শিরোনাম
শনিবার, ৩১ ডিসেম্বর, ২০২২ ০০:০০ টা

পরিযায়ী পাখির অভয়ারণ্য সত্যিপুর

রাশেদ খান, মাগুরা

পরিযায়ী পাখির অভয়ারণ্য সত্যিপুর

পরিযায়ী পাখির অভয়ারণ্য হিসেবে পরিণত হয়েছে মাগুরা সদর উপজেলার সত্যিপুর গ্রাম। এ গ্রামের ঠাকুর বাড়ি এলাকায় কয়েকটি গাছে গত এক বছর ধরে স্থায়ীভাবে অবস্থান করছে শত শত পরিযায়ী পাখি। সত্যিপুর গ্রামে ঠাকুর বাড়ি এলাকার বড় গাছগুলোতে বসেছে পরিযায়ী পাখির দল। বিশেষ করে বিকাল হলেই বিভিন্ন এলাকার মাঠ থেকে পাখিরা এসব গাছের শাখায় অবস্থান নিচ্ছে। যা হয়ে উঠছে অত্যন্ত দৃষ্টিনন্দন।

সত্যিপুর গ্রামের রিয়াজুল ইসলাম জানান, গত ৭ বছর ধরে পাখিগুলো তাদের গ্রামে আসতে শুরু করে। তারা ঠাকুর বাড়ি এলাকার বড় গাছগুলোতে অবস্থান করছে। প্রথম দিকে পাখিগুলো শীত মৌসুমে এসে চলে যেত। কিন্তু গত বছর থেকে এগুলো ১২ মাস সত্যিপুর গ্রামে অবস্থান করছে। এলাকাবাসী পাখিগুলো সংরক্ষণে সহায়ক ভূমিকা রাখছে।

পার্শ্ববর্তী ছনপুর গ্রামের আবুল হোসেন বলেন, লোকমুখে আমরা এই এলাকার পাখির কথা শুনেছি। এখন এগুলো দেখতে এসে খুব ভালো লাগছে। আমার জানা মতে এগুলো শামুকভাঙ্গা পাখি হিসেবে পরিচিত।  কোনো কোনো এলাকায় এগুলোকে শামুকখোলা পাখি বলে। এগুলোর ঠোঁট ও অন্যান্য গঠন বড় আকৃতির বকের মতো। এখানে থাকা পাখির সংখ্যা কমপক্ষে ৫ শতাধিক হবে। এলাকার মানুষ এগুলো সংরক্ষণে ভূমিকা রাখায় দীর্ঘদিন ধরে এখানে তারা অবস্থান করছে।

মাগুরা সদর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. হাদিউজ্জামান বলেন, আমরা সত্যিপুর গ্রামের অতিথি পাখি সংরক্ষণে  নিয়মিত খোঁজ খবর রাখছি। শুধু সত্যিপুর নয় গোটা জেলার বিভিন্ন এলাকায় পাখি নিধনের নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে আমরা প্রচারপত্র ও বিভিন্ন ধরনের ব্যানার সরবরাহ করেছি।

সর্বশেষ খবর