শিরোনাম
প্রকাশ : ১৫ জুলাই, ২০২১ ১৮:৪৪
আপডেট : ১৫ জুলাই, ২০২১ ২১:৩৪
প্রিন্ট করুন printer

স্বাস্থ্যখাত নতুনভাবে ঢেলে সাজানোর দাবিতে ঢাবিতে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক

স্বাস্থ্যখাত নতুনভাবে ঢেলে সাজানোর দাবিতে ঢাবিতে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মানববন্ধন
Google News

স্বাস্থ্যখাত নতুনভাবে ঢেলে সাজানোর দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে মানববন্ধন করেছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। আজ বৃহস্পতিবার বিকালে এই দাবি জানিয়েছে সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

সংকটে স্বল্পমূল্যে অক্সিজেন উৎপাদন ও সরবরাহের জন্য বুয়েটের একদল শিক্ষক-ছাত্রদের উদ্ভাবিত "অক্সিজেট" ডিভাইসকে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর কর্তৃক দ্রুত অনুমতি প্রদান এবং সরকারি হাসপাতালে যন্ত্রপাতি ক্রয়ে অনিয়ম ও দুর্নীতির সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিসহ স্বাস্থ্যখাত নতুন ভাবে ঢেলে সাজানোর দাবি জানানো হয়।

বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আল মামুনের সঞ্চালনায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল। এসময় বক্তব্য রাখেন সংগঠনের উপদেষ্টা ভাস্কর শিল্পী রাশা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনেট মাহমুদসহ নেতৃবৃন্দ।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন বলেন, "বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবারদের অধিকার আদায়ের আন্দোলন ও সংগ্রামের পাশাপাশি সমাজ ও রাষ্ট্রের সকল অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে আসছে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। এরই ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি স্বাস্থ্যখাতের অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। বঙ্গবন্ধুর বাংলায় কোন দুর্নীতিবাজের ঠাঁই হবে না। করোনা সংক্রমণ যত বাড়ছে ততই বাড়ছে অক্সিজেনের চাহিদা। এরই মধ্যে চাপ কম থাকায় খুলনায় এবং হাইফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলার সংকটে বগুড়ায় রোগী মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এমন প্রেক্ষাপটে আশার আলো দেখাচ্ছে বুয়েটের তৈরি অক্সিজেন। যন্ত্রটি মূলত স্বল্প খরচে রোগীকে উচ্চগতির অক্সিজেন দিতে সক্ষম। যন্ত্রটি বাতাস ও অক্সিজেনের সংমিশ্রণে মিনিটে ৬০ লিটার গতিতে অক্সিজেন সরবরাহ করতে পারে। প্রয়োজনে দিবে শতভাগ অক্সিজেন কনসেন্ট্রেশন। এরই মধ্যে যন্ত্রটিকে হাইফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলার সঙ্গে তুলনা করেছেন চিকিৎসকরা। বুয়েটের গবেষক দল ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরে আবেদন করার পরেও আজও পর্যন্ত অনুমতি দেয়া হয়নি। করোনা সংকট মোকাবিলায় অক্সিজেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে সক্ষম হবে।      

তিনি আরও বলেন, যন্ত্রটি নিয়ে এতোদিন গণমাধ্যমে আলোচনা হওয়ার পর এখনও পর্যন্ত ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর অনুমতি দেয়া হয়নি যা অত্যন্ত দুঃখজনক। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। অক্সিজেন উদ্ভাবকদের বক্তব্য অনুযায়ী ঢাকা মেডিকেলে অক্সিজেনের পরীক্ষামূলক ব্যবহারে ভালো ফলাফল মিলেছে। তারা অনুমোদন পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছেন। করোনা সংকটে আইসিইউ যারা পাচ্ছেন না, হাইফ্লো ন্যাজাল যখন সহজলভ্য না, ঠিক সেই সময়ে ব্যাকআপ হিসেবে অস্থায়ীভাবে একটা ব্রিজিং থ্যারাপি হিসেবে এটা ব্যবহার করা সম্ভব। ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের জনস্বার্থ বিরোধী কোন ষড়যন্ত্র মেনে নিবে না বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। অবিলম্বে বুয়েট উদ্ভাবিত অক্সিজেনকে দ্রুত অনুমোদন দিতে হবে। অন্যথায় ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের বিরুদ্ধে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। 

আল মামুন বলেন, শুধুমাত্র ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর নয়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে অধিকাংশ প্রতিষ্ঠান দায়িত্ব পালনে চরম ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। করোনা সংকট মোকাবিলার জন্য স্বাস্থ্যখাতকে নতুনভাবে ঢেলে সাজানোর বিকল্প নেই। স্বাস্থ্যমন্ত্রীর দায়িত্বহীন বক্তব্য বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করেছে। রাজধানীর বাহিরে জেলা হাসপাতালগুলোর অবস্থা খুবই উদ্বেগজনক। প্রতিটি জেলা হাসপাতালে পর্যাপ্ত আইসিউ বেড স্থাপন, অক্সিজেন ব্যবস্থা, করোনা টেস্টের সংখ্যা বৃদ্ধিসহ সকল নাগরিককে টিকার আওতায় আনতে হবে। স্বাস্থ্য খাতে দুর্নীতি ও অনিয়মের সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। 

সংগঠনের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনেট মাহমুদ বলেন, সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর মায়ের নামে তৈরি শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজের বাতি কেনায় দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। যেখানে ১৫ ওয়াট বাথরুম লাইট কেনা হয়েছে ৩৮৪৩ টাকায়। ১৮ ওয়াটের সারফেস ডাউন লাইট কেনা হয়েছে ৩৭৫১ টাকায়। এমন ২৪ ধরনের বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম সরবরাহ করবে প্রতিষ্ঠানটি। নির্মাণাধীন সরকারি হাসপাতালে এমন দরে বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম সরবরাহ করছে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ভাগ্নের প্রতিষ্ঠান, ‘কসমো লাইটিং’। পিডাব্লিউডির তালিকাভুক্ত না হলেও এসব সরঞ্জাম সরবরাহ করছে প্রতিষ্ঠানটি।  

সংগঠনের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, মাস্ক কেলেঙ্কারি, কোভিড টেস্ট নিয়ে জালিয়াতি, জেকেজি আর রিজেন্ট হাসপাতালের মতো বড় আর আলোচিত ঘটনার পরেও, স্বাস্থ্যখাতে ১৮০০ জনবল নিয়োগে কোটি টাকা ঘুষের প্রস্তাব, শত শত কোটি টাকার কেনাকাটায় অনিয়ম ও দুর্নীতির খবর আবার দেশের গণমাধ্যমে শিরোনাম হয়েছে। 

তিনি আরও বলেন, স্বাস্থ্য খাতে দুর্নীতি নিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর হাস্যকর বক্তব্য প্রত্যাখান করছে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। তার দায়িত্বহীন বক্তব্য দুর্নীতিবাজদের উৎসাহিত করেছে। স্বাস্থ্য খাতে দুর্নীতির ধারাবাহিক চিত্রগুলো প্রধানমন্ত্রীর সফল অর্জনসমূহকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। অবিলম্বে স্বাস্থ্যখাতকে নতুনভাবে ঢেলে সাজাতে হবে।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত

এই বিভাগের আরও খবর