শিরোনাম
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০২২ ০০:০০ টা
অষ্টম কলাম

বিশ্বের শীর্ষ ব্যয়বহুল শহর নিউইয়র্ক ও সিঙ্গাপুর

প্রতিদিন ডেস্ক

বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহরের তালিকায় যৌথভাবে শীর্ষস্থানে উঠে এসেছে নিউইয়র্ক ও সিঙ্গাপুর। ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (ইআইইউ) বার্ষিক জরিপে এ তথ্য মিলেছে। বিবিসি।

জরিপে এবারই প্রথম নিউইয়র্ক এ তালিকার শীর্ষে এলো।

গত বছর শীর্ষে থাকা তেলআবিব এবার তৃতীয় স্থানে নেমে গেছে। মোটের ওপর চলতি বছর বিশ্বের বড় শহরগুলোতে জীবনযাপনের খরচ গড়ে ৮ দশমিক ১ শতাংশ বেড়ে গেছে বলে জানিয়েছে ইআইইউর জরিপ প্রতিবেদন। খরচ বৃদ্ধির পেছনে ইউক্রেন যুদ্ধ এবং কভিড-১৯ মহামারির কারণে সরবরাহ চেইনের ওপর পড়া প্রভাবকে দায়ী করা হচ্ছে। মূল্যস্ফীতি সবচেয়ে বেড়েছে ইস্তাম্বুলে, এখানে পণ্যের দাম বেড়েছে ৮৬ শতাংশ। এরপর আছে বুয়েনস আইরিশ ৬৪ শতাংশ এবং তেহরানে ৫৭ শতাংশ। জরিপে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের চড়া মূল্যস্ফীতিও নিউইয়র্কের ব্যয়বহুল শহরের তালিকার শীর্ষে উঠে আসার অন্যতম কারণ। আর এ কারণেই ইআইইউর এ বছরের ব্যয়বহুল শহরের তালিকায় শীর্ষ দশে লস অ্যাঞ্জেলেস ও সান ফ্রান্সিসকোও জায়গা করে নিয়েছে। ডলার শক্তিশালী হওয়াও ব্যয়বহুল শহরের তালিকায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রাধান্য দেখার আরেকটি কারণ।

রাশিয়ার মস্কো ও সেন্ট পিটার্সবার্গ যথাক্রমে ৮৮ ও ৭০ ঘর টপকে তালিকার ৩৭ ও ৭৩-এ স্থান করে নিয়েছে। ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের প্রতিক্রিয়ায় পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার ফলাফলও শহর দুটির ওপরে ওঠার পেছনে ভূমিকা রেখেছে। জরিপে ১৭৩টি শহরের পণ্য ও সেবার দাম মার্কিন ডলারে কত, তার তুলনা করা হলেও এ বছরের পর্যালোচনায় কিয়েভকে রাখা হয়নি।

গবেষণাটির নেতৃত্বে থাকা উপসানা দত্ত বলেছেন, ইউক্রেনে যুদ্ধ, রাশিয়ার ওপর পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা এবং চীনের ‘শূন্য কভিড নীতি’ সরবরাহ চেইনে সমস্যা সৃষ্টি করছে। এর সঙ্গে ক্রমবর্ধমান সুদের হার ও বিনিময় হারে বদল মিলে বিশ্বজুড়ে জীবনযাত্রার ব্যয়ে সংকট সৃষ্টি করেছে। উপসানা এবারের ইআইইউ জরিপে ১৭২টি শহরে জিনিসপত্রের গড় মূল্যবৃদ্ধিকে ২০ বছরের মধ্যে তাদের দেখা ‘সবচেয়ে কড়া’ মূল্যস্ফীতি বলছেন। এই ২০ বছরের ডিজিটাল তথ্য-উপাত্ত তাদের কাছে রয়েছে।     

তাদের জরিপে ব্যয়বহুল শহরের তালিকার শীর্ষ দশে নিউইয়র্ক, সিঙ্গাপুর, তেলআবিব, লস অ্যাঞ্জেলেস, সান ফ্রান্সিসকো ছাড়াও হংকং, জুরিখ, জেনেভা, প্যারিস, সিডনি ও কোপেনহেগেন স্থান করে নিয়েছে। তালিকায় সবচেয়ে কম ব্যয়বহুল শহরগুলোর মধ্যে এশিয়ার নগরীগুলোর আধিক্য দেখা গেছে। ১৭২টি শহরের মধ্যে সবচেয় কম ব্যয়বহুল শহর সিরিয়ার রাজধানী দামেস্ক। এক্ষেত্রে শীর্ষে থাকা ১২টি শহরের মধ্যে আছে কলম্বো, বেঙ্গালুরু, আলজিয়ার্স, চেন্নাই, আহমেদাবাদ, আলমাতি, করাচি, তাসখন্দ, তিউনিস, তেহরান ও ত্রিপোলি।

 রাশিয়ার মস্কো ও সেন্ট পিটার্সবার্গ যথাক্রমে ৮৮ ও ৭০ ঘর টপকে তালিকার ৩৭ ও ৭৩-এ স্থান করে নিয়েছে। ইউক্রেইনে রাশিয়ার আগ্রাসনের প্রতিক্রিয়ায় পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার ফলাফলও শহরদুটির উপরে ওঠার পেছনে ভূমিকা রেখেছে। জরিপে ১৭৩টি শহরের পণ্য ও সেবার দাম মার্কিন ডলারে কত, তার তুলনা করা হলেও এ বছরের পর্যালোচনায় কিইভকে রাখা হয়নি। গবেষণাটির নেতৃত্বে থাকা উপসানা দত্ত বলেছেন, ইউক্রেইনে যুদ্ধ, রাশিয়ার ওপর পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা এবং চীনের ‘শূন্য কোভিড নীতি’ সরবরাহ-চেইনে সমস্যা সৃষ্টি করছে। এর সঙ্গে ক্রমবর্ধমান সুদের হার ও বিনিময় হারে বদল মিলে বিশ্বজুড়ে জীবনযাত্রার ব্যয়ে সংকট সৃষ্টি করেছে। উপসানা এবারের ইআইইউ জরিপে ১৭২টি শহরে জিনিসপত্রের গড় মূল্যবৃদ্ধিকে ২০ বছরের মধ্যে তাদের দেখা ‘সবচেয়ে কড়া’ মূল্যস্ফীতি বলছেন। এই ২০ বছরের ডিজিটাল তথ্যউপাত্ত তাদের কাছে রয়েছে। তাদের জরিপে ব্যয়বহুল শহরের তালিকার শীর্ষ ১০-এ নিউ ইয়র্ক, সিঙ্গাপুর, তেল আবিব, লস এঞ্জেলস, সান ফ্রান্সিসকো ছাড়াও হংকং, জুরিখ, জেনেভা, প্যারিস, সিডনি ও কোপেনহেগেন স্থান করে নিয়েছে। তালিকায় সবচেয়ে কম ব্যয়বহুল শহরগুলোর মধ্যে এশিয়ার নগরীগুলোর আধিক্য দেখা গেছে। ১৭২টি শহরের মধ্যে সবেচেয় কম ব্যয়বহুল শহর সিরিয়ার রাজধানী দামেস্ক। এক্ষেত্রে শীর্ষে থাকা ১২টি শহরের মধ্যে আছে কলম্বো,  বেঙ্গালুরু, আলজিয়ার্স, চেন্নাই, আহমেদাবাদ, আলমাতি, করাচি, তাসখন্দ, তিউনিস, তেহরান ও ত্রিপোলি।

 

সর্বশেষ খবর