শিরোনাম
সোমবার, ২০ মে, ২০২৪ ০০:০০ টা

হালদাপাড়ের বাবর আলীর এভারেস্ট জয়

মুহাম্মদ সেলিম, চট্টগ্রাম

হালদাপাড়ের বাবর আলীর এভারেস্ট জয়

চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার বুড়িশ্চর এলাকার ডা. বাবর আলী লাল-সবুজের কেতন ওড়ালেন পৃথিবীর সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ এভারেস্টে। গতকাল বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ৮টায় পঞ্চম বাংলাদেশি হিসেবে এভারেস্টের সর্বোচ্চ শৃঙ্গে আরোহণ করেন। বাবর আলীর হাত ধরেই ১১ বছর পর মাউন্ট এভারেস্টের চূড়ায় উড়েছে বাংলাদেশি পতাকা। তার পরবর্তী লক্ষ্য বিশ্বের চতুর্থ শীর্ষ পর্বত ‘লোৎসে’। রবিবার ক্যাম্প-৪ এ নেমে মধ্যরাতে ফের শুরু করবেন দ্বিতীয় লক্ষ্যের পথে। সব ঠিক থাকলে ভোরে পৌঁছে যাবেন এ চূড়ায়। ইতিপূর্বে লোৎসেতে কোনো সামিট করেননি কোনো বাংলাদেশি। তাই বাবর আলী বাংলাদেশের ইতিহাসে নতুন অধ্যায়ের সূচনা করতে যাচ্ছেন। বাবরের অভিযানের প্রধান সমন্বয়ক ফরহান জামান বলেন, ‘এটি বাবরের প্রথম ব্যক্তিগত অর্জন নয় বরং পুরো দেশের জন্য গর্বের বিষয়। বাবর মাউন্ট এভারেস্ট জয় করার পর লোৎসেতেও সামিট করবেন। এটি হবে কোনো বাংলাদেশির জন্য রেকর্ড।’ জানা যায়, মাউন্ট এভারেস্ট জয়ের লক্ষ্য নিয়ে গত ১ এপ্রিল নেপালের উদ্দেশে দেশ ছাড়েন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের ৫১তম ব্যাচের মেধাবী ছাত্র ডা. বাবর। ৪ এপ্রিল নেপালের লুকলা থেকে এভারেস্ট জয়ের পথচলা শুরু করেন। ১০ এপ্রিল পৌঁছে যান বেসক্যাম্পে। ১৬ এপ্রিল সামিট করেন ২ হাজার ৭৫ ফুট উচ্চতার লবুচে ইস্ট পর্বত। ফের বেস ক্যাম্পে ফিরে ২৬ এপ্রিল আবারও যাত্রা শুরু করে ক্যাম্প-২ পর্যন্ত ঘুরে সম্পন্ন করেন উচ্চতার সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার পর্ব। এরপর শুরু হয় বাবরের স্বপ্নের যাত্রা। প্রথম দিনেই উঠে যান ক্যাম্প-২ এ। ১৮ মে ওঠেন ২৪ হাজার ৫০০ ফুট উচ্চতার ক্যাম্প-৩ এবং পরে ওঠেন ক্যাম্প-৪ এ। ২৬ হাজার ফুট উচ্চতার এ ক্যাম্পের ওপরের অংশকে বলা হয় ডেথ জোন। রবিবার ভোরে ২৯ হাজার ৩১ ফুট উচ্চতার মাউন্ট এভারেস্টে আরোহণ করে ওড়ান লাল-সবুজের কেতন।

বাবরের অতীতের যত রেকর্ড : ২০১৪ সালে নেপালের ‘কেয়াঞ্জিন রি’ পর্বত আরোহণের মধ্য দিয়ে শুরু হয় বাবরের পর্বতযাত্রার অভিযান। একই বছর আরোহণ করেন নেপালের সারগো রি ও সুরিয়া পিক পর্বত। পরের বছরগুলোতে আরোহণ করেন ভারতের মাউন্ট ইয়ানাম, মাউন্ট ফাব্রাং, মাউন্ট সিসিকেএন, মাউন্ট শিবা ও মাউন্ট রামজাক। ২০২২ সালে প্রথম বাঙালি হিসেবে সামিট করেন নেপালের ২২ হাজার ৩৪৯ ফুটের পর্বত আমা দাব্লাম। গত বছর সামিট করেন চুলু ফার-ইস্ট এবং চুলু ইস্ট। পর্বত আরোহণ ছাড়াও বাবর ২০২৩ সালে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে সম্পন্ন করেছেন ভারতের দীর্ঘতম হাইওয়ে কাশ্মীর-কন্যাকুমারী সাইক্লিং। এ ছাড়া ২০১৯ সালে টানা ৬৪ দিন হেঁটে পাড়ি দিয়েছেন দেশের ৬৪ জেলা। এর আগে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে মাউন্ট এভারেস্ট সামিট করেন মুসা ইব্রাহিম। এরপর টানা দুবার সামিট করেন এম এ মুহিত। তৃতীয় ও প্রথম নারী হিসেবে সামিট করেন নিশাত মজুমদার। এরপর দ্বিতীয় নারী হিসেবে ওয়াসফিয়া নাজরীন সামিট করেন। বাবরের ১১ বছর আগে সামিট করেন মো. খালেদ হোসাইন।

সর্বশেষ খবর