে কমপক্ষে ২ হাজার ২০ মেট্রিক টন আম উৎপাদন হয়। এবার হেক্টরপ্রতি গড়ে ১১ থেকে ১২ মেট্রিক টন আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরেছে অধিদফতর। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে মাসখানেক পরই বাজারে উঠতে শুরু করবে গ্রীষ্মের এই ফল। উৎপাদন ভালো হলে আমচাষিদের মুখে হাসি ফুটবে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর