শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ৭ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৬ মার্চ, ২০২১ ২৩:৫৫

ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি সহযোগী সংগঠন

জাতীয় পার্টির রাজনীতি

শফিকুল ইসলাম সোহাগ

ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি সহযোগী সংগঠন

প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের প্রতিষ্ঠিত জাতীয় পার্টির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর বেহালদশা। পার্টির ১০টি সহযোগী সংগঠন ও ৮টি অঙ্গসংগঠনের অধিকাংশই মেয়াদোত্তীর্ণ। অধিকাংশ সংগঠনেই বছরের পর বছর এ অবস্থা। এরশাদের মৃত্যু, মহামারী করোনা ভাইরাসসহ নানান কারণে সংগঠনগুলোর সম্মেলন করা সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছেন দায়িত্বশীলরা। তবে পার্টির বর্তমান চেয়ারম্যান জি এম কাদের মেয়াদোত্তীর্ণ সংগঠনগুলোকে সক্রিয় করতে নিয়মিত তাদের সঙ্গে বসছেন। দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন।

জাতীয় পার্টির ভ্যানগার্ড হিসেবে পরিচিত জাতীয় যুব সংহতির মেয়াদ শেষ হয়েছে ২০১৯ সালের ১৬ আগস্ট। কয়েক দফা সময় বৃৃদ্ধি করা হলেও সংগঠনটির কাউন্সিল করা হয়নি। গত ২০ জানুয়ারি হুসেইন মকবুল শাহরিয়ার আসিফকে আহ্বায়ক ও আহাদ ইউ চৌধুরী শাহীনকে সদস্য সচিব করে জাতীয় যুব সংহতির কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী ছয় মাসের মধ্যে জেলা, মহানগর, উপজেলা, থানা এবং পৌরসভা সম্মেলন সম্পন্ন করে কেন্দ্রীয় সম্মেলন করার নির্দেশনা রয়েছে। হুসেইন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ জানান, হোমওয়ার্ক করছি। পুরো শেষ করতে সময় লাগবে। জানা গেছে, সংগঠন শক্তিশালী করার জন্য সারা দেশে সক্রিয় নেতা পাওয়া যাচ্ছে না। জাতীয় মহিলা পার্টির মেয়াদ শেষ হওয়ার হওয়ার কথা আগামী ২৫ আগস্ট। অ্যাডভোকেট সালমা ইসলামকে আহ্বায়ক এবং সাধারণ সম্পাদক নাজমা আক্তার দুজনই সংরক্ষিত আসনের এমপি। মহিলা পার্টির নেত্রীদের মতে, আগের মেয়াদের নূর-ই-হাসনা লিলি চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন মহিলা পার্টি অনেক শক্তিশালী ছিল। গত বছরের ২৯ ডিসেম্বর পার্টির কো-চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সালমা ইসলামকে আহ্বায়ক ও চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা হেনা খান পন্নীকে সদস্য সচিব করে ৭৫ সদস্যবিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। সূত্র জানায়, চার মাসের শর্তে এই কমিটি গঠন করা হলেও এখনো উল্লেখ করার মতো কোনো অগ্রগতিই হয়নি। সাইদুর রহমান টেপা তার নেতৃত্বাধীন কৃষক পার্টির সংগঠন শক্তিশালী করতে নিয়মিত সারা দেশ ঘুরে বেড়াচ্ছেন। সাইদুর রহমান টেপা জানান, ৪৫টি জেলায় সাংগঠনিক কমিটি রয়েছে। আগামী ১৩ মার্চ নড়াইল জেলা জাপার সম্মেলন হবে। লিয়াকত হোসেন খোকার নেতৃত্বাধীন জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টি জাপার সবচেয়ে শক্তিশালী সংগঠন বলে নেতা-কর্মীদের মূল্যায়ন। লিয়াকত হোসেন খোকা জানান, স্বেচ্ছাসেবক পার্টির অধিকাংশ জেলায় কমিটি রয়েছে। যে কয়টি জেলার মেয়াদোত্তীর্ণ আছে সেগুলোর সম্মেলনের জন্য আগামী মাসে বর্ধিত সভা হবে। সভা         শেষে সম্মেলন হবে। পার্টির প্রয়াত চেয়ারম্যান এরশাদ সর্বশেষ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বেচ্ছাসেবক পার্টির সম্মেলনে অংশ নেন। ২০২২ সালের ২৮ ডিসেম্বর এই সংগঠনের মেয়াদ শেষ হবে। জাতীয় ওলামা পার্টির মেয়াদ শেষ হবে আগামী বছরের ২৮ ডিসেম্বর। গত বছরের ২৮ জুলাই সাংস্কৃতিক পার্টির মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও দীর্ঘদিন নতুন কমিটি হয়নি। গত বছরের অক্টোবরে শেরিফা কাদেরকে আহ্বায়ক ও আলাউদ্দিন আহমেদকে সদস্য সচিব করে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। এ ছাড়া জাতীয় সৈনিক পার্টির মেয়াদ শেষ হয়েছে ২০১৯ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি। জাতীয় তরুণ পার্টির আহ্বায়ক কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে ২০১৯ সালের ১১ আগস্ট।

আর ১০টি সহযোগী সংগঠনের মধ্যে শুধু জাতীয় ছাত্রসমাজের মেয়াদ রয়েছে। জাতীয় ছাত্রসমাজের মেয়াদ শেষ হবে আগামী বছরের ২২ ডিসেম্বর। জানতে চাইলে সংগঠনের সভাপতি মো. ইবরাহিম খান জুয়েল জানান, তাদের ৮৪টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে ১৯টিতে আহ্বায়ক কমিটি দিয়েছেন। আগামী ১৮ ও ২২ মার্চ দুটি জেলায় সম্মেলন হবে। তিনি জানান, করোনা মহামারীর কারণে প্রস্তুতি থাকা সত্ত্বেও অনেক জেলায় সম্মেলন করতে পারেননি। বর্তমানে ৪০ সাংগঠনিক জেলা মেয়াদোত্তীর্ণ রয়েছে। শ্রমিক পার্টির মেয়াদ শেষ হয়েছে ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি। সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এ কে এম আশরাফুজ্জামান খান জানান, জাতীয় শ্রমিক পার্টির অধীনে ৪৩টি বেসিক ইউনিয়নে কার্যক্রম চলছে। ২০টি অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর্যায়ে রয়েছে। আর শ্রমিক পার্টি ৫৩টি সাংগঠনিক জেলার ২০ থেকে ২২টি মেয়াদোত্তীর্ণ রয়েছে। জাতীয় আইনজীবী ফেডারেশনের মেয়াদ শেষ হবে ২০২১ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর। সংগঠনের সভাপতি অ্যাডভোকেট শেখ মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম জানান, সংগঠনের সাংগঠনিক অবস্থা ভালো। সারা দেশে সংগঠনের নেতারা বার অ্যাসোসিয়েশন নির্বাচনে ভোট করে বিজয়ী হয়ে বিভিন্ন জায়গায় গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন। মৎস্যজীবী পার্টির মেয়াদ শেষ হয়েছে ২০১৬ সালের ১৩ অক্টোবর। সম্মেলনের জন্য সম্প্রতি আহ্বায়ক কমিটি গঠিত হয়েছে। তাঁতী পার্টির আহ্বায়ক কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে অর্ধযুগ আগে, ২০১৪ সালের ২৯ নভেম্বর। জাতীয়  মোটর শ্রমিক পার্টির মেয়াদ শেষ হবে চলতি বছরের ৮ ডিসেম্বর। ২০২০ সালে সম্মেলনের মাধ্যমে তিন বছরের জন্য জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা পার্টির দায়িত্ব পান বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসহাক ভূঁইয়া। তিনি জানান, দায়িত্ব নেওয়ার পর ১৫টি জেলায় কমিটি গঠন করেছেন। ১০টি জেলার কমিটি গঠন প্রক্রিয়াধীন। এ ছাড়াও জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পার্টি ও পল্লীবন্ধু পরিষদের মেয়াদ শেষ হয়েছে অনেক আগেই। নেতা-কর্মীরা বলছেন, দীর্ঘদিন ঘুমন্ত ছিল অধিকাংশ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন। পার্টির চেয়ারম্যানের নির্দেশনায় বেশ কয়েকটি অঙ্গ সংগঠন সারা দেশে তাদের কার্যক্রম চাঙা করার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। পার্টির চেয়ারম্যান ও মহাসচিব নিয়মিত কর্মসূচিতে অংশ নেওয়া সত্ত্বেও কিছু সংগঠনের শীর্ষ নেতারা এখনো ঘুমিয়ে আছেন! তারা পদ-পদবি পাওয়ার পর থেকেই কার্যক্রমে নেই।

জানতে চাইলে জাতীয় পার্টির মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোকে চাঙা করা হচ্ছে। প্রত্যেকটি অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সঙ্গে পার্টির চেয়ারম্যান নিয়মিত সভা-সমাবেশ করছেন। তাদের দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন। আশা করছি, শিগগিরই মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটিগুলোর কাউন্সিল সম্পন্ন করা সম্ভব হবে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর