২৭ অক্টোবর, ২০২১ ০৮:২৫

মাদক ব্যবসায়ী ১০ হাজার, ৯০০ গডফাদারের নিয়ন্ত্রণে সাম্রাজ্য

আগের নিয়মেই চলছে সব

সাখাওয়াত কাওসার

মাদক ব্যবসায়ী ১০ হাজার, ৯০০ গডফাদারের নিয়ন্ত্রণে সাম্রাজ্য

প্রতীকী ছবি

দেশে মাদক ঢুকছে সেই আগের নিয়মেই। কোনোভাবেই যেন ঠেকানো যাচ্ছে না মাদক প্রবেশ। গডফাদার, ডিলার এবং খুচরা বিক্রেতা হয়ে ভয়ংকর সব মাদক পৌঁছে যাচ্ছে ক্রেতা-সেবীদের কাছে। নানা কৌশলে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যদের বোকা বানিয়ে সাইবার জগতে এখনো বসছে নিয়মিত মাদকের হাট। বহাল তবিয়তেই রয়ে যাচ্ছেন এসব মাদক হাটের নিয়ন্ত্রক/পৃষ্ঠপোষক ৯ শতাধিক গডফাদার। দীর্ঘদিন ধরেই ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়ে যাচ্ছেন তারা। অনেকে দেশে-বিদেশে আত্মগোপনে রয়েছেন। কেউ কেউ আবার নিজ নিজ এলাকায় ফিরেও এসেছেন। অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন ৯ শতাধিক গডফাদারসহ ১০ হাজার মাদক ব্যবসায়ীর বিপরীতে র‌্যাব-পুলিশ, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরসহ (ডিএনসি) রাষ্ট্রের সব আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার সক্ষমতা নিয়ে।

এদিকে মাদক নিয়ে কাজ করেন বিভিন্ন সংস্থার এমন কয়েকজন কর্মকর্তা এবং বিশেষজ্ঞ বলছেন, মাদক মামলা নিয়ে যথাযথ তদন্ত না হওয়ার কারণে শুধু বহনকারী এবং তার ওপরের দুই-একজনের নামই অভিযোগপত্রে আসে। অভিযোগপত্রে গডফাদার কিংবা তার ঠিক পরের স্তরের ব্যবসায়ীদের নাম আসার উদাহরণ খুবই বিরল। যথাযথ তদন্তের জন্য প্রয়োজনে আইন পরিবর্তনের উদ্যোগ নিতে হবে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, অলিগলিতেই মিলছে ক্রেজি ড্রাগস ইয়াবা কিংবা হেরোইন-ফেনসিডিল। এমনকি ভার্চুয়াল হাটে অর্ডার দিয়েও মিলছে মাদক। তবে সবচেয়ে উদ্বেগের খবর হলো- দেশের রুট ব্যবহার করে বিভিন্ন দেশে যাচ্ছে মাদক। মাদকের গডফাদারদের সঙ্গে দেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলা ও গ্রামাঞ্চলে মাদক ব্যবসার সঙ্গে একশ্রেণির রাজনৈতিক নেতা-কর্মী জড়িত। তাদের অর্থের মূল উৎস এই মাদক। রাজধানী থেকে গ্রামাঞ্চল পর্যন্ত মাদক ব্যবসা পরিচালনার পৃষ্ঠপোষক হন এসব রাজনৈতিক নেতা। সীমান্তবর্তী জেলা যশোর, সাতক্ষীরা, কক্সবাজার, ফেনী এলাকার একসময়ের মাদক ব্যবসায়ীরা এখন স্থানীয় সরকারের জনপ্রতিনিধি হিসেবে পদস্থ হয়েছেন। বনে গেছেন পৃষ্ঠপোষক। অর্থ লগ্নি করছেন মাদক ব্যবসায়। আর লাভের একটা অংশ নিয়মিতভাবে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে প্রভাবশালী বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতার পকেটে। তবে অর্থ লগ্নি নির্বিঘ্ন করতে তারা ব্যবসায়ীদের জন্য স্থানীয় থানাসহ প্রশাসনকে বিশেষ কায়দায় ম্যানেজ করে দেন। সূত্র বলছে, করোনা শুরুর আগে বাংলাদেশ ও ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে বিভিন্ন সময় দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হয়েছে। এসব বৈঠকের সময় ভারতের পক্ষ থেকে সীমান্তে মাদক পাচারের সঙ্গে জড়িত গডফাদারসহ ৩৮০ জনের তালিকাও বিজিবির কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ তালিকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নামও রয়েছে।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের (ডিএনসি) মহাপরিচালক আবদুস সবুর মন্ডল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আমরা আমাদের সর্বোচ্চটা দিয়ে চেষ্টা করছি মাদক নিয়ন্ত্রণ করতে। দায়িত্ব নেওয়ার পর আমি কয়েকটি সীমান্তবর্তী জেলায় গিয়েছি। সেখানকার মানুষের মতামত নিচ্ছি, জেলা প্রশাসকদের মতামত নিচ্ছি। মাদক নিয়ন্ত্রণে আমরা বিশেষ কিছু করে দেখানোর চিন্তা করছি। দেখা যাক ভালো কিছু হবে।’

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গডফাদাররা ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকার মূল কারণ হলো, মাদক বহনকারীরা বিভিন্ন সময় গ্রেফতার হলেও তারা কার কাছ থেকে মাদক এনেছে এবং কাকে দেবে সেসব ব্যক্তির নামও জানে না। তবে নির্ধারিত স্থানে যাওয়ার পর ওই মাদক বহনকারীর পোশাক দেখে একজন একটি সাংকেতিক শব্দ বললে সেই ব্যক্তির কাছে মাদক দিয়ে দেওয়া হয়। এ কারণে মাদক বহনকারীদের জিজ্ঞাসাবাদে গডফাদারদের ব্যাপারে কোনো তথ্য পাওয়া যায় না। তবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সারা দেশে মাদকের গডফাদারদের ধরার অভিযানে নামছে। একই সঙ্গে সীমান্তেও নজরদারি বাড়াবে দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

সম্প্রতি সরেজমিন মাদক কারবারের খোঁজ নিতে গিয়ে রাজধানীর পল্লবীর বিহারি ক্যাম্প এলাকায় বেশ কয়েকজন মাদক কারবারির সঙ্গে কথা হয়। তাদের একজনের নাম কামরান। তিনি পল্লবীর বিহারি ক্যাম্প এলাকার মাদক কারবারি। কামরান বলেন, ঢাকার বিহারি ক্যাম্পগুলোতে অন্তত ১৫টি গ্রুপ আছে। এদের সঙ্গে বিভিন্ন এলাকার মাদক কারবারিদের যোগাযোগ আছে।

স্থানীয় ওয়ার্ড পর্যায়ে অনেক রাজনৈতিক নেতাদের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অনেক সদস্যই তাদের সহযোগিতা করে। অবাঙালিদের অধিকার নিয়ে কাজ করা একটি সংগঠনের একজন নেতার ভাষ্য অনুযায়ী, প্রতিটি এলাকায় একাধিক চক্র রয়েছে। থানা পুলিশের সোর্সদের ম্যানেজ করেই তারা মাদক কারবার করছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কতিপয় অসাধু সদস্যও তাদের কাঁচা টাকার লোভে সহযোগিতা করছে। এ কারণে সরকার এত পদক্ষেপ নেওয়ার পরও নিয়ন্ত্রণে আসছে না মাদকের কারবার। দীর্ঘদিন ধরে শুধু মোহাম্মদপুরের ছয়টি অবাঙালি ক্যাম্পেই মাদক কারবার নিয়ন্ত্রণ করছে কয়েকটি বড় চক্র। তাদের অনেকেই বিভিন্ন সময় গ্রেফতার হয়। এরপর অন্য আরেক চক্র নিয়ন্ত্রণ করে মাদক কারবার। এ ছাড়া পল্লবীসহ দেশের অন্য অবাঙালি ক্যাম্পগুলোতেও এই কারবার চলছে তাদের নিয়ন্ত্রণে। এসব এলাকায় পুলিশের তল্লাশিচৌকি বা চেকপোস্ট থাকলেও তাদের চোখ ফাঁকি দিয়ে চলছে মাদকের রমরমা কারবার। বিভিন্ন ক্যাম্পে থাকা অবাঙালি, যারা উর্দুভাষী, তাদের অধিকার নিয়ে কাজ করে এমন একটি সংগঠন স্ট্রান্ডেড পাকিস্তানিজ জেনারেল রিপাট্রিয়েশন্সের (এসপিজিআরসি) নেতারা বলছেন, সারা দেশে ৭০টি ক্যাম্পেই কমবেশি মাদকের প্রভাব রয়েছে। এক ক্যাম্পের মাদক কারবারিদের সঙ্গে অন্য ক্যাম্পের কারবারিদের নিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে মোবাইল ফোন ও বিভিন্ন ইন্টারনেট মাধ্যমে। এভাবে মাদক ছড়িয়ে পড়ছে।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এম শওকত আলী বলেন, ‘ক্যাম্পে বসবাসকারীরা নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত। তাদের অনেকেই লেখাপড়া জানে না। আবার কউ লখাপড়া করলেও কর্মসংস্থানের তেমন সুযোগ নই। তাই জীবিকার তাগিদে তারা ঝুঁকি জেনেও জড়িয়ে পড়ছে মাদক বিক্রির মতো অপরাধে।’

২০১৬, ২০১৭ ও ২০১৮ সালে মোহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্পসহ অন্যান্য ক্যাম্পে বড় ধরনের অভিযান চালায় পুলিশ ও র‌্যাব। ২০১৮ সালের ৪ মে থেকে ‘চলো যাই যুদ্ধে’ মাদকের বিরুদ্ধে স্লোগান দিয়ে বিশেষ অভিযান শুরু করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলো। ওই অভিযান শুরুর পর পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবির সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে এ পর্যন্ত নিহত হয়েছে ২৭৬ জন। জেনেভা ক্যাম্পের শীর্ষ মাদক কারবারি পাঁচু ওরফে পঁচিশও নিহত হয়েছেন ‘বন্দুকযুদ্ধে’। কেন মাদক কারবার কমছে না জানতে চাইলে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপস্) কর্নেল কে এম আজাদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘দেখুন, একা আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা দিয়ে মাদক নিয়ন্ত্রণে আসবে না। কারণ চাহিদা থাকলে কোনো না কোনোভাবে সরবরাহ হবেই। এ জন্য পারিবারিক, সামাজিক সংগঠনগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে।’ এক প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘কক্সবাজারে বিশেষ ব্যাটালিয়ন প্রতিষ্ঠার পর অনেক সফলতা এসেছে। তবে এখন আমরা জানতে পারছি মাদক বহন করা মাছ কিংবা লবণবাহী ট্রলার কিংবা বোটগুলো বরিশাল, আনোয়ারা, চট্টগ্রাম, পটুয়াখালীর মতো দ্বীপজেলায় আনলোড হচ্ছে।’ সাম্প্রতিক সময়ে ডিএনসির এক গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশে প্রায় ৩০ ধরনের মাদকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সেবন হয় ইয়াবা। দেশে প্রতিদিন প্রায় ৭০ লাখ ইয়াবা বিক্রি হয়। এর মধ্যে ঢাকায় বিক্রি হয় ১৫ লাখ। বাজারদর প্রতিটি ৩০০ টাকা করে হলেও ৭০ লাখ ইয়াবার মূল্য দাঁড়ায় ২১০ কোটি টাকা।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের ঢাকা বিভাগের প্রধান ও অতিরিক্ত পরিচালক ফজলুর রহমান বলেন, রাজধানীসহ ঢাকার আশপাশে প্রায় সাড়ে তিন হাজার মাদক কারবারি এখনো সক্রিয়। তাদের ধরতে অভিযান অব্যাহত আছে। ডিএনসির অপর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিভিন্ন সীমান্ত হয়ে মিয়ানমার থেকে দেশে ইয়াবা আসায় মাদকের বিস্তার ভয়াবহ আকারে বেড়ে গেছে। বছরে ইয়াবা বিক্রি ১ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। ইয়াবা গ্রহণকারীদের মধ্যে শুধু নারী রয়েছে ৪৩ শতাংশ। ইয়াবা আসক্তের শতকরা ৯০ ভাগ কিশোর ও তরুণ এবং ৪৫ শতাংশ বেকার। ৬৫ শতাংশ আন্ডারগ্র্যাজুয়েট এবং উচ্চশিক্ষিতের সংখ্যা ১৫ শতাংশ। এ ছাড়া ১৫ বছরের বেশি বয়সের মাদকসেবী আছে ৬৫.২৫ শতাংশ। অর্থাৎ ৪৮ লাখ ৯৩ হাজার ৭৫০ জন তরুণ-যুবকের প্রতি ১৭ জনে একজন মাদকাসক্ত। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান বলেন, ‘জিরো টলারেন্স নীতি সঠিকভাবে কার্যকর হচ্ছে না। যারা মাদক বহন করছে তাদেরই ধরে আর ছাড়ে এই তো চলছে। তাহলে নিয়ন্ত্রণে আসবে কীভাবে? মাদকের গডফাদাররা ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকছে। জিরো টলারেন্স নীতি পুরোপুরি বাস্তবায়িত এবং সীমান্ত দিয়ে মাদক আসা বন্ধ হলে দেশে মাদক নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে।’ তবে কক্সবাজারের বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (৩৪-বিজিবি) অধিনায়ক আলী হায়দার আজাদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আগে বলা হতো ১০ শতাংশ মাদক আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা উদ্ধার করতে পারে। তবে এখনকার পরিসংখ্যান হলো, আমরা ৫০ শতাংশের বেশী মাদক উদ্ধার করি। ২০১৮ সালে আমার ব্যাটালিয়নে উদ্ধার ছিল ৫ লাখের বেশি ইয়াবা। ২০১৯ সালে ১৩ লাখ, ২০২০ সালে ৩৭ লাখ। চলতি বছর এখন পর্যন্ত ৪৩ লাখের বেশি ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।’ বিজিবি-২ ব্যাটালিয়নের পরিসংখ্যানও এমনই।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর