শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৩১ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩০ মার্চ, ২০২১ ২৩:১৯

পৌর ভোট আজ, পরবর্তী নির্বাচন নিয়ে সিদ্ধান্ত কাল

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধিতে উদ্বেগ

নিজস্ব প্রতিবেদক

পৌর ভোট আজ, পরবর্তী নির্বাচন নিয়ে সিদ্ধান্ত কাল

দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ উদ্বেগজনকভাবে বাড়ার মধ্যে পূর্ব নির্ধারিত চার পৌরসভায় আজ ভোট গ্রহণ হবে। সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোট গ্রহণ চলবে। এদিকে আগামী ১১ এপ্রিল ইউনিয়ন পরিষদের প্রথম ধাপ, পৌরসভা ও একটি সংসদীয় আসনের নির্ধারিত নির্বাচন হবে কি না তা কাল বৃহস্পতিবার জানা যাবে নির্বাচন কমিশনে। সোমবার বিকালে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের নেতৃত্বে নির্বাচন কমিশনের এক জরুরি বৈঠকের পর অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ এ কথা জানান।

অনির্ধারিত ওই বৈঠকে বিদ্যমান পরিস্থিতিতে আজকের ৩১ মার্চ ও ১১ এপ্রিলের ভোট নিয়ে আলোচনা হয়েছে। ইসি জানিয়েছে, আজ বুধবার যশোর সদর ও মাদারীপুরের  কালকিনি পৌরসভায় সব পদে এবং ঠাকুরগাঁও সদর ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ পৌরসভায় একটি করে সাধারণ ওয়ার্ডে ভোট হবে। এ বিষয়ে অশোক কুমার বলেন, বুধবারের যেসব নির্বাচন হওয়ার কথা সেগুলো অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। তবে ১১ এপ্রিল ইউপি, পৌর ও সংসদের উপনির্বাচনের বিষয়ে বৈঠকে আলোচনা হলেও কাল ১ এপ্রিল কমিশন সভার পর সিদ্ধান্ত জানানো হবে। প্রথম ধাপে ১৯ জেলার ৬৪ উপজেলার ৩৭১ ইউপি, ষষ্ঠ ধাপের ১১ পৌরসভা ও লক্ষ্মীপুর-২ আসনের উপনির্বাচনের প্রার্থীরা এখন প্রচারে রয়েছেন। কিন্তু এর মধ্যে মহামারীর নতুন ধাক্কা আসার পর সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয়সহ সকল ক্ষেত্রে সব ধরনের জনসমাগম সীমিত করাসহ ১৮ দফা নির্দেশনা জারি করেছে সরকার। অন্যদিকে ইসির বেশ কয়েকজন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ইতিমধ্যে সব ধরনের নির্বাচনী প্রশিক্ষণ বন্ধ করা হয়েছে। আগামী ১১ এপ্রিলে ইউপি ও পৌরসভা নির্বাচনও বন্ধ হতে পারে। তবে কাল বিকাল ৩টায় কমিশনের ৭৮তম সভায় এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসতে পারে। সভায় সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনের বিষয় আলোচ্য সূচিতে রয়েছে।

গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ে। গত ৩০ নভেম্বরের পর ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত সংক্রমণ ধারাবাহিকভাবে কমতে থাকে। কিন্তু মার্চের শুরু থেকে দৈনিক শনাক্ত রোগী, মৃত্যুর সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে। সোমবার এক দিনে ৫ হাজার ১৮১ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে, যা মহামারী শুরুর পর থেকে সর্বোচ্চ।

 গতকাল সংক্রমণ ধরা পড়েছে ৫ হাজার ৪২ জনের। এতে দেশে শনাক্ত মোট রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ৬ লাখ ৫ হাজার ৯৩৭ জনে। মৃত্যু হয়েছে মোট ৮ হাজার ৯৯৪ জনের। করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরুর পর গেল বছর সংসদীয় আসনের উপনির্বাচন সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার মধ্যে পরবর্তী ৯০ দিনে করেছে ইসি। স্থানীয় সরকারের ভোটও স্থগিত রেখেছিল। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর নভেম্বর থেকে স্থানীয় সরকারের ভোট শুরু হয়। মহামারীর এক বছর পার করতেই ফের সংক্রমণ বাড়ায় নতুন করে সিদ্ধান্ত নিতে পারে বলে আভাস দিয়েছে ইসি কর্মকর্তারা।


আপনার মন্তব্য