শিরোনাম
বুধবার, ১০ মে, ২০২৩ ০০:০০ টা

কলিং অ্যাপস ব্যবহার করেও রক্ষা মেলেনি

দেড় যুগ পর গ্রেফতার সিরিজ বোমা হামলার আসামি

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

কলিং অ্যাপস ব্যবহার করেও রক্ষা মেলেনি

কখনো মোবাইল অপারেটরের সিম ব্যবহার করে কল দিতেন না সিরিজ বোমা হামলার আসামি আজিজুল হক গোলাপ (৩৮)। গ্রেফতার এড়াতে সব সময় বিভিন্ন কলিং অ্যাপস-এর মাধ্যমে যোগাযোগ রক্ষা করতেন তিনি। দেড় যুগ এভাবে পলাতক থাকার পর ময়মনসিংহে সিরিজ বোমা হামলার আসামি গোলাপকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-১৪। সোমবার রাতে তাকে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

মঙ্গলবার দুপুরে নগরীর আকুয়া বাইপাস এলাকায় র‌্যাব-১৪ এর সদর দফতরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাব-১৪ অধিনায়ক ও অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান।

তিনি জানান, ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার পর থেকে দীর্ঘ ১৮ বছর পরিচয় গোপন করে দেশের বিভিন্ন স্থানে পালিয়ে ছিল গোলাপ। ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট সারা দেশে একযোগে হাই কোর্ট, সুপ্রিম কোর্ট, জেলা আদালত, বিমানবন্দর, মার্কিন দূতাবাস, জেলা প্রশাসক, জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়, প্রেস ক্লাব ও সরকারি-আধা সরকারি স্থাপনায় সিরিজ বোমা হামলা চালায় নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ (জেএমবি)। ঘটনার দিন বেলা ১১টা থেকে সাড়ে ১১টার মধ্যে দেশের ৬৩ জেলার প্রেস ক্লাব, গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় প্রায় ৫০০ বোমা বিস্ফোরণ ঘটায় জঙ্গিরা। এই হামলায় নিহত হন দুজন এবং আহত হন ২ শতাধিকের বেশি মানুষ। অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান আরও জানান, সারা দেশের মতো সেদিন ময়মনসিংহ শহরের চরপাড়া মোড়, গাঙ্গিনারপাড় সিটি প্রেস ক্লাবের নিচে, পাটগুদাম চায়না ব্রিজের মোড়, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, কোর্ট ভবন বার কাউন্সিলসহ বিভিন্ন স্থানে বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। ময়মনসিংহে এই বোমা হামলার ঘটনায় সদীপ (৩৫), রফিকুল ইসলাম টুটুল (১৭) ও হাফিজুর রহমান (২৫) গুরুতর আহত হয়েছিলেন। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় মামলা করে। তদন্ত শেষে ২০০৬ সালের ১১ সেপ্টেম্বর গ্রেফতার হওয়া আজিজুল হক গোলাপসহ আরও ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। র‌্যাব-১৪ গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে জঙ্গি মামলার চার্জশিটভুক্ত পলাতক আসামি আজিজুল হক গোলাপকে সোমবার রাতে ভালুকা বাজার থেকে গ্রেফতার করে। পরে গতকাল দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। গোলাপ ময়মনসিংহের গৌরীপুরের তাতিপায়া গ্রামের মৃত রুস্তম আলী মাস্টারের ছেলে।

সর্বশেষ খবর