Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ২৩ এপ্রিল, ২০১৯ ২২:০৩

তৃতীয় দফার লোকসভা নির্বাচন

ভারতে ভোট দিতে গিয়ে চোখের সামনেই বাবার মৃত্যু দেখলো ছেলে!

দীপক দেবনাথ, কলকাতা

ভারতে ভোট দিতে গিয়ে চোখের সামনেই বাবার মৃত্যু দেখলো ছেলে!

ভারতের সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের প্রথম দুইটি পর্বে পশ্চিমবঙ্গে বিক্ষিপ্ত নির্বাচনী সহিংসতা ঘটলেও রক্ত ঝরল তৃতীয় পর্বে। মঙ্গলবার রাজনৈতিক দলের সংঘর্ষের মাঝে পড়ে চলমান লোকসভা নির্বাচনে প্রথম প্রাণহানির ঘটনা ঘটল রাজ্যটিতে। জীবনে প্রথম ভোট দিতে গিয়ে চোখের সামনেই বাবার মৃত্যু দেখল ১৮ বছর বয়সী ছেলে।

মুর্শিদাবাদ জেলার ভগবানগোলার বালিগ্রাম প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৮৮ নম্বর বুথে রাজ্যটির ক্ষমতাসীন দল তৃণমূল কংগ্রেস ও বিরোধী দল জাতীয় কংগ্রেসের সংঘর্ষের মাঝে পড়ে মৃত্যু হয় আব্দুল কালাম টিয়ারুল শেখ নামে এক কংগ্রেস কর্মীর। আহত হয় আরও দুইজন। এদের মধ্যে একজন টিয়ারুলের ছেলে, অন্যজন তৃণমূল কর্মী। 

জানা গেছে, এদিন ছেলেকে সাথে নিয়েই ভোটের লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন টিয়ারুল শেখ। সেই সময়ই কংগ্রেস ও তৃণমূল কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। বাঁশ, লাঠি ও হাঁসোয়া (লম্বা দা) নিয়ে একে অপরের ওপর চড়াও হয়। পরে সেই সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে বুথের বাইরেও। এর মধ্যেই বাঁশ ও লাঠির হামলায় গুরুতর জখম হন টিয়ারুল। রক্তাক্ত টিয়ারুলকে নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় একটি হাসপাতালে, কিন্তু শারীরিক অবস্থার অবনতির কারণে বহরমপুর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানেই চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা দেন। আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি আছে টিয়ারুলের ছেলে। 


এদিকে মৃত্যুর ঘটনায় জেলা কমিশনের কাছে রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছে নির্বাচন কমিশন। ঘটনায় আটক করা হয়েছে ৪ জনকে। অন্য একটি ঘটনায় রাজ্যটির দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বুনিয়াদপুরে নিজের বাড়িতে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায় এক পোলিং এজেন্টকে। যদিও মৃত্যুর কারণ নিয়ে এখনও ধোঁয়াশা রয়েছে।

তৃতীয় পর্বে পশ্চিমবঙ্গে পাঁচটি লোকসভা আসনে ভোট নেওয়া হয়। এগুলো হল বালুরঘাট, মালদা উত্তর, মালদা দক্ষিণ, জঙ্গিপুর ও মুর্শিদাবাদ। সকাল ৭টা থেকে শুরু হয়ে ভোট গ্রহণ চলে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত। এপর্বে রাজ্যটিতে মোট ভোটারের সংখ্যা ছিল ৮০,২৩,৮৪৬ জন। মোট ৬১ জন প্রার্থীর ভাগ্য বাক্স বন্দি হয়েছে, যার মধ্যে ৬ জন নারী প্রার্থী। সকালের দিকে বুথ দখলকে কেন্দ্র মুর্শিদাবাদের ডোমকল থানার মানিকনগর গ্রামে তৃণমূল ও বিরোধীদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধলে তিন তৃণমূল কর্মী আহত হন। তাদের ডোমকল মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসা করা হয়। ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয়। 

তৃতীয় দফায় পশ্চিমবঙ্গসহ দেশের ১৫ রাজ্যের ১১৭ টি লোকসভা আসনে এদিন ভোট নেওয়া হয়। এর মধ্যে গুজরাটের (২৬), কেরল (২০), কর্নাটক (১৪), মহারাষ্ট্র (১৪), উত্তরপ্রদেশ (১০), ছত্তিশগড় (৭), ওড়িষ্যা (৬), বিহার (৫), পশ্চিমবঙ্গ (৫), অসম (৪), গোয়া (২), দাদরা এবং নগর হাভেলি (১), দমন এবং দিউ (১), জম্মু-কাশ্মীর (১), ত্রিপুরা (১) টি আসন। 

এপর্বে দেশজুড়ে মোট ভোটারের সংখ্যা ছির ১৮.৮৫ কোটি। ১৬০০ এর বেশি প্রার্থী এবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। 
অন্যদিকে প্রবল গরমে দক্ষিণ ভারতের কেরল রাজ্যে ভোটের লাইনে দাঁড়িয়ে অসুস্থ হয়ে ২ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে। ওড়িষ্যার ঢেঙ্কানলে কর্তব্যরত অবস্থায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়া এক পোলিং কর্মকর্তাকেও আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হলে পরে তার মৃত্যু হয়। 

এই পর্বে একাধিক হেভিওয়েট প্রার্থীদের ভাগ্য নির্ধারণ হয়ে গেল। এক্ষেত্রে প্রথমেই আছে কংগ্রেস ও বিজেপির মতো দুইটি বড় রাজনৈতিক বড় দলের সর্বভারতীয় সভাপতি। এবারই প্রথম লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। গুজরাটের গান্ধীনগর কেন্দ্রে প্রার্থী হয়েছেন অমিত, অন্যদিকে কেরলের ওয়ানার কেন্দ্রের প্রার্থী হয়েছেন রাহুল। 

এছাড়াও উত্তরপ্রদেশের মঈনপুরী কেন্দ্রে সমাজবাদী পার্টি (সপা) প্রধান মুলায়ম সিং যাদব, এই রাজ্যেরই রামপুর কেন্দ্রে সপা নেতা আজম খান ও বিজেপির জয়া প্রদা, বিহারের মাধেপুরা কেন্দ্র থেকে লোকতান্ত্রিক জনতা দলের নেতা শরদ যাদব, কেরলের তিরুবন্তপুরম কেন্দ্রে কংগ্রেস প্রার্থী শশী থারুর, জম্মু-কাশ্মীরের অনন্তনাগ কেন্দ্রে পিডিপি নেত্রী মেহবুবা মুফতি, ওড়িষ্যার পুরী কেন্দ্রে বিজেপির মুখপাত্র সম্বিত পাত্র, পিলভিট কেন্দ্রে বিজেপির বরুণ গান্ধী, বেরিলি থেকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সন্তোষ কুমার গাঙ্গোয়ার, কর্নপাটকের কালাবুরাগি কেন্দ্রে মল্লিকার্জুন খাড়গের মতো প্রার্থীদের ভাগ্য নির্ধারণ হয়ে গেল।  

সাত পর্বে লোকসভা নির্বাচন শুরু হয়েছিল গত ১১ এপ্রিল। পরের চারটি পর্বের নির্বাচন হবে যথাক্রমে ২৯ এপ্রিল এবং ৬, ১২, ১৯ মে। গণনা আগামী ২৩ মে।

বিডি-প্রতিদিন/২৩ এপ্রিল, ২০১৯/মাহবুব


আপনার মন্তব্য