শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২৩ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ আগস্ট, ২০২১ ২৩:৪২

অষ্টম কলাম

মার্কিন বিমানে আফগান নারীর প্রসব বেদনা, নেমেই জন্ম দিলেন কন্যাসন্তান

প্রতিদিন ডেস্ক

Google News

আফগানিস্তান থেকে দেশত্যাগের উদ্দেশে যুক্তরাষ্ট্রের বিমান বাহিনীর উড়োজাহাজে উঠেছিলেন এক আফগান মা। গত শনিবার জার্মানির রামস্টেইনে মার্কিন বিমান ঘাঁটিতে উড়োজাহাজ অবতরণের পর পরই কন্যাসন্তানের জন্ম দিয়েছেন তিনি। সূত্র : সিএনএন।

গতকাল টুইট করে মার্কিন বিমান বাহিনী জানায়, আফগানিস্তান ছেড়ে আসা উড়োজাহাজটি মধ্যপ্রাচ্যে বিরতি নেওয়ার পর উড্ডয়নকালে ওই নারীর প্রসব বেদনা দেখা দেয়। ২৮ হাজার ফুট ওপরে বাতাসের চাপ কম থাকায় জটিলতা দেখা দেয় তার। পরে জার্মানিতে মার্কিন বিমান ঘাঁটিতে নামার পর পরই কন্যাসন্তান জন্ম দেন আফগান মা।

টুইটে বলা হয়, বাতাসের নিম্নচাপজনিত সমস্যা দেখা দেওয়ায় উড়োজাহাজের উড্ডয়ন উচ্চতা কমানোর সিদ্ধান্ত নেন কমান্ডার। এতে মায়ের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল হয় এবং তিনি প্রাণে বেঁচে যান। রামস্টেইন ঘাঁটিতে অবতরণের সঙ্গে সঙ্গে মার্কিন বিমান বাহিনীর ৮৬তম  মেডিকেল গ্রুপের সদস্যের সহায়তায় সুষ্ঠুভাবে সন্তান প্রসব সম্ভব হয়। পরে মা ও নবজাতককে নিকটস্থ চিকিৎসা কেন্দ্রে নেওয়া হয়। তারা দুজনই সুস্থ বলে জানিয়েছে মার্কিন বিমান বাহিনী। ইউএস এয়ার মোবিলিটি কমান্ড জানান, মধ্যপ্রাচ্যের একটি অস্থায়ী ঘাঁটি হয়ে জার্মানির রামস্টেইন বিমান ঘাঁটিতে সৈন্যদের পৌঁছে দিচ্ছিল সি- সেভেনটিন পরিবহন বিমানটি। তাদের সঙ্গে ছিলেন ওই অন্তঃসত্ত্বা আফগান নারী। উল্লেখ্য, আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা ও নাগরিকদের সরিয়ে নিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে রামস্টেইন। কাবুল  থেকে বিভিন্ন বিমানে করে বহু মানুষ সরাসরি কাতারে যাচ্ছেন। সেখান  থেকে তাদের জার্মানিতে নেওয়া হচ্ছে সি-সেভেনটিন পরিবহন বিমানে করে।

রামস্টেইন এয়ার বেজে ৫ হাজার মানুষকে রাখার ব্যবস্থা আছে। জরুরি ভিত্তিতে ওই ঘাঁটির ধারণক্ষমতা বাড়িয়ে সাড়ে ৭ হাজার করা হচ্ছে। জুলাই মাস থেকে ২২ হাজার মানুষকে কাবুল থেকে সরিয়ে নিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ১৪ আগস্টের পর থেকে নেওয়া হয়েছে ১৭ হাজার মানুষকে।